কুমিল্লা
শুক্রবার,২৩ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ বৈশাখ, ১৪২৮ | ১০ রমজান, ১৪৪২

হারিয়ে যাচ্ছে কুমিল্লার গ্রামীণ ঐতিহ্য বাশঁ ও বেত শিল্প

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য বাশঁ ও বেত শিল্প এখন বিলুপ্তির পথে। আদিকাল থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় ও অন্যতম গ্রামীণ প্রতিচ্ছবি বাঁশ ও বেত দিয়ে প্রস্তুতকৃত শিল্প সামগ্রী সকল সমাজের মানুষ ঐতিহ্যের সঙ্গে ব্যবহার করে আসছে।

কিন্ত আধুনিকতার ছোঁয়ায় প্লাস্টিক সামগ্রী ব্যবহারের ফলে পাল্টে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার চালচিত্র। কালেরগর্ভে দিন দিন ককমে যাচ্ছে বাঁশ ও বেত শিল্পের কদর, পাশাপাশি চরম দূর্দিন নেমে এসেছে শিল্পটির সাথে জড়িত কারিগরদের জীবনে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, কুমিল্লা জেলার কয়েকটি উপজেলায় এক সময় বাঁশ ও বেত দিয়ে তৈরি নানা প্রকার শিল্প সামগ্রীর বেশ কদর ছিল। বাঁশ ও বেত দিয়ে বিশেষভাবে প্রস্তুতকৃত সামগ্রীর মধ্যে: ঝুড়ি, ডালা, কুলা, চাঙ্গারী, মুড়া, ঢুষি, হাতপাখা, চালোন, টোকা, বাঁশি, গোলা, ডোলা, আউড়ি, চাঁচ, ধামা, পাতি, চেয়ার, টেবিল, বই রাখার তাক সহ বিভিন্ন প্রকার শিল্প সামগ্রী ব্যবহার করা হত।

ধনী-গরীবসহ সকল পেশার মানুষ কম বেশি বাঁশ ও বেত জাত সামগ্রী ব্যবহার করত। পাশাপাশি এ শিল্পের সাথে জড়িত মানুষ তাদের জীবন-জীবিকা চালাতো অনেক সুন্দরভাবে। কিন্তু বর্তমানে ষ্টীল, প্লাষ্টিকের তৈরি নিত্য নতুন ডিজাইনের বিভিন্ন সামগ্রী খুব সহজে এবং কম মূল্যে হাতের নাগালে পাওয়া এবং তা তুলনামুলক টেকসই হওয়ার কারণে এবং প্রচুর পরিমানে লোকজন এ সামগ্রী ব্যবহারের কারণে বাঁশ ও বেত দিয়ে প্রস্তুতকৃত শিল্প সামগ্রী সকলের কাছে গ্রহণ যোগ্যতা হারিয়ে ফেলছে।

ফলে এ শিল্পের সাথে সাথে সংশ্লিষ্ট কারিগররা সীমাহীন কষ্টের মধ্যে থেকেও পূর্ব পুরুষের ঐতিহ্য এখনো ধরে রেখেছে। আবার অনেকে পেশা বদল করে বিভিন্ন ব্যবসা-বাণিজ্যে জড়িত হয়ে পড়ছে।

জরিপে দেখা গেছে এ শিল্পের সাথে যারা জড়িত তাদের প্রায় সবাই গরীব ও নৃ সম্প্রদায়। এরা সমাজে অবহেলিত এবং তারা সরকারের দেওয়া প্রায় সকল প্রকার সাহায্য সহযোগিতা থেকেও অনেকটা বঞ্চিত।

সেই সাথে তাদের তৈরি শিল্প সামগ্রীর চাহিদা কমে যাবার কারণে তারা মানবেতর জীবন-যাপন করছে কুমিল্লা জেলা সদর ছোটরা গ্রামের সুবিতা, চায়না, সুজিতা, রতন ও নিমাই চন্দ্র সহ এ শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট একাধিক কারিগররা বলেন, বাঁশ ও বেত সংগ্রহ করে বাড়িতে পরিবারের সবাই মিলে সামগ্রী প্রস্তুত করে বাজারে বা মেলায় বিক্রয় করে বেশি লাভ থাকে না।

বাজারে একটি ধামা ৩৫০-৮শ, পাতি ৭০-২৫০, ঝুড়ি ৮০-১০০, দোলনা ২০০-২৫০, কুলা ৫০-৮০, মুরগী ঢাকা ঝুড়ি ৮০-১০০, মাপার জন্য পাল্লা ২শ থেকে ৪শ টাকায় বিক্রয় করা যায়। তবে তাদের দাবী আমাদের এ কাজের উপর যেন সরকার ঋনের ব্যবস্থা করে দেয়।

লালমাই গ্রামের সাধন সরদার, মনোরঞ্জন, অনেকে জানায়, সেই পূর্ব পুরুষের ঐতিহ্য ধরে রেখে আজও বিভিন্ন এলাকা থেকে বাঁশ ও বেত সংগ্রহ করে ঝুড়ি, ডালা, ধামা, পাতি, চাঁচ, কুলা সহ বিভিন্ন প্রকারের সামগ্রী তৈরি করে থাকি।

 

আরও পড়ুন