কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৪ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ আষাঢ়, ১৪২৮ | ১৩ জিলকদ, ১৪৪২

ফুটপাতের কাপড়ে নিম্মবিত্তের ঈদ

জ্যৈষ্ঠের খরতাপ সাথে ভ্যাপসা গরমে ওষ্ঠাগত প্রাণ। তার মাঝেই ফুটপাতজুড়ে হাজারো মানুষের সাথে পা চালিয়ে ক্লান্ত-শ্রান্ত বাবলু। চতুর্থ শ্রেণি পড়–য়া বাবলু মা আইরিনের সাথে এসেছে ঈদের শার্ট প্যান্ট কিনতে। বাবা ভ্যান চালক। আজকে খ্যাপ আছে। তাই সাথে আসতে পারেনি। বাবলু আর তার মা আইরিন বেগম ফুটপাতের কাপড়ের ভাঁজে তাদের ঈদ আনন্দ খুঁজছেন।

১৫ রমজানের পর থেকেই বাবলু আর আইরিনদের মত হাজারো নিম্নবিত্তরা কুমিল্লা নগরীর ফুটপাতে ভিড় করছেন। ফুটপাতের ওপরে বাঁশের চাটাইয়ে,বাঁশের তৈরি ডালায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে কিংবা স্তুপ করে রাখা কাপড়ের সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঈদের নতুন পোশাক কিনতে ব্যস্ত সময় পার করছেন নিম্ন আয়ের মানুষজন।

সোমবার নগরীর শাসনগাছা রেলওয়ের ওভারপাসের নিচে,কান্দিরপাড় মনোহরপুর,রাজগঞ্জ,রামঘাট এলাকায় ফুটপাত ঘুরে ও ফুটপাতের ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত দু’তিন দিন ধরে তাদের বেচাকেনা বেশ ভালোই চলছে। নিম্ন আয়ের মানুষরাই তাদের ক্রেতা। শুধু পোশাক-আশাকই নয়,দৈনন্দিন কাজে ব্যবহৃত তৈজসপত্রও বিক্রি করেন তারা।

নগরীর কান্দিরপাড় এলাকায় অভিজাত বিপণী কেন্দ্র সাত্তার খান কমপ্লক্সের পাশে মায়ের সাথে ফুটপাতে ঈদের নতুন জামা কিনতে এসেছে চতুর্থ শ্রেণি পড়–য়া বাবলু। রোদের সাথে ভ্যাপসা গরমে ঘেমে নেয়ে একাকার। কথা হয় বাবলু ও তার মা আইরিন বেগমের সাথে।

আইরিন বেগম নতুন কুমিল্লাকে জানান,তার স্বামী বাবুল মিয়া ভ্যান চালান। তাই আসতে পারেনি। স্বল্প আয়ের মানুষ। তাই ইচ্ছে থাকলেও পাশের অভিজাত বিপণিবিতানে যেতে পারেন না। আবার মৃদু হেসে বলে আরিন বেগম জানান, ‘আমডার আয় রোজগার কম,আমডার চাকরি নাই-বেতন বোনাসের লাইগ্গা চিন্তাই নাই। ১ হাজার টেহা আনছি পোলা আর মাইডারে দুইটা জামা কিইন্না দিলে আমাডারও ঈদ হইয়া যাইবো।’

বাবলু শার্ট কিনেছে এখন মায়ের কাছে বায়না ধরেছে নতুন প্যান্ট কেনার জন্য। তবে টাকার সংকুলান করতে পারছেন না বলে ফুটপাতের কাপড় বিক্রেতাদের সাথে দরদাম করে চলছেন আইরিন বেগম। পাশে ছেলে বাবলু অপলক চোখে তাকিয়ে আছে মা ও বিক্রেতার দিকে।

রাজগঞ্জ এলাকায় ফুটপাতে ছোটদের কাপড় বিক্রি করছেন আবুল কালাম। কথা হয় ফুটপাতের কাপড় বিক্রেতা আবুল কালামের সাথে। তিনি জানান, পনের রমজানের পর থেকে ভিড় বাড়ছে। বেচাকেনাও বেশ ভালো। নিম্ন আয়ের সাথে মধ্যবিত্তরাও আমাদের কাস্টমার যোগ করলেন আবুল কালাম। ২০ রমজানের পর থেকে ফুটপাতে বেচাকেনা আরো বাড়বে।

শাসনগাছা রেলওয়ে ওভারপাসের নিচের ফুটপাত থেকে নিজের জন্য একটি প্যান্ট ও শার্ট কিনলো ছাব্বির। ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা চালক। দিনে নয় রাতের বেলা রিকশা চালায় ছাব্বির। দিনের পুলিশের বাধা আছে। ছাব্বির জানায় দু’দিন আগে মায়ের জন্য একটা কাপড় আর ছোট বোনের জন্য একটি ফ্রক কিনেছে।

গতকাল কিনলো নিজের জন্য। আজ সন্ধ্যায় কুমিল্লা থেকে ঠাকুরগাঁওয়ে ছাব্বিরদের এলাকার দু’জন লোক বাড়ি যাবে। তাদের কাছে ঈদের জন্য কেনা মা ও দু’ভাই বোনের জন্য কেনা জামা-কাপড় বাড়িতে পাঠিয়ে দেবে। ফুটপাত থেকে কম মূল্য ঈদের নতুন জামা কাপড় কিনতে পারায় ছাব্বিরকে বেশ আনন্দিত দেখা গেলো।

এদিকে নগরীর চকবাজার এলাকায় ফুটপাত অবৈধ দখলমুক্ত করে পথচারীদের হাটাচলায় বেশ সুবিধা করে দেয়ার এ বছর চকবাজার ফুটপাতজুড়ে হকারদের হাঁকডাক নেই। তবুও একটু ভেতরে দু’চারটে বস্তায় জামা কাপড়ের পসরা সাজিয়ে বসতে দেখা গেলো ভ্রাম্যমাণ পোশাক ব্যবসায়ীদের।

আরও পড়ুন