কুমিল্লা
সোমবার,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ১০ সফর, ১৪৪২

ফেনীতে প্রথম চাকরি মেলা || ভাগ্য খুললো ১৩৯ জনের

Featured Video Play Icon

কারিগরি শিক্ষা নিয়ে ক্যারিয়ার গড়তে আগ্রহী তরুণ-তরুণীদের পদচারণায় মুখর এফ.সি.আই জব ফেয়ার-২০১৮ শেষ হয়েছে।

 

চাকরি মেলা থেকে সরাসরি চাকরি পেয়েছেন ১৩৯ জন এবং প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত হয়েছে ১৯ জন। মঙ্গলবার ফেনী কম্পিউটার ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আয়োজিত এ মেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের যুগ্ম সচিব ড. মোহাম্মদ ওমর ফারুক।

 

গ্রেট এন্ড স্মার্ট টেকনোলজী লিঃ ও ফেনী জব্স এর সার্বিক সহযোগিতায় স্কিলস ফর এমপ্লয়মেন্ট ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম’র অর্থায়নে ফেনী কম্পিউটার ইনস্টিটিউট এ মেলার আয়োজন করে।

 

যুগ্ম সচিব ড. ওমর ফারুক বলেন, “কারিগরি শিক্ষায় যারা শিক্ষিত হয়ে উঠেন তারা কখনেই বেকার থাকেন না। কারণ তারা তাদের কর্মক্ষেত্রে দুই হাতকেই কাজে লাগিয়ে থাকেন।”

 

বিদেশে শ্রম বাজারে কারিগরি শিক্ষার দাম বেশি উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, “এ শিক্ষায় শিক্ষিতরাই মূলত বিদেশে গিয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির উন্নয়ন ঘটাচ্ছেন। ফলে এ ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গুরুত্ব অপরিসীম।”

 

বিকালে মেলায় কর্মমুখী শিক্ষার গুরুত্ব শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

 

অনুষ্ঠানের সভাপতি ফেনী কম্পিউটার ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ মো. রেহান উদ্দিন বলেন, “দেশের মানুষকে বেকারমুক্ত রাখার উদ্দেশ্য নিয়ে ১২ বছর আগে এ প্রতিষ্ঠানের জন্ম। এ প্রতিষ্ঠান থেকে হাজার হাজার শিক্ষার্থী বের হয়ে নিজ কর্মক্ষেত্রে আজ প্রতিষ্ঠিত। এ গর্ব ফেনীবাসীর।”

 

২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলোদেশ গড়ার স্বপ্ন পূরণে ফেনী কম্পিউটার ইনস্টিটিউট কাজ করে যাচ্ছে বলে দাবি করেন রেহান উদ্দিন।

এ লক্ষ্য পূরণে আমরা চাকরি মেলার আয়োজন করি। সে ধারাবাহিকতায় আজকের এ আয়োজন। আশা করছি আগামীতে এ ধরনের আয়োজন ৬ মাস পর পর অব্যহত থাকবে।

 

 

মেলায় চাকরি প্রার্থী তরুণ-তরুণীদের সাক্ষাৎকার নিতে এসে জিএস টেকনোলজী লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেহরাব হোসেন মেহেদী জানান, ‘আজকে জাপান, আমেরিকা বয়সের সমস্যায় পড়েছে। তাদের ৫০ বছরের ওপরে গড় বয়স। অর্থাৎ বেশিরভাগ মানুষ কর্মক্ষমতা হারিয়েছে। আর বাংলাদেশ বিশ্বের একটি অন্যতম তরুণসমৃদ্ধ দেশ। এটাই হচ্ছে আমাদের সবচেয়ে বড় শক্তি।

 

বাংলাদেশে ৩৫ বছরের নিচে জনগোষ্ঠির সংখ্যা ৮০ শতাংশ। অর্থাৎ প্রায় ১১ কোটির ওপরে।’ ‘বাংলাদেশের মানুষের গড় বয়স মাত্র ২৪। এটা গোটা বিশ্বের মধ্যে আমরা এই তারুণ্যতা উপভোগ করছি। এটা ২০৪১ সাল পর্যন্ত থাকবে। আর সেই কথা মাথায় রেখেই তরুণ-তরুণীকে প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের তথ্য-প্রযুক্তিতে দক্ষ করে গড়ে তোলা প্রয়োজন।

 

 

অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন ফেনী জেলা প্রশাসক মনোজ কুমার রায়, ফেনী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুর রহমান বিকম, সিভিল সার্জন ডা. হাসান শাহরিয়ার কবির, ফেনী পলিটেকনিক ইনষ্টিটিউটের অধ্যক্ষ মাহিবুর রহমান, ফেনী টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল আউয়াল, জিএস টেকনোলজী লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেহরাব হোসেন মেহেদী প্রমুখ।

 

মেলায় বাংলাদেশের প্রথম সারির প্রতিষ্ঠান জিএস টেকনোলজীসহ ২১টি আইটিসহ বিভিন্ন কোম্পানির প্রতিনিধিরা উপস্থিত থেকে চাকরি প্রার্থী তরুণ-তরুণীদের সাক্ষাৎকার নেন এবং প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত করেন। চাকরি মেলায় যোগ দিতে গত ৬ দিনে ফেনী জেলা থেকে ৮ শত এর বেশি স্নাতক অনলাইনে নিবন্ধন করেন। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ১ হাজারের বেশি তরুণ-তরুণী চাকরি মেলায় আসেন ও সিভি জমাদেন।

 

প্রধান অতিথি সর্বাধিক চাকুরিদাতা প্রতিষ্ঠান গ্রেট এন্ড স্মার্ট টেকনোলজী লিঃ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মেহরাব হোসেন মেহেদীর হাতে বিশেষ সম্মাননা স্মারক তুলে দেন এবং চাকুরী প্রত্যাশিতদের হাতে নিয়োগপত্র তুলে দেন।

আরও পড়ুন