কুমিল্লা
বুধবার,২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
১৫ ফাল্গুন, ১৪৩০ | ১৭ শাবান, ১৪৪৫
শিরোনাম:
অভি’কে সিইও হিসেবে অনুমোদন দিলো আইডিআরএ কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন

গোমতীর ভাঙনের কবলে শত শত ঘর-বাড়ি

কুমিল্লায় গেল কিছুদিনের টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে উজানে ফুলে উঠা গোমতী নদীর প্রবল স্রোতধারা নামতে শুরু করেছে। এতে করে জেলার দাউদকান্দি ও তিতাস উপজেলার বিভিন্ন স্থানে নদীর পাড়ে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ভয়াবহ ভাঙনে গোমতীর পেটে বিলীন হয়ে যাচ্ছে দুটি উপজেলার কয়েকটি গ্রামের শতাধিক বসতবাড়ি ও গাছ-গাছালি।

হুমকির মুখে রয়েছে নদী পাড়ের কবরস্থান, বিদ্যুতের খুঁটি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ নানা স্থাপনা। ভাঙনে দিশেহারা লোকজন আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। দ্রুত ভাঙন রোধ করা না গেলে কয়েক হাজার মানুষ গৃহহীন হয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, দাউদকান্দি উপজেলার গৌরীপুর ইউনিয়নের লক্ষিপুর গ্রামের লোকজন তাদের বসতঘর অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে।

এলাকাবাসী জানান, গত এক সপ্তাহ ধরে ভাঙনে প্রতিদিন বিলীন হচ্ছে নদীর পাড়। বিগত মৌসুমে গ্রামবাসীর উদ্যোগে বালির বস্তা ও বাশঁ দিয়ে বাঁধ নির্মাণ করে কিছুটা রক্ষা হলেও এ বছর বর্ষার শুরুতেই টানা বৃষ্টি ও উজানের ঢলের কারণে ভাঙন থামানো যাচ্ছে না।

ভাঙনের শিকার লক্ষিপুর গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত কয়েকজন জানান, গত দশ বছরে আবাদি জমিসহ অনেক বসতবাড়ি বিলীন হয়ে গেছে। নতুন করে তৈরি করা বাড়িও এখন গিলে খাচ্ছে গোমতী।

তারা আরো বলেন, নদী ভাঙনের ফলে বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়ে রয়েছে। যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর জেনারেল ম্যানেজার রফিকুল ইসলাম জানান, নদী ভাঙন এলাকায় কয়েকটি খুটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় নতুন লাইন নির্মাণের কাজ চলছে। ২/৩দিনের মধ্যে কাজ শেষ হয়ে যাবে।

অপরদিকে ভাঙনের একই চিত্র চোখে পড়েছে কুমিল্লার তিতাস উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ নারান্দিয়া, পশ্চিম নারান্দিয়া, মানিককান্দি, রসুলপুর, জিয়ারকান্দি গ্রামসহ লালপুর বাজার এলাকায়।

পানির প্রবল স্রোতধারা নামতে শুরু করায় এসব এলাকার গোমতী নদী তীরবর্তী বাড়ি ভাঙতে শুরু করেছে। গত কয়েক দিনের ভাঙনে এরই মধ্যে অর্ধশতাধিক পরিবারের বসতভিটাসহ গাছ-গাছালি বিলীন হয়ে গেছে। ঝুঁকিতে রয়েছে একটি মসজিদ ও প্রাইমারি স্কুলসহ আরো কয়েক শতাধিক পরিবার।

ভাঙনের শিকার শতাধিক পরিবার বসতভিটাহীন হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে।

রোববার সরেজমিনে পরিদর্শনে দেখা যায়, নদীপাড়ের নারান্দিয়া গ্রামটির অর্ধশতাধিক পরিবার গত কয়েকদিনের ভাঙনে তাদের সর্বস্ব হারিয়ে প্রতিবেশীদের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতবছরের বর্ষা থেকে এ বছর পর্যন্ত নদীর পশ্চিমপাড়ের প্রায় ১ কিলোমিটার অংশে বসবাসকারী তোফাজ্জল মাস্টার, হাকিম, মন্টু, জোহর আলী, মোকবুল, সাগর, সাদেক, রুহুল আমিন, ফজলু, তোতা মিয়া, মোঙ্গল মিয়া, ভুট্টু, করিম, মালেক, সাগর বাদশার পরিবারসহ শতাধিক পরিবার ভাঙনের শিকার হয়েছে। ঝুঁকিতে রয়েছে ওই গ্রামের ৩৩নং দক্ষিণ নারান্দিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মোল্লাবাড়ি জামে মসজিদসহ ৫০টির বেশি পরিবার।

অপরদিকে নদীর পূর্বপাড়ের সিদ্দিকুর রহমান, কবির হোসেন, জাকির হোসেন, মহসিন, রফিক, মাইনউদ্দিন সরকার, জালাল সরকার, মানিক সরকার, মো. আলী জিন্নাহ, মন্টু মিয়া, দুলাল মেম্বারসহ আরো অনেকগুলো পরিবার ভাঙনের শিকার হয়েছে এবং ভাঙনের ঝুঁকিতে রয়েছে ওই গ্রামের পার্শ্ববর্তী বেড়িবাঁধ।

নদীর পশ্চিম পাড়ের প্রবীণ মোতালেব মিয়া জানান, স্বাধীনতা পূর্ববর্তী সময় থেকে এখন পর্যন্ত এই গ্রামের প্রায় সহস্রাধিক পরিবার তাদের বসতভিটা হারিয়েছে। এর মধ্যে সর্বস্ব হারিয়ে প্রায় ৩ শতাধিক পরিবার অন্যত্র চলে গেছে।

তিনি বলেন, আমাদের পরিবারও ২বার ভাঙনের শিকার হয়ে পরে অন্যত্র চলে যায়।

নারান্দিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. মাসুম মোল্লা বলেন, জন্মের পর থেকেই দেখে আসছি এই গোমতী নদীর করাল গ্রাসে বিলীন হয়ে চলেছে ভিটেবাড়ি। এবারও এই গ্রামের নদীর দু’পাড়ের প্রায় ৫০টি পরিবারের ঘরবাড়ি নদীতে বিলীন হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার সালাহ উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, গত বছর এমপি সাহেব ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোমতীর ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতার আশ্বাসের প্রেক্ষিতে তাদের কথামতো আমি কুমিল্লা পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের তালিকা এবং ভাঙন প্রতিরোধে করণীয় উল্লেখ করে আবেদন করেছি। কিন্তু এক বছরেও কোনো ফল পাইনি।

জানতে চাইলে তিতাস উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ আলমগির হোসেন বলেন, আমরা নদী ভাঙন প্রতিরোধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছি। বিষয়টি হয়তো প্রসেসিংয়ে আছে।

আরও পড়ুন