কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২২ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৬ কার্তিক, ১৪২৭ | ৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

৭ পর্যবেক্ষক সংস্থায় আপত্তি, ইসির শুনানিতে আসেনি অভিযোগকারীরা

নির্বাচন পর্যবেক্ষক হিসেবে নিবন্ধনের জন্য ১২০টি সংস্থাকে প্রাথমিকভাবে মনোনীত করে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সেখানে এসব সংস্থার বিরুদ্ধে কোনো দাবি, আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে তা ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে ইসি সচিব বরাবর লিখিত আবেদন জানাতে বলা হয়। ইসির দেয়া নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সাতটি সংস্থার বিষয়ে আপত্তি জানানো হয়। কিন্তু শুনানির দিন অভিযোগকারীদের কেউই ইসিতে হাজির হননি। ইসির অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেসুর রহমান আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে রোববার নিজ কার্যালয়ে বিষয়টি নিয়ে শুনানি করেন।

যে সংস্থার বিরুদ্ধে যা অভিযোগ:

এসো জাতি গড়ি (এজাগ) সংস্থাটি সরাসরি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের সাথে জড়িত এমন অভিযোগ করেন ফরিদপুরের সদর উপজেলার চর কমলাপুর গ্রামের এএইচএম ফোয়াদ।

মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও বাস্তবায়ন সংস্থার বিষয়ে আপত্তি করেছেন ঢাকার ডেমরার ওয়াসা রোডের মো. আবুল হোসেন। তার বাবার নাম আবু গাউছ। সংস্থাটির বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ- (ক) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ‘সোসাইটি ফর এস্টাবলিস এন্ড ইমপ্লিমেন্ট হিউম্যান রাইটস’ নামে আছে। (খ) অনুমোদিত কোনো কমিটি নেই। (গ) নাম বিকৃত করা হয়েছে।

পাঁচটি সংস্থার বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছেন বরিশালের দৈনিক দখিনের মুখের সাংবাদিক সাহরিয়ার কবির। তার অভিযোগ পিডিও (পিস এন্ড লেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন) পটুয়াখালী এই সংস্থার পরিচালক সাম্যবাদী দলের ছাত্র সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা। কমিউনিটি লেভেলপমেন্ট অ্যাডভান্সমেন্ট সেন্টার, পটুয়াখালী; আরোহী অ্যাসোসিয়েশন অব রুরাল অপরচুনিটি এন্ড হিউম্যান ইনিশিয়েটিভ,

বরিশাল ও দাড়িয়াল ইউনিয়ন জনকল্যাণ সংস্থা (ডিইউজেকেএস), বরিশাল এ সংগঠনের গঠনতন্ত্র মতে কখনোই নির্বাচন করা হয়নি বরং বারবার নিজেরাই নেতৃত্বে থাকেন। ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট ফর স্যোসাল এন্ড হিউম্যান অ্যাফেয়ার্স, বরিশাল একটি রেজিস্ট্রেশন সর্বস্ব প্রতিষ্ঠান ও সংস্থাটির কোনো ঠিকানা নেই অভিযোগে উল্লেখ করেন সাহরিয়ার কবির। ইসি সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইসির যুগ্ম-সচিব (জনসংযোগ) পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, সাতটি পর্যবেক্ষক সংস্থার বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে আপত্তি এসেছিল। কিন্তু যারা অভিযোগ করেছেন তাদের কেউ শুনানির দিন (রোববার) উপস্থিত হননি। তাই এতে প্রমাণিত হয় না যে, তারা যেসব সংস্থার বিষয়ে অভিযোগ করেছেন তা সঠিক। তাই এসব অভিযোগ আমনে নেওয়া হচ্ছে না।

ইসি সূত্রে তথ্য জানা যায়, এর আগে গত বছরের ২৩ অক্টোবর নিবন্ধনের জন্য নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থাগুলোর কাছ থেকে আবেদন চেয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করে ইসি। আগ্রহী সংস্থাগুলো আবেদন করার সময় ছিল গত বছরের ৭ নভেম্বর। নির্দিষ্ট সময়ে ১৯৯ সংস্থা নিবন্ধনের জন্য আবেদন করে। পরে ২ এপ্রিল নির্বাচন পর্যবেক্ষক হিসেবে নিবন্ধনের জন্য ১২০টি সংস্থাকে প্রাথমিকভাবে মনোনীত করে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। যাচাই-বাচাই, আপত্তি শেষে যোগ্যতা সম্পন্ন সংস্থাগুলোকে পাঁচ বছরের জন্য নিবন্ধন দিবে কমিশন।

নির্বাচন পর্যবেক্ষণ নীতিমালা-২০১৭ অনুসারে পর্যবেক্ষক সংস্থা হিসেবে নিবন্ধনে আগ্রহী বেসরকারি সংস্থাগুলোর কাছ থেকে দরখাস্ত আহ্বান করে কমিশন।

ইসি সূত্রে জানা যায়, ২০০৮ সালে নবম সংসদ নির্বাচনের পূর্বে আরপিও-১৯৭২ সংশোধন করে প্রথমবারের মতো নির্বাচন পর্যবেক্ষণের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হয়। নবম সংসদ নির্বাচনের সময় প্রথমবারের মতো পর্যবেক্ষক সংস্থাগুলোর নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়। একইসঙ্গে পর্যবেক্ষক নীতিমালাও তৈরি করা হয়।

এরপর ২০১০ সালে নীতিমালা সংশোধন করে তৎকালীন এটিএম শামসুল হুদার নেতৃত্বাধীন কমিশন পর্যবেক্ষকদের নিবন্ধনের মেয়াদ বাড়িয়ে পাঁচ বছর করে। সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে নির্বাচন কমিশন ১৩৮টি নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থার প্রাথমিক তালিকা প্রকাশ করে। পরে ২০১৩ সালে নিবন্ধন নীতিমালা সংশোধন করে ১২০টি সংস্থাকে তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করে কমিশন।

যাদের পাঁচ বছর মেয়াদকাল ২০১৬ সালের জানুয়ারি শেষ হয়। কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ নেতৃত্বাধীন বিগত কমিশন নতুন করে নিবন্ধনের সুযোগ না দিয়ে ওই সংস্থাগুলোর নিবন্ধনের মেয়াদ এক বছর বাড়িয়ে দেয়। এর ফলে সংস্থাগুলো মেয়াদকাল ২০১৭ সালে জানুয়ারিতে শেষ হয়ে যায়। কেএম নূরুল হুদার নেতৃত্বে কমিশনও নতুন করে নিবন্ধনের জন্য আবেদন না চেয়ে ২৮ মার্চ আরো ছয়মাস সময় বাড়ায়।

আরও পড়ুন