কুমিল্লা
রবিবার,২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১২ আশ্বিন, ১৪২৭ | ৯ সফর, ১৪৪২

কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে ঈদে দূর্ভোগের আশঙ্কা

কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের বেহাল দশা। ছবি: নতুন কুমিল্লা

মরণফাঁদ খ্যাত কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের ৪০ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে প্রায় ৩০ কিলোমিটার সড়কেরই এখন বেহাল দশা। দেশের গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কে প্রতিদিন সিলেট থেকে পাথরের গাড়ি, রাঙামাটি পার্বত্য থেকে গাছের গাড়ি, চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে অনেক পণ্যবাহী যানবাহন এ আঞ্চলিক সড়ক দিয়ে আশেপাশের জেলাগুলোতে চলাচল করে।

এছাড়া কুমিল্লা-সিলেট চট্টগ্রাম, বি-বাড়িয়া, নবীনগর, ভৈরব, কিশোরগঞ্জ, নরসিংদীসহ জেলা ও আঞ্চলিক সড়কগুলোয় ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন যাত্রীবাহী দূরপাল্লার বাস মাইক্রোবাস প্রাইভেট কারসহ বিভিন্ন যানবাহন চলাচল করে। কিন্তু ওই সড়কে যান চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ায় প্রতিদিন ঘটছে দুর্ঘটনা।

এতে আসন্ন ঈদে ঘরমুখো মানুষের দুভোর্গের আংশকা বাড়ছেই। ভোগান্তির শিকার যাত্রীরা বলছে, বেহাল সড়ক হওয়ায় প্রতিদিনই আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে যানজট, সড়কের মাঝেই যন্ত্রপাতি বিকল হয়ে পড়ে থাকে বিভিন্ন যানবাহন, এতে লম্বা যানজট দেখা দেয়, দীর্ঘ সময় বসে থাকতে হয় বাসে। এই মহাশঙ্কা ঈদের আগে আরও প্রকট আকার হবে বলে মনে করছেন অনেকেই।

চালকরা বলছেন, ঈদ যাত্রায় ভোগান্তির অন্যতম কারণ বেহাল সড়কে ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করা। বাস, ট্রাক বা মিনি বাসের বিভিন্ন ইঞ্জিন বিকল ও বিকট শব্দে চাকার হাওয়া পাংচার হয়ে পড়ে সড়কের মধ্যেই, বিকল ইঞ্জিন লাগানো বা সড়ক থেকে সাইটে সরানো অনেক সময় লেগে যায় এতে সড়কের দুই পাশেই প্রকট আকার ধারণ করে যানজট।

এসব নানা কারণে দিনের পর দিন বেড়েই চলেছে দুর্ঘটনা, হতাহত হচ্ছে পথচারী ও যাত্রীরা। কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের সফুরা থেকে কোম্পানীগঞ্জ গোমতী ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ১৩ কি:মি সড়ক যেন দুর্ভোগের নাম।

অভিযোগ রয়েছে, নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করে দায়সারা ভাবে সংস্কারের বছর না যেতেই সড়কগুলো খানাখন্দে ভরে যায়। বৃষ্টির পানিতে গর্তগুলো জনদুর্ভোগ বাড়িয়েছে দ্বিগুণ। এ সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল তো দূরের কথা, হেঁটে চলাও দায়।

দেবিদ্বার পৌরসভার ভিরাল্লা, বারেরা, নিউমার্কেট বাসস্ট্যান্ড, পোস্ট অফিস সংলগ্ন, রেয়াজ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান ফটক, দেবিদ্বার থানা সংলগ্ন ও মহিলা কলেজ হয়ে ভিংলাবাড়ি মির্জানগর পর্যন্ত এখন মরণফাঁদ।

স্থানীয়দের অভিযোগ কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের এখন করুণদশা। নিম্নমানের কাজ ও সাম্প্রতিক বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্থ সড়ক নির্মাণ বা মেরামতের কোনো উদ্যোগও দৃশ্যমান নয়। খানাখন্দে ভরা এসব রাস্তায় এখন যানবাহন চলাচল কঠিন হয়ে পড়েছে। সেই সঙ্গে আছে তীব্র যানজট। এসব রাস্তায় চলাচলকারীদের ভোগান্তির শেষ নেই।

এদিকে, নিউমার্কেটের পূর্বপাশের যাত্রী ছাউনির সামনের অংশে পঁচা ময়লা-আবর্জনা স্তুপের দুর্গন্ধে নাকে রুমাল দিয়ে চলে পথচারীরা। পানি নিষ্কাশনের ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় সারা বছরেই লেগে থাকে ময়লা আবর্জনা ও র্দুগন্ধ পানি। দেখলে মনে হয় যেন এটি মাটির রাস্তা, পাকা সড়কের কোন অস্তিত্বই নেই।

রাস্তার দুই পাশে পিচ উঠে সড়কে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত, যা অল্প বৃষ্টিতেই তলিয়ে যায়। উপজেলা পরিষদ, এসএ সরকারি কলেজ, সরকারি হসপিটালসহ বিভিন্ন ব্যাংক ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে হয় এ সড়ক দিয়েই। কাঁদা পানির মধ্য দিয়েই পথচারী, শিক্ষার্থীরা এ সড়ক দিয়ে চলাচল করেন।

সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে দেবিদ্বার রেয়াজউদ্দিন মডেল স্কুলের প্রধান ফটকের সামনের অংশটি। বেশির ভাগ স্থানেই কার্পেটিং উঠে গেছে। আবার কোথাও কোথায়ও ইট উঠে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। শতাধিক খানাখন্দে ভরা এ সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করছে অসংখ্য যানবাহন, মানুষ ও শিক্ষার্থী।

এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাইফুদ্দিন নতুন
কুমিল্লাকে জানান, দেবিদ্বার অঞ্চলের সড়কটি খুব ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। সংস্কারের জন্য বারবার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে কিন্তু বৃষ্টির কারণে কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে।

আরও পড়ুন