কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২০ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৪ কার্তিক, ১৪২৭ | ২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

মহাকাশ চর্চায় হাজার বছর আগেই এগিয়ে ছিল ভারত

স্বল্প খরচে মঙ্গল গ্রহে অভিযান কিংবা ফিরে আসতে সক্ষম রকেট মহাকাশে পাঠিয়ে গত কয়েক বছর যাবত ইসরো আলোচনায় রয়েছে। ভারতীয় এই মহাকাশ গবেষণা সংস্থাটি’র কাছে খোদ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও সহযোগিতা চেয়ে থাকে। বর্তমানে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ব্যয় কমাতে ইসরো’র রকেট ব্যবহার করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

যদিও পঞ্চাশের দশক থেকেই রুশ মহাকাশ গবেষণা সংস্থা রসকসমস’কে প্রতিদ্বন্দী হিসেবে দেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। স্নায়ু যুদ্ধের সময়ে মহাকাশ গবেষণা ছিল দু’দেশের অন্যতম প্রধান প্রতিযোগিতার বিষয়। সে সময় ইউরোপের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা কাজ চালিয়ে গেলেও ভারত বলতে গেলে আলোচনাতেই ছিল না।

ইসরো জন্ম ১৯৬৯ সালের ১৫ আগস্ট! কিন্তু বর্তমানে মহাকাশ গবেষণায় বিশ্বের অগ্রণী সংস্থাগুলির মধ্যে অন্যতম ইসরো। ২০০৮ সালে চাঁদে রকেট পাঠানোর মাত্র ৫ বছরের মাথায় পৃথিবীর প্রতিবেশী মঙ্গলে নভোযান পাঠায় ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থাটি। মঙ্গল অভিযানে বিশ্বের চতুর্থ সংস্থা হিসেবে আর এশিয়ার প্রথম সংস্থা হিসেবে ইসরো তালিকায় নাম লেখায়। বর্তমানে তারা মহাকাশে কেন্দ্র স্থাপণের পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে।

মঙ্গল গ্রহে অভিযানে মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা যে অর্থ ব্যয় করে, তার চাইতে অনেক অনেক কম খরচে তা শেষ করে সফল হয় ইসরো। বলা হয়, মঙ্গলের কিউরিসিটি রোভার পাঠাতে নাসা’র খরচ হয়েছিল ৬৭২ মিলিয়ন ডলার। অপর দিকে ইসরো’র খরচ হয় মাত্র ৭৪ মিলিয়ন ডলার।

সেখানেই শেষ নয়, মঙ্গল গ্রহে পৌঁছাতে গিয়েও নাসা’র চাইতে সময় কম নিয়ে টেক্কা দেয় ইসরো। ফলে মহাকাশ গবেষণা সংস্থাটির হঠাৎ এগিয়ে যাওয়া নিয়ে একটি মহল রহস্যের গন্ধ পায়।

এই গবেষণার উৎকর্ষতার ব্যাপারে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ কেন্দ্রীয় সরকারের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি আভাষ দিয়েছেন। বলেছেন, প্রাচীন ভারতের গবেষণালব্ধ জ্ঞান বর্তমানে যুগান্তকারী পরিবর্তন আনতে পারে। কথাটি যে মিথ্যে নয়, সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে ইসরো তা প্রমাণও করেছে!

মহাকাশ নিয়ে ভারতের প্রাচীন গবেষণার বিষয়ে যারা বিশ্বাস করেন তাদের দাবি হচ্ছে, ইসরো সম্ভবত প্রাচীন সেই সব জ্ঞানের সন্ধান পেয়েছে। যার কারণে বহু প্রাচীন কালের হারানো সব জ্ঞান চর্চার দুয়ার খুলে দিয়েছে।

তাদের দাবি, ভারতের প্রাচীন সভ্যতা ভিনগ্রহের উন্নত প্রাণীর দেখাও পেয়েছিল। হয়তো ভিনগ্রহীদের উন্নত প্রযুক্তি সম্পর্কেও জ্ঞান ছিল তাদের। যা হাজার হাজার বছর ধরে লোক চক্ষুর আড়ালেই ছিল। প্রাচীন ভারতের হারানো সে সব জ্ঞানই বর্তমানে প্রয়োগ হচ্ছে বলে বিশ্বাসীদের দাবি।

তাদের আরও দাবি, ধর্মগ্রন্থ ছাড়াও বিভিন্ন প্রাচীন পুঁথিতে হারানো সে সব জ্ঞান রক্ষিত রয়েছে। যার মধ্যে তিনটি বিষয় রয়েছে যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়।

এই বিশেষ ৩টি জ্ঞানের মধ্যে রয়েছে, মধ্যাকর্ষণকে কমিয়ে ভরশূণ্য করে ফেলা। প্রাচীন লিপি ‘ভাষ্করচরিতা’র দ্বিতীয় খণ্ডে মধ্যাকর্ষণ হ্রাস সম্পর্কে বলা হয়েছে। যা দেখে স্পষ্টই বোঝা যায়, সে যুগে মধ্যাকর্ষণ আর মহাকাশ নিয়ে কি পরিমাণ গবেষণা হয়েছিল।

নিউটন মধ্যাকর্ষণ তত্ত্ব আবিষ্কারের বহু আগেই ভাষ্করচরিতার দ্বিতীয় খণ্ডে বলা আছে, ব্রহ্মাণ্ডের ভাসমান নানা বস্তু পৃথিবীর আকর্ষণে অত্যন্ত দ্রুতবেগে পতিত হয়। পুরো ব্রহ্মাণ্ডই আদতে আকর্ষণ-বিকর্ষণের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত।

প্রাচীন ভারতের শিলালিপি ও পুঁথিতে দ্বিতীয় যে বিষয়টির উল্লেখ রয়েছে তা হচ্ছে, ভিমান। ধর্মগ্রন্থসহ একাধিক প্রাচীন লিপিতে উড়ন্ত যানের কথা বলা হয়েছে। কোথাও ভিমানা, কোথাও শাকুনা আবার কোথাও সুন্দারা নামে উড়ন্ত যানের বর্ণনা এসেছে। এছাড়া ধর্মগন্থসহ একাধিক লিপিতে উড়ন্ত যান তো বটেই উড়তে সক্ষম গোটা শহরের উল্লেখও পাওয়া যায়।

মহাভারতের যুগে মহাঋষি ভার্দেজ’এর বর্ণনায় রয়েছে, সেই আমলে কিছু বিমান মহাকাশেও এক নক্ষত্র থেকে অন্য নক্ষত্রে ভ্রমণ করতে পারতো। প্রাচীন যুগে ভাইমানিকা প্রকরানা তার পুঁথির বিভিন্ন স্থানে ভিনগ্রহের বুদ্ধিমান মানুষদের সঙ্গে পৃথিবী বাসির যোগাযোগ থাকার কথা উল্লেখ করেছেন।

তৃতীয়টি হচ্ছে, আজ থেকে প্রায় ২৬ হাজার বছর আগেই পৃথিবীর মানব সভ্যতা পরমাণু নিয়ে গবেষণা চালিয়েছিল। ভারতের প্রাচীন গ্রন্থে এমন ইঙ্গিত পাওয়া যায়। ব্রিটিশ রসায়ন বিজ্ঞানী জন ডেল্টন প্রাচীন লিপি পরীক্ষা করে সর্ব প্রথম এমন দাবি তোলেন। বলা হয়ে থাকে, খ্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতকেই প্রাচীন ভারতে পরমাণু চিন্তার পথিকৃত ছিলেন কণাদ মুনি। তার রসায়ন শ্রাস্ত্রে পরমাণু অস্ত্রের ভয়াবহ শক্তির কথা উল্লেখ ছিল।

তাছাড়া মহাভারত কিংবা রামায়নে ভয়াবহ যুদ্ধের ভেতরে পরমাণু বোমা ব্যবহারের বর্ণনা রয়েছে। সব মিলিয়ে ভারতের মহাকাশ সংস্থার বিজ্ঞানীরা নিকট ভবিষ্যতে আর কি কি চমক দেখাবেন, সে দিকেই তাকিয়ে রয়েছেন এলিয়েন বিশ্বাসীরা।

আরও পড়ুন