কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৪ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ আষাঢ়, ১৪২৮ | ১৩ জিলকদ, ১৪৪২

দাউদকান্দি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৯ চিকিৎসকের বদলিতে দুর্ভোগ

দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ৯ চিকিৎসক অন্যত্র বদলি করে দেওয়া হয়েছে। গত ২০ মে এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ৫০ শয্যাবিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স্রের ১৩ জন চিকিৎসকের মধ্যে ৯ জনকে একই দিনে বদলি করা হয়।

এতে বাকি মাত্র ৪ জন চিকিৎসক দিয়ে ভর্তি থাকা ও বর্হিবিভাগে আসা শত শত রোগী ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। তাছাড়া লোকসংকটে চিকিৎসাসেবা ব্যাহত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালের দাপ্তরিক কার্যক্রমও বিঘিœত হচ্ছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ গত ২০ মে এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এখানকার ৯ চিকিৎসককে বদলির আদেশ দেন। এই ৯ চিকিৎসক হচ্ছেন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গাইনি বিশেষজ্ঞ ফারজানা ইসলাম, সার্জারি বিশেষজ্ঞ আবু কাউছার মোহাম্মদ নাছের মাহমুদ, মেডিকেল অফিসার মোঃ আল-আমিন মিয়াজী, গোলাম ফরহাদ জিলানী, মোয়াজ্জেম হোসেন সরকার, কাজী ফাইয়াদ মাহমুদ, মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন, মিয়া মমতাজ দৌলত আলম ও মহিউদ্দিন রুবেল।

কিন্তু বদলির বিপরীতে নতুন করে কোনো চিকিৎসক দেওয়া হয়নি। হাসপাতালটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে অবস্থিত হওয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় পড়া রোগীদের একটা বাড়তি চাপ আছে।

এছাড়া এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাশ্বর্বতী তিতাস, হোমনা, মেঘনা, মুরাদনগর , চান্দিনা, চাঁদপুরের কচুয়া, মতলব দক্ষিন ও মতলব উত্তর উপজেলার রোগীরাও চিকিৎসা নিতে আসেন। এ অবস্থায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বাকি মাত্র ৪ জন চিকিৎসক দিয়ে বিপুলসংখ্যক রোগীর চাপ সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে গত বৃহস্পতিবারও এ ৪জন চিকিৎসককে হাসপাতালের বর্হিবিভাগে ৩০০, জরুরি বিভাগে ৫০, ভর্তি থাকা ৫০ জন এবং প্রসূতিদের চিকিৎসা সেবা দিতে হিমশিম খেতে হয়। আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) মোঃ শাহিণূর আলম সুমন বলেন, গুরুত্বপূর্ণ এ হাসপাতালে মাত্র ৪ জন চিকিৎসকের পক্ষে চিকিৎসাসেবা দেওয়া অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ জালাল হোসেন বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেকটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে অবস্থিত হওয়ায় দাউদকান্দি ছাড়াও আশপাশের ৮টি উপজেলার মানুষ এখানে চিকিৎসা নিতে আসেন। একসঙ্গে একই দিনে ৯ জন চিকিৎসককে বদলি করায় চিকিৎসাসেবা দারুণভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

উল্লেখ্য ২০১৭ সালের আগষ্ট, সেপ্টেম্বর অক্টোবর মাসে দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চট্টগ্রাম বিভাগের সর্বোত্তম স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নির্বাচিত হয়েছেন। হাসপাতালটি বিভাগের প্রথম স্থান অর্জন করায় গত বছরের ১৮ জানুয়ারী চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ এ. এম. মজিবুল হক এ্যাওয়ার্ড প্রদান করেন।

কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মজিবুর রহমান ও দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ জালাল হোসেন এ এ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমকে ত্বরান্বিত এবং গুনগত মানকে অটুট রাখার লক্ষ্যে এইচএসএস প্রকল্পের আওতায় সর্বোত্তম ক্যাটাগরীতে চট্টগ্রাম বিভাগের প্রথম স্থান অর্জন করেন দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স।

দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদের রোগীদের সঠিক সেবা প্রদান ও বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণের কারনে রোগী বান্ধব হয়ে উঠে হাসপাতালটি। তারই প্রতিফলন হিসেবে স্বাস্থ্য সেবায় দেশ ও বিভাগীয় সেরা স্থান অর্জন করেন। হাসপাতালটি ২০১৮ সালের জানুয়ারী এবং ফেব্রুয়ারী মাসেও স্বাস্থ্য সেবায় দেশ সেরা প্রথম স্থান অর্জন করেন ।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গাইনি বিশেষজ্ঞ ফারজানা ইসলাম, সার্জারি বিশেষজ্ঞ আবু কাউছার মোহাম্মদ নাছের মাহমুদ ও মেডিকেল অফিসার মোঃ আল-আমিন মিয়াজীসহ অন্যন্য চিকিৎসকগণ আন্তরিকতার সাথে রোগীদের সঠিক সেবা প্রদান করে আসছেন। যার ফলে রোগী বান্ধব হয়ে উঠেছে হাসপাতালটি। তারা অন্যত্র চলে গেলে চিকিৎসাসেবা মারাত্মক ব্যহৃত হবে।

তারা দাবি জানান, দেশ সেরা এ হাসপাতালের চিকিৎকদের বদলি আদেশ প্রথ্যাহারের। কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশের্^ দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর ইউনিয়নের পেন্নাই গ্রামে ৬ একর ভূমির উপর অবস্থিত।

১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি অত্র এলাকার জনগোষ্ঠিকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে আসছে। বর্তমানে এখান থেকে রোগীদের বহিঃ বিভাগ, অন্তঃ বিভাগ এবং ২৪ ঘন্টা জরুরী বিভাগ সেবা চালু রয়েছে। এছাড়াও ২৪ ঘন্টা নরমাল ডেলিভারি চালু রয়েছে এবং প্রয়োজনে সিজারিয়ান ডেলিভারীর ব্যবস্থা রয়েছে।

গত ২০১০ সালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে আরও ১৯ শয্যার নতুন স্থাপনা নির্মান করা হয়। বর্তমানে এই হাসপাতালটি ৫০ শয্যার কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এই হাসপাতালটি বর্তমানে দাউদকান্দি উপজেলার জনগনের চিকিৎসা সেবা ছাড়াও পাশর্^বতী উপজেলা তিতাস, হোমনা, মেঘনা, মুরাদনগর , চান্দিনা, চাঁদপুরের কচুয়া, মতলব দক্ষিন ও মতলব উত্তর উপজেলার রোগীরাও চিকিৎসা নিতে আসেন।

আরও পড়ুন