কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৯ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ কার্তিক, ১৪২৭ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

বাজারের পাস্তুরিত দুধ পরীক্ষার নির্দেশ হাইকোর্টের

বিশেষজ্ঞ কমিটি করে বাজারে প্রাপ্ত পাস্তুরিত তরল দুধ পরীক্ষা করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এক মাসের মধ্যে পরীক্ষা করে খাদ্য সচিব, স্বাস্থ্য সচিব ও বিএসটিআইটি কর্তৃপক্ষকে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

জনস্বার্থে দায়ের করা এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ সোমবার (২১ মে) রুলসহ এ আদেশ দেন।

১৬ মে বাণিজ্যিকভাবে পাস্তুরিত দুধ সম্পর্কে ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ডায়েরিয়াল ডিজিস রিসার্চ, বাংলাদেশ’র (আইসিডিডিআর,বি) একটি গবেষণা বাংলানিউজসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত ওইসব প্রতিবেদন যুক্ত করে হাইকোর্টে রিট করেন আইনজীবী মো. তানভীর আহমেদ।

বাজারের ৭৫ ভাগ পাস্তুরিত দুধ সরাসরি পানের অযোগ্য

শুনানিতে আইনজীবী ছিলেন আব্দুল্লাহ আবু সাঈদ, ব্যারিস্টার মহিউদ্দিন হানিফ (ফরহাদ) ও মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।

পরে তানভীর আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, বিশেষজ্ঞ কমিটি করে পাস্তুরিত তরল দুধ পরীক্ষার পর এক মাসের মধ্যে খাদ্য সচিব, স্বাস্থ্য সচিব ও বিএসটিআইটি কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এছাড়া আইসিডিডিআর,বি’র প্রকাশিত প্রতিবেদনও আদালতে দাখিল করতে বলা হয়েছে।

তিনি বলেন, আদালত রুলও জারি করেছেন। নিরাপদ পাস্তুরিত দুধের নিশ্চয়তা দিতে বিবাদীদের ব্যর্থতা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না- তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

চার সপ্তাহের মধ্যে খাদ্য সচিব, স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক, বিএসটিআই’র মহাপরিচালক, আইসিডিডিআর,বি-এর নির্বাহী পরিচালককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে পরবর্তী আদেশের জন্য ২৭ জুন দিন ঠিক করেছেন আদালত।

বাংলানিউজে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের দুগ্ধ খামারগুলো থেকে শুরু করে দোকান পর্যন্ত প্রতিটি পর্যায়ে দুধ ব্যাকটেরিয়া দ্বারা দূষিত। যা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী গ্রহণযোগ্য নয়।

এটি বিপজ্জনক হতে পারে যদি এই দুধ ‘কাঁচা’ (ফুটানো ছাড়া) অবস্থায় পান করা হয়। উদ্বেগের বিষয় হলো বাংলাদেশে কাঁচা দুধ পানের প্রবণতা দেখা যায়। বাজারের

আরও পড়ুন