কুমিল্লা
বুধবার,১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

সৎমায়ের দেয়া আগুনে মৃত্যুর মুখে মিনোয়ারা

তুচ্ছ ঘটনায় সৎ মায়ের দেয়া আগুনে ঝলসে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন মিনোয়ারা বেগম (২৪)। তিনি জেলার মনোহরগঞ্জ উপজেলার মৈশাতুয়া ইউনিয়নের ইসলামপুর গুচ্ছ গ্রামের আবদুর রহিমের মেয়ে।

এ ঘটনায় বুধবার রাতে মনোহরগঞ্জ থানায় তার বড় বোন রহিমা বেগম বাদী হয়ে বাবা ও সৎ মায়ের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ৬ বছর আগে মিনোয়ারার মা মারা যাওয়ার পর পারুল বেগমকে বিয়ে করেন তার বাবা। বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই সৎ মায়ের সাথে প্রতিনিয়ত ঝগড়া-ঝাটি লেগে থাকতো। গত বুধবার বিকেলে বাড়ির বিদ্যুত বিল পরিশোধের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে সৎ মায়ের সাথে মিনোয়ারা কথা কাটাকাটি হয়।

প্রতিশোধ নিতে সৎ মা তাকে বেদম মারধর করে। এ সময় মিনোয়ারা আত্মচিৎকার শুরু করলে মুখে কামড় গুজে চুলার জ্বলন্ত লাকড়ির দিয়ে তার পেটে আগুন লাগিয়ে দেয়। এতে মিনোয়ার তল পেটের বেশকিছু অংশ ঝলসে যায়।

পার্শ্ববর্তী লোকজন তাকে উদ্ধার করে লাকসাম সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় সামাজিকভাবে বিচার না পেয়ে মিনোয়ারার বড় বোন রহিমা বেগম অবশেষে বুধবার রাতে সৎমা পারুল বেগম ও বাবা আবদুর রহিমকে অভিযুক্ত করে মনোহরগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

মিনোয়ারা বেগম নতুন কুমিল্লাকে বলেন, সৎ মা’র বিয়ের কিছুদিন পর থেকে তাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতে থাকে। সৎ মায়ের কু-পরামর্শে তারই পছন্দের ছেলের সাথে অল্প বয়সে বিয়ে দেয়া হয়। এক বছর পর তাদের ঘরে একটি পুত্র সন্তান জন্ম নেয়।

শ্বশুর বাড়ীতে অত্যাচার-অবিচার সইতে না পেরেমিনোয়ারা বাবার বাড়িতে ফিরে আসতে বাধ্য হই। এখানেও শান্তি নেই। শুরু হয় সৎ মায়ের অত্যাচার-নিপীড়ন। রবিবার বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের অজুহাতে আমাকে মারধর করে এবং মুখে কামড় দেয়।

উত্তেজিত হয়ে রান্নার চুলার জ্বলন্ত লাকড়ি দিয়ে আমার শরীরে আগুন লাগিয়ে দেয়। এতে আমার তলপেটসহ শরীরের অন্যান্য স্থান ঝলসে যায়। আমি প্রশাসনের নিকট এর সুষ্ঠু বিচার দাবী করছি’।

স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার মোস্তফা কামাল জানান, বিষয়টি সুরাহার জন্য সামাজিকভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে মনোহরগঞ্জ থানার পুলিশ কর্মকর্তা সফিকুর রহমান অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। বলে তিনি জানান।

আরও পড়ুন