কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৩ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৩ রমজান, ১৪৪২

কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কে গর্তের ফাঁদে গাড়ির চাকা

কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কটি যাত্রীদের জন্য বিষফোড়া হয়ে দাঁড়িয়েছে। সড়কে পিচঢালাই আর ইট-পাথর উঠে হাজার হাজার গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে এ সড়ক দিয়ে শম্বুকগতিতে হেলেদুলে গাড়ি চলে।

দুই ঘণ্টার পথ পাড়ি দিতে সময় লাগে চার ঘণ্টা। কখনো কখনো গভীর গর্তে চাকা আটকে গিয়ে বিকল হয়ে পড়ে গাড়ি। সব মিলিয়ে এ সড়কে চলতে গিয়ে চরম ভোগান্তিতে পড়ে যাত্রীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ সড়ক দিয়ে নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুরসহ দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিপুলসংখ্যক মানুষ প্রতিদিন ঢাকা, চট্টগ্রাম, চাঁদপুর, কুমিল্লা ও সিলেটে যাতায়াত করে। কিন্তু খানাখন্দ আর গর্তের এ সড়কে গাড়ি চালাতে গিয়ে বিপাকে পড়ে চালকরা।

নষ্ট হয় সময়, বাড়ে যানজট। এ ছাড়া প্রায়ই ঘটে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। এসব কারণে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা। এ ছাড়া চলমান বৃষ্টিপাত সড়কটিকে আরো ভয়ংকর করে তুলেছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, কুমিল্লা নগরী থেকে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ পর্যন্ত ৭২ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সড়ক বর্তমানে চলাচলের জন্য অযোগ্য। সড়কের প্রায় ৯০ শতাংশই ভাঙাচোরা। সড়ক দিয়ে গাড়ি চলে হেলেদুলে। এ সময় দেখলে মনে হবে যেন যাত্রীদের নিয়ে নাচানাচি করছে গাড়িগুলো। কুমিল্লার জাঙ্গালিয়া বাস টার্মিনাল থেকেই ভাঙা শুরু।

বিশেষ করে জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার পদুয়ার বাজার, লালমাই বাজার, লালমাই উপজেলার বাগমারা, হরিশ্চর, জয়নগর বাজার, লাকসাম জংশন এলাকা, লাকসাম পৌর শহরের বাইপাস এলাকা, ভাটিয়াভিটাসহ বেশ কয়েকটি স্থানের অবস্থা ভয়ংকর। এসব স্থানে গর্তের গভীরতা বেশি হওয়ায় প্রায়ই গাড়ির চাকা আটকে যায়। ভাঙাচোরা সড়কপথের কারণে লালমাই উপজেলার বাগমারা বাজার ও লাকসাম শহরের বাইপাসে যানজট লেগে থাকে।

সড়কে চলাচলকারী উপকূল বাস সার্ভিসের চালক মামুনুর রশিদ জানান, ভাঙাচোরা সড়ক হওয়ায় প্রতিদিন কোথাও না কোথাও দুর্ঘটনা ঘটছে। বড় বড় খাদে আটকে পড়ায় মাঝেমধ্যেই গাড়ি বিকল হয়ে যায়। অনেক সময় ভাঙা অংশ এলে যাত্রীরা ঝাঁকুনির ভয়ে বাস থেকে নেমে যেতে চায়।

কুমিল্লা বাস মালিক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কাজী মোতাহের হোসেন বলেন, ‘কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়ক বেহাল। আমাদের গাড়িগুলো গর্তে পড়ে ঘন ঘন বিকল হয়ে যাচ্ছে। ধীরগতিতে চলার কারণে সময় নষ্ট হচ্ছে। বিভিন্ন স্থানে যানজট থাকায় যাত্রীদের ভোগান্তি বাড়ছে।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী মোফাজ্জল হায়দার নতুন কুমিল্লাকে বলেন, ‘এরই মধ্যে আমরা সড়কটির সংস্কারকাজ শুরু করেছি। সড়কটিতে যানবাহনের চাপ অনেক বেশি থাকায় আমাদের রাতে কাজ করতে হচ্ছে।

সড়কটির কিছু অংশে চার লেনে উন্নীত করার কাজও শুরু হয়েছে। এ ছাড়া কিছু অংশে ভূমি অধিগ্রহণের কাজ চলছে। আগামী জুলাই-আগস্ট থেকে সড়কটির কাজ পুরোপুরিভাবে শুরু হবে।’

আরও পড়ুন