কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৪ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ আষাঢ়, ১৪২৮ | ১৩ জিলকদ, ১৪৪২

তিতাসে বিএনপিতে ভাঙ্গনের সুর

বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য কুমিল্লার জনপ্রিয় নেতা ও সাবেক কৃষিমন্ত্রী মরহুম এমকে আনোয়ারের হাতে গড়া কুমিল্লা-২ আসনের একাংশ তিতাস উপজেলা বিএনপিতে ভাঙ্গনের সুর ভেজে উঠেছে।

বছরের প্রথম দিনে তিতাসে ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকির অনুষ্ঠানে হামলা মামলাই তার প্রমাণ বহন করে বলে স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলাবলি করছেন।

দলীয় একাধিক সূত্র জানায়, এখানে বিএনপিকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে একটি দুষ্টচক্র গভীর ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। ওই চক্রটি একটি ভিন্ন দলের সাথে আতাত করে বিএনপিকে বিভক্তি করার মিশনে নামে। চালিয়ে স্থানীয় বিএনপিকে ভাঙ্গার ব্যর্থ চেষ্টার সূচনা করে।

এসময় বিএনপির শত শত নেতাকর্মীদের তোপেরমুখে অবস্থা বেগতিক দেখে ষড়যন্ত্রের নেতৃত্বধানকারী একজন সাবেক বহিস্কৃত অপরজন দলে বিতর্কিত নেতা কোনমতে দৌড়ে পালিয়ে যায়। এই দুই ষড়যন্ত্রকারীর বিরুদ্ধে তৃণমূল নেতাকর্মীসহ উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের নেতারা ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। নেতৃবৃন্দরা বলছেন, তিতাসের দলীয় নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ এবং এখানকার বিএনপিসহ অঙ্গদলগুলো খুবই শক্তিশালী।

সুতরাং ষড়যন্ত্রকারীদের কোনো মিশনই সফল হবে না। তারা বলছেন, একটি মহল বিশেষ বিগত ১০বছর ধরেই দলকে ভাঙ্গার গভীর ষড়যন্ত্র করে আসছে । দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে ও দলে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টির পায়তারাসহ বিএনপির নীতিনির্ধারক এমকে আনোয়ারের বিরুদ্ধে অন্য উপজেলায় প্রতিবাদ সভা করায় ২০১০ সালের ৮ নভেম্বর সাদেক হোসেনকে দল থেকে বহিস্কার করেছে আর তারই অনসারী মোঃ মেহেদি হাসান সেলিম কৌশলে যুগ্ম সম্পাদকের পদটি বাগিয়ে নিয়ে দলে ঘাপটি মেরে নেতাকর্মীদের বিভক্ত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

এদিকে বর্ষীয়ান নেতা এমকে আনোয়ারের মৃত্যুর পর ওই দুই বিতর্কিত নেতা এলাকার কিছু বিচ্ছিন্ন লোকজন নিয়ে আবারো দল বিরোধী ষড়যন্ত্রের মিশনে নামে। এরই ধারবাহিকতা হিসেবে ১ জানয়ারী ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকির অনুষ্ঠানে হামলার চেষ্টা।

তিতাস বিএনপির সভাপতি এবং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ সালাউদ্দিন সরকার নতুন কুমিল্লাকে বলেন, দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিস্কৃত সাবেক নেতা সাদেক হোসেন ও জনগন বিচ্ছিন্ন দলে বিতর্কিত নেতা মেহেদি হাসান সেলিমের তিতাস বিএনপিতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা কোনদিন সফল হবে না। এ ব্যাপারে দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা সোচ্চার ও ঐক্যবদ্ধ।

সহ-সভাপতি আলী হোসেন মোল্লা নতুন কুমিল্লাকে বলেন, যে কোন মূল্যে ওই দু’জন দল বিরোধী ষড়যন্ত্রকারীকে প্রতিহত করা হবে। আর সেলিমের ব্যাপারে দলীয় ফোরামে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সহ-সভাপতি আক্তারুজামান আক্তার বলেন, সাত বছর আগে বহিস্কার হওয়া নেতা আরেকটি দলের এজেন্ড বাস্তবায়ন করতে বিএনপির বিরুদ্ধে সড়যন্ত্র করবে এটাই স্বাভাবিক।

সাধারন সম্পাদক মোঃ ওসমান গনি ভূইয়া নতুন কুমিল্লাকে বলেন, দলে ঘাপটি মেরে থেকে মেহেদি হাসান সেলিম দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করছে, দলের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে, এটা দলীয় গঠনতন্ত্র বিরোধী। গঠনতন্ত্র মোতাবেক সেলিমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাংগঠনিক সম্পাদক কাজি কবির হোসেন সেন্টু নতুন কুমিল্লাকে বলেন, সেলিমকে দল থেকে বহিস্কার জুরুরী হয়ে পড়েছে। সাংগঠনিক সম্পাদক জহিরুল ইসলাম জাদু বলেন, সেলিম অন্য একটি দলের এজেন্ডা বাস্তবায়নে নেমেছে সুতরাং তাকে আর দলে রাখার যুক্তি দেখছি না।

ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি মনির হোসেন ভূইয়া নতুন কুমিল্লাকে বলেন, ষড়যন্ত্রকারীর একজন দল থেকে বহু আগেই বহিস্কার আরেকজন দলে বিতর্কিত ও এলাকায জনবিচ্ছন্ন খামোখা এদের নিয়ে ভেবে সময় নষ্ট করার দরকার আছে বরে মনে করি না।

আরও পড়ুন