কুমিল্লা
রবিবার,২৭ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ২ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

দুয়ারে গুনাহ মাফের মাস

সমাজে প্রচলিত আছে রহমত, মাগফিরত ও নাজাতের আলাদা আলাদা ১০ দিন নির্ধারিত। এই মর্মে একটি হাদিসও পাওয়া যায়। শুদ্ধতা নিয়ে হাদিস বিশেষজ্ঞরা কলম ধরেছেন। তবে কোরআন ও হাদিসে রমজান মাসের যত ফজিলত বর্ণিত হয়েছে তার আলোকে আমরা বলতে পারি রমজানের প্রতিটি দিনই রহমত, মাগফিরত, নাজাত ও বরকতের মাস।

এই মাস যে ক্ষমা প্রাপ্তির মাস, সে ব্যাপারে হাদিসের কিতাবগুলোতে ব্যাপক হাদিস পাওয়া যায়। তার মধ্য থেকে কয়েকটি আমরা উপস্থাপন করছি: আবু হুরাইয়া (রা.) থেকে বর্ণিত রাসূল (স.) বলেছেন,
‘যে ব্যক্তি রমজানে সিয়াম পালন করবে, ইমান ও হিসাবের সঙ্গে তার পূর্বের গুনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হবে।’
(বুখারি, কিতাবুল ইমান, হাদিস নং-৩৮)

তিনি আরও বলেন
‘যে ব্যক্তি রমজানে কিয়াম করলো রাতের বেলায় ইমান ও হিসাবের সাথে তার পূর্বের গুনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হবে।’
(বুখারি, কিতাবুল ইমান, হাদিস নম্বর-৩৭)

‘যে ব্যক্তি লাইলাতুল কদরে কিয়াম করলো ইমান ও হিসাবের সাথে তার পূর্বের গুনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হবে।’
(বুখারি, কিতাবুল ইমান, হাদিস নম্বর-৩৫)

তাছাড়া রমজান মাস এমন মাস যে মাসে জান্নাতের দরজা খুলে দেওয়া হয় এবং জাহান্নামের দরজা বন্ধ রাখা হয়। আর শয়তানকে শিকলাবদ্ধ করা হয়। এই মর্মে একটি হাদিস রয়েছে যা হয়রত আবু হুরাইয়া (রা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে সহীহ বুখারির ‘সৃষ্টির সূচনা অধ্যায়ে’ যেখানে রাসূল (সা.) বলেছেন:
‘যখন রমজান আসে তখন জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেওয়া হয়, জাহান্নামের দরজা বন্ধ করা হয় এবং শয়তানদের শিকলাবন্ধ করা হয়।’
সুতরাং, এই পর্যায়ে আমরা বলতে পারি এই মহান মাসে আমাদের উচিত অতীতের সব অপরাধের জন্য আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালার কাছে সর্বদা ক্ষমা প্রার্থনা করা। কারণ রমজান মাসে সিয়াম অবস্থায় যে দোয়া করা হয় তা মহান আল্লাহ অবশ্যই কবুল করবেন বলে রাসূল (সা.) আমাদের জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন