কুমিল্লা
সোমবার,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ৯ সফর, ১৪৪২

মুরাদনগরে ময়লা ভাগাড়: স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে শিক্ষার্থীসহ লক্ষাধিক মানুষ

মুরাদনগরে এক ময়লার ভাগাড়ের কারণে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে ১৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১১ হাজার শিক্ষার্থীসহ লক্ষাধিক পথচারি। উপজেলা সদরের গোলক সাহার বাড়ির পূর্ব পাশে মুরাদনগর-হোমনা সড়কের পাশে দীর্ঘদিন যাবৎ আবাসিক এলাকার শতাধিক বাসা বাড়ি থেকে ফেলানো ময়লায় যেমনি স্বাস্থ্য ঝুঁকি হয়েছে, তেমনি পথচারির রাস্তায় চলাচলে ভোগান্তি কারণ হয়েছে ওই ময়লার ভাগার। কিন্তু এ বিষয়ে সংবাদপত্রে লেখালেখির পরও নিরব রয়েছে উপজেলা প্রশাসন।

এটি উপজেলার প্রধান সড়ক হওয়ার কারণে এই রাস্তাটি মাড়িয়ে ১টি কলেজ, ২টি উচ্চ বিদ্যালয়, ১টি মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৬টি কিন্ডার গার্টেন ও ৫টি মাদ্রাসা এই ১৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১১ হাজার শিক্ষার্থী প্রতিষ্ঠানে আসা-যাওয়া করে। তাছাড়া উপজেলা সদরের আশপাশের ২১টি গ্রামের লক্ষাদিক পথচারী দৈনিক এই সড়কের উপর দিয়ে চলাফেরা করতে হয়।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ছেনু মিয়া উরফে ‘কাতলা’ উপজেলা সদরের আবাসিক এলাকার সকল ময়লা-আবর্জনা টাকার বিনিময়ে বাসা-বাড়ি থেকে ভ্যান গাড়ি দিয়ে মুরাদনগর-হোমনা সড়কের পাশে ফেলছে। সড়কের পাশে ময়লা-আবর্জনা কেন ফেলছেন এর জবাবে ছেনু মিয়া বলেন, ‘ময়লা ফালামু কই কারণ ময়লা ফালানের কোন নিদ্রিষ্ট জায়গা নাই তাই এখানে ফালাই। ময়লা ফালানের নিদ্রিষ্ট জায়গা হইলে এখানে আর ফালামু না’।

এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র মোঃ ইমরান বলেন, অল্প বাতাসে ও বৃষ্টিতে দুর্গন্ধযুক্ত আবর্জনা স্তুপ সড়কে ছড়িয়ে পড়ে। সড়কে চলাচল করতে নানা সমস্যা হয়। গাড়ি দিয়ে চলাচল করতে হলেও নাক-মুখ চেপে রাখতে হয়।

স্থানীয় একাধিক ব্যাক্তি বলেন, মুরাদনগর-হোমনা সড়কের উপরের ময়লা-আবর্জনার স্তুপের কাছে এলে নাক-মুখ চেপে হাটতে শুরু করি। দুর্গন্ধের কারণে নিঃশ্বাস নিতে পারি না, বমিতে নাড়িভুড়ি বের হয়ে আসার উপক্রম।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের ডাক্তার কামরুল বলছেন, এসব ময়লা-আবর্জনা হচ্ছে জীবাণুদের উৎপত্তির স্থান। যা থেকে বাতাসের মাধ্যমে শ্বাস কষ্ট, হাঁপানী, নিমুনিয়া, লিভার এফসেসে সমস্যা হওয়ার মতো ভয়ংকর জীবাণু সহজেই মানুষের ভিতরে প্রবেশ করতে পারে। এসব জীবাণু বাচ্চাদের পাতলা পায়খানা, কৃমি, ঘন ঘন আমাশয়, ফুসফুসসহ বিভিন্ন ধরনের সমস্যার কারণ হয়ে থাকে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিতু মরিয়ম নতুন কুমিল্লাকে বলেন, একটি নিদিষ্ট স্থানে গর্ত করে ময়লা-আবর্জনা ফেলানো উচিত। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়দের সাথে কথা বলবো।

আরও পড়ুন