কুমিল্লা
রবিবার,১৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ৩ শাওয়াল, ১৪৪২

কুবিতে সাংবাদিকের উপর হামলার প্রতিবাদ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় সম্প্রতি এক সাংবাদিকের উপর ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের অতর্কিত হামলার ঘটনায় বিচারের দাবিতে প্রক্টরকে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী ঐ সাংবাদিক। এছাড়াও হামলাকারীদের বিচারের দাবিতে উপাচার্যকে ৪৮ ঘন্টার সময়সীমা বেঁধে দিয়ে স্মারকলিপি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির সাংবাদিক সমিতি।

সময়সীমার মধ্যে বিচার না হলে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে সাংবাদিক সমিতি। হামলার শিকার ‘দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ’র প্রতিনিধি সাব্রী সাবেরীন গালিব রবিবার বিকালে হাসপাতাল থেকে ফিরে প্রক্টরের বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন।

গত শনিবার পেশাগত কাজে তথ্য সংগ্রহ করতে কাজী নজরুল ইসলাম হলে গেলে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ সমর্থিত নেতাকর্মীরা ঐ সাংবাদিকের উপর হামলা করে।

ভুক্তভোগী সাংবাদিক লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, কাজী নজরুল ইসলাম হলে শাখা ছাত্রলীগের মধ্যে সংঘর্ষ হচ্ছে এমন খবরের ভিত্তিতে তিনি পেশাগত কাজে তথ্য সংগ্রহ করতে যান।

ঘটনাস্থলে পৌছে ছবি তুলতে গেলে শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বায়জিদ ইসলাম গল্পের নেতৃত্বে শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি দ্বীন ইসলাম লিখন এবং মুনতাসির আহমেদ হৃদয়সহ (ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কৃত) আরও ৭/৮জন তার উপর হামলা করে। সাংবাদিক পরিচয় প্রদান করার পরও তারা তাকে গালিগালাজ করে এবং বেধড়ক মারতে থাকে।

তখন হমলাকারীদের একজন বলে, ‘আরে সাংবাদিক হয়েছে তো কি হয়েছে। ভাই প্রোটেকশন দিব।’

তিনি এ হামলার পরে নিরপত্তাহীনতায় ভুগছেন এবং মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন উল্লেখ করে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন।

এদিকে এ ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচারের দাবিতে উপাচার্যকে ৪৮ ঘন্টার সময়সীমা বেঁধে দিয়ে স্মারকলিপি দিয়েছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি। সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান স্বাক্ষরিত এক স্মারকলিপিতে এ সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়।

আগামী মঙ্গলবার বিকাল ৪টার মধ্যে বিচার না করলে সাংবাদিক সমিতি কঠোর কর্মসূচিতে যাবে বলে স্মারকে উল্লেখ করা হয়।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, ‘স্মারকলিপির বিষয়ে আমি শুনেছি। সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ে এসেই বিষয়টি নিয়ে বসব।

উল্লেখ্য, শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা শেষে কাজী নজরুল ইসলাম হলে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ হচ্ছে এবং এক নেতার কক্ষ ভাংচুর করা হচ্ছে- এমন খবর পেয়ে পেশাগত কাজে তথ্য সংগ্রহে সেখানে গেলে শাখা ছাত্রলীগের তাকর্মীরা সাংবাদিক গালিবকে বেধড়ক মারধর করে এবং মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়ে যায়। পরে আহত অবস্থায় ঐ সাংবাদিককে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আরও পড়ুন