কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২০ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৪ কার্তিক, ১৪২৭ | ২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

কুমিল্লায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত

কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পিয়ার ও শরিফ নামে ‘মাদক ব্যবসায়ী’ দুই যুবক নিহত হয়েছেন। গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছেন আরো এক ‘মাদক ব্যবসায়ী’। এছাড়াও ‘বন্দুকযুদ্ধে’ কোতয়ালী থানা পুলিশের এক পরিদর্শকসহ ৪জন আহত হন। সোমবার দিবাগত রাত পৌনে ১টায় সদর উপজেলার ভারত সীমান্তভর্তী অরণ্যপুর গ্রামের বড় দিঘীর পাড়ে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশের দাবি, বন্দুকযুদ্ধে নিহত দুই যুবকই চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তারা হলেন- কুমিল্লা সদরের শুভপুর এলাকার আলী মিয়ার ছেলে পেয়ার আলী (২৪) ও কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার চৌয়ারা-মহেশপুর গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে শরিফ (২৬)। তাদের লাশ কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তানভীর সালেহীন ইমন বলেন, ‘নিহত পিয়ারের বিরুদ্ধে ১৩টি এবং শরীফের বিরুদ্ধে ৫টি মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি রিভলবার, ২রাউন্ড গুলি, ৫০০বোতল ফেনসিডিল, ৫০ কেজি গাজা ও ১টি পাজেরো জিপ উদ্ধার করা হয়েছে।’

পুলিশ সূত্র জানায়, কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর সালেহীন ইমনের নেতৃত্বে গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ নাছির উদ্দিন মৃধা ও কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ আবু ছালাম মিয়াসহ সঙ্গিয় ফোর্স গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার বিকালে শহরের শুভপুর এলাকা থেকে একশ’ বোতল ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী পিয়ার আলীকে গ্রেপ্তার করে।

তাকে গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পারে একটি পাজেরো জিপে করে মাদকের একটি বড় চালান ঢাকায় পাঠানো হবে। সে তথ্য মতে পুলিশ অভিযান শুরু করে মঙ্গলবার রাত পৌনে ১টায় সদর উপজেলার ভারত সীমান্তবর্তী অরণ্যপুর গ্রামের বড়দিঘির পশ্চিমপাড়ে তল্লাশিকালে একটি পাজেরো গাড়ি দেখতে পায়।

পিয়ার আলীর সনাক্ত মতে পাজেরো গাড়িটি থামাতে সংকেত দিলে গাড়িতে থাকা মাদক ব্যবসায়ীরা গাড়ি থামিয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়তে থাকে। এ সময় পুলিশও আত্মরক্ষার্থে ৫২ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুঁড়ে। মাদক ব্যবসায়ীদের গুলিতে এ সময় ঘটনাস্থলে পিয়ার আলী ও শরীফসহ তিনজন গুলিবিদ্ধ হয়।

পুলিশ আহত তিনজনকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে তাদের ব্যবহৃত পাজেরো জিপ, একটি রিভলবার, দুই রাউন্ড গুলি, ৫ শ বোতল ফেনসিডিল ও ৫০ কেজি গাজা উদ্ধার করা হয়। আহতদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক পিয়ার আলী ও শরিফ নামে দুজনকে মৃত ঘোষণা করে।

অপর আহত গুলিবিদ্ধ চাঁদপুরের শাহরাস্তির আজিজ নগরের নুরুল ইসলামের ছেলে মো. সেলিমকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে বন্দুকযুদ্ধে আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন-কোতয়ালী মডেল থানার পরিদর্শক (ওসি-অপারেশন) রুপ কুমার সরকার, এসআই শাহ আলম, গোয়েন্দা পুলিশের এএসআই শাহীনূর ও কোতয়ালী মডেল থানার কনেস্টবল তানভির।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তানভীর সালেহীন ইমন জানিয়েছেন, নিহত পিয়ার আলীর বিরুদ্ধে মাদক নিয়ে বিরোধের জেরে একটি হত্যাসহ ১৩টি মামলা রয়েছে। আর শরিফের বিরুদ্ধে রয়েছে ৫টি মামলা।

কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সালাম মিয়া জানান, বিকালে গ্রেপ্তার মাদক ব্যবসায়ী পিয়ার আলীর কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানকালে সদর উপজেলার বাজগড্ডা (অরণ্যপুর) এলাকায় একটি পাজেরো জিপকে আসতে দেখে থামানোর সংকেত দেয়া হয়।

সংকেত পেয়ে জিপটিতে থাকা মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে থাকে। এসময় পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এতে তিন মাদক বিক্রেতা গুলিবিদ্ধ হন। তাদের উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দু’জনকে মৃত ঘোষণা করেন। গুলিবিদ্ধ অপর মাদক ব্যবসায়ীকে পুলিশ পাহারায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

আরও পড়ুন