কুমিল্লা
শনিবার,১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৩ আশ্বিন, ১৪২৮ | ১০ সফর, ১৪৪৩

ভারতীয় পোশাকের কাছে মারখাচ্ছে কুমিল্লার বুটিক শিল্প

পবিত্র ঈদ-উল ফিতরে ক্রেতাদের চাহিদা পূরণে রমজানের অন্তত এক মাস পূর্ব থেকেই কর্ম ব্যস্ততা ছিল চান্দিনা উপজেলার বুটিক পল্লী খ্যাত জোয়াগ এলাকায়। রমজানের মাঝামাঝি পর্যন্ত দিন-রাত নতুন কাপড়ে বুটিকের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতো উপজেলার জোয়াগ ইউনিয়নের ৩টি গ্রামের অন্তত দুই শতাধিক শ্রমিক।

কিন্তু বর্তমান বাজারে ভারতীয় পোশাকের সয়লাভে কদর কমেছে দেশীয় পণ্য বুটিক শিল্পে। যারফলে এখন আর সেই ব্যস্ততা নেই বুটিক পল্লীতে। ঈদ এসেছে কি-না ? তাও বুঝার কোন উপায় নেই। কারণ মহাজনরা এখন আর আগের মত অর্ডার দেন না। তাই তাদের কারাখানাগুলোতেও ঈদ মৌসুমের বাড়তি ব্যস্ততা নেই।

এখন সারা বছর একই ধাচে চলে এই শিল্পের কাজ। ঈদকে সামনে রেখে চান্দিনার বুটিক পল্লীর বর্তমান অবস্থান জানতে উপজেলার জোয়াগ ইউনিয়নের জোয়াগ, নোয়াগাঁও ধেরেরা গ্রামগুলোতে ঘুরে এ দৃশ্য দেখা যায়।

কি কারণে চাহিদার পতন জানেত চাইলে জোয়াগ গ্রামের বুটিক কারখানার মালিক খোকন জানান, বাজারে এখন ভারতীয় পোশাকে সয়লাভ। ভারতীয় বাহারি পোশাকের চাহিদার কাছে আমাদের দেশীয় হস্ত শিল্পের চাহিদা এখন ক্রেতাদের কাছে খুবই কম। মার্কেটের পোশাক ব্যবসায়ীরা এখন ভারত থেকে ইনপুট করে আনতে হয় না ওই দেশের পোশাক। কালো বাজারীরা দোকানে দোকানে গিয়ে দিয়ে আসেন ভারতীয় নতুন নতুন ডিজাইনের বাহারি পোশাক। যারফলে আমার মহাজনদের কাছে এখন আর আগের মত অর্ডার পড়ে না। তাই মহাজনরাও আমাদের সে পরিমান কাজ দিতে না পারায় আমাদের কারাখানাও এখন আর আগের মত ব্যস্ততা নেই। খোকন আরও জানান, মূলত আমাদের কারখানায় বেশির ভাগ অর্ডার পাই মেয়েদের থ্রীপিচ ও শাড়ি কাপড়ে বুটিক ও পাথর বসানোর কাজ। কিন্তু বাজারে বিপুল পরিমান ভারতীয় ওইসব রেডিমেট পোশাক সহজলভ্য হওয়ায় এখন এই হস্তশিল্পের চাহিদা খুবই কমে গেছে।

কারণ হিসেবে উল্লেখ করে খোকন আরও বলেন, রাজধানীর ইসলামপুর, গাউছিয়া ও নিউ মার্কেট এর মহাজনরা আমাদের কাপড় কিনে দেন। আমরা ওই কাপড়ে পুঁতি, পাথর ও বুটিকের কাজের বিভিন্ন ডিজাইন তৈরি করে দেখাই এবং সে মোতাবেক অর্ডার নেই।

এখানে প্রতিটি থ্রীপিচের গলার কাজে ৪শ থেকে ৫শত টাকা এবং সম্পূর্ণ থ্রীপিচের কাজে ৮শ থেকে ১২শ টাকার অর্ডার পাই। মহাজনরা ওই থ্রীপিচগুলো বাজারে বিক্রি করে ৮শ থেকে ২ হাজার টাকা। আর ক্রেতারা ওই থ্রীপিচ কিনছে ১ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকায়।

অপরদিকে বিভিন্ন ঈদ ও পূজা মৌসুমে ভারতে বিভিন্ন টিভি সিরিয়াল, অভিনেতা-অভিনেত্রীদের নামে নতুন নতুন ডিজাইনের পোশাক তৈরি করে বাজারে ছাড়েন। আর সেই পোশাকগুলোর অধিকাংশই কালো বাজারীদের হাত হয়ে পৌঁছে যায় রাজধানী ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলা-উপজেলার ছোট বড় সব সপিং কমপ্লেক্সগুলোতে।
যারফলে দেশীয় পন্যের চাহিদা ক্রমেই কমে যাচ্ছে।

তবে ঈদ বাজারে বেশি চাহিদা এবং আমাদেরও বাড়তি ব্যস্ততা না থাকায় বর্তমানে কাজ চলছে একেবারে স্বাভাবিক গতিতে। যারফলে এ ইউনিয়নের তিন গ্রামের প্রায় পাঁচশত পরিবার এ পেশায় এখনও এ পেশায় নিয়োজিত রয়েছে।

এব্যাপারে জোয়াগ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান মাসুদ জানান, এ ইউনিয়নের জোয়াগ গ্রাম থেকেই বুটিক শিল্পের প্রসার ঘটে। এ তিনটি গ্রামের প্রায় পাঁচশত পরিবার এ পেশায় নিয়োজিত থেকে অনেক নারী-পুরুষ স্বাবলম্বীও হয়েছেন। এখনও এ গ্রামের শিশু-কিশোর, যুবক-যুবতীরা এ পেশায় নিয়োজিত থাকায় এ গ্রামের অনৈতিক কর্মকান্ড নেই বললেও চলে। অ

বৈধ পথে আসা ভারতীয় পোশাক দেশের শপিং কমপ্লেক্সগুলো দখল না নিলে অবশ্যই এ শিল্পের বিকাশ ঘটবে এবং জোয়াগ ইউনিয়নসহ চান্দিনা উপজেলার স্বল্প শিক্ষিত ও নিরক্ষর যুবক-যুবতীদের কর্ম সংস্থান উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পেতো।

আরও পড়ুন