কুমিল্লা
শনিবার,১৯ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৫ আষাঢ়, ১৪২৮ | ৮ জিলকদ, ১৪৪২

চৌদ্দগ্রাম ও সদর দক্ষিণে বন্দুকযুদ্ধে আরো দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত

চৌদ্দগ্রাম ও সদর দক্ষিণে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আরো দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। বুধবার গভীর রাতে চৌদ্দগ্রামের আমানগন্ডায় এবং চৌয়ারায় এ দুটি ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন— কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের বাবুল মিয়া ওরফে লম্বা বাবুল ও সদর দক্ষিণ উপজেলার রাজিব।

বাবুল মিয়া চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বৈদ্দেরখিল গ্রামের মৃত হাফেজ আহাম্মদের ছেলে এবং রাজিব সদর দক্ষিণ উপজেলার কোটবাড়ি সংলগ্ন চাঙ্গিনী গ্রামের মৃত শাহ আলমের ছেলে।

পুলিশ জানায়, নিহত দুইজনই চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী এবং একাধিক মামলার আসামি।

চৌদ্দগ্রাম পুলিশ জানায়, মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে পৌর এলাকার রামরায় এলাকা থেকে তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী বাবুল মিয়া ওরফে লম্বা বাবুলকে আটক করা হয়। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানান, তার একটি মাদকের চালান উপজেলার আমানগন্ডা এলাকায় রয়েছে।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল ফয়সাল জানান, রাত ১টার দিকে মাদক ব্যবসায়ী বাবুল মিয়াকে নিয়ে আমানগন্ডার নতুন রাস্তার মাথার মন্তাজের বাগানে অভিযানকালে বাবুলের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়।

এ সময় পুলিশও আত্মরক্ষায় পাল্টা ২৩ রাউন্ড গুলি চালায়। উভয় পক্ষের গোলাগুলির এক পর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ী বাবুল ছাড়াও থানার এসআই মোজাহের, কনস্টেবল মিজান ও ফরিদ আহত হয়। আহত বাবুলকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওসি জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি এবং ২০০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি জানান, নিহত বাবুলের বিরুদ্ধে মাদক আইনে ৫টি মামলা রয়েছে।

অপরদিকে, কুমিল্লার সদর দক্ষিণ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নজরুল ইসলাম জানান, মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযান চলাকালে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে রাত সোয়া ২টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম পুরাতন ট্যাংক রোডের চৌয়ারা বাজার সংলগ্ন গোয়ালমথন এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় মাদক ব্যবসায়ীরা একটি প্রাইভেটকারে মাদকদ্রব্য নেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ী রাজিব (২৫) ও তার সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এ সময় আত্মরক্ষায় পুলিশও ১৭টি রাউন্ড গুলি চালায়।

এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হন মাদক ব্যবসায়ী রাজিব। পরে হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসক তকে মৃত ঘোষণা করেন।

জানা গেছে, রাত দুইটা পঞ্চান্ন মিনিটে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয় সদর দক্ষিণ উপজেলার মাদক ব্যবসায়ী রাজিবকে। তাকে নিয়ে আসেন সদর দক্ষিণ উপজেলার এসআই শাহিদুল ইসলাম ও সঙ্গীয় ফোর্স। ডাক্তার পরীক্ষা নিরীক্ষা করে নিশ্চিত হন রাজিবও মৃত।

উল্লেখ্য, মাদকবিরোধী অভিযানে এ পর্যন্ত কুমিল্লায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৫ জন নিহত হয়েছেন।

আরও পড়ুন