কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২০ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৪ কার্তিক, ১৪২৭ | ২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

রমজান আত্মনিয়ন্ত্রণের মাস

পবিত্র রমজান হলো আত্মনিয়ন্ত্রণের মাস। এই মাসে মানুষ আত্মনিয়ন্ত্রণের প্রশিক্ষণ নিয়ে সারাবছর মহান আল্লাহর সন্তোষ অর্জনের চেষ্টা করে।

এ কথা বলছিলেন পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতার ঐতিহ্যবাহী নাখোদা মসজিদের ইমাম মোহাম্মদ শফিক কোয়াসমি। বাংলানিউজের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে কথা বলেন তিনি।

শুরুতেই তিনি বলেন, রমজান উপলক্ষে বাংলাদেশের মানুষের শান্তি, সমৃদ্ধি এবং সার্বিক উন্নতির কামনা করি। বাংলাদেশের উন্নতির খবর কিছু পাই কলকাতার সংবাদমাধ্যমে।

বিশ্বের প্রতিটি মানুষকে রমজানের শুভেচ্ছা জানিয়ে মোহাম্মদ শফিক কোয়াসমি বলেন, ইসলাম শান্তিতে বিশ্বাসী। সঠিকভাবে যারা ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী তারা হিংসাকে কোনোভাবেই বরদাশত করে না।

তিনি মনে করিয়ে দেন, রমজান আত্মনিয়ন্ত্রণের মাস। এই একমাস আত্মনিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ইসলাম ধর্মের মানুষরা সারাবছর আল্লাহর নির্দেশিত পথে জীবন-যাপনের প্রতিশ্রুতি গ্রহণ করেন।

‘যারা সাচ্চা মুসলমান তারা আল্লাহকে ভয় পায়। তারা অপরাধ করতে পারেন না। ইসলাম ধর্ম পাঁচটি বিষয়কে সুরক্ষা দেয়, এর মধ্যে মানুষের জীবন অন্যতম।’

নাখোদা মসজিদের ইমাম আশা প্রকাশ করেন, গোটা বিশ্ব থেকে সন্ত্রাসের কালো মেঘ একদিন সরে যাবে ও শান্তির বাতাবরণে সুখ এবং সমৃদ্ধি বয়ে আনবে।

‘কোরআন শরিফ আমাদের এই শিক্ষা দেয়। একদিন সবাইকে উনার (আল্লাহর) দরবারে যেতে হবে। সেই কথা মাথায় রেখে যেন মানুষ পথ চলে।’
নারীদের রোজা রাখা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি মনে করি নারীরা নিজের ঘর গৃহস্থ পরিবার সামলে রোজা রাখেন। তার সওয়াব অনেক বেশি।

শুধু পাঁচ ওয়াক্ত নামাজসহ রোজা রেখে দান খয়রাত করলে কোনও লাভ নেই। নিজেকেও পাল্টাতে হবে। শুধু নারী নয়, এটা পুরুষদের জন্যও একই বিধান।

‘বছরের এগারো মাস বেহিসাবি জীবন কাটিয়ে এক মাস রোজা রেখে সওয়াব মেলে না। সারাটা জীবন নিজেকে পরিষ্কার রাখা ও ত্যাগ, সংযম, ধৈর্য ধরতে শেখায় এই রমজান।’

আরও পড়ুন