কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২০ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৪ কার্তিক, ১৪২৭ | ২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

এসএসসির পরই সেনাবাহিনীতে চাকরি !

সম্প্রতি সৈনিক পদে লোক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। আবেদন করা যাবে এসএসসি পাসের পরই। চাকরির পাশাপাশি করা যাবে পড়াশোনাও। আবেদনের শেষ তারিখ ৩০ জুন। 

সৈনিক পদে সাধারণ, কারিগরি ও চালক ট্রেডে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এসএসসি পাস হলেই আবেদন করা যাবে। বিজ্ঞপ্তিটি ছাপা হয়েছে ৩১ মের বাংলাদেশ প্রতিদিনে। পাওয়া যাবে www.army.mil.bd ও joinbangladesharmy.army.mil.bd ওয়েবসাইটে।

আবেদনের যোগ্যতা :

সৈনিক পদে সাধারণ ট্রেডে (জিডি) নারী ও পুরুষ উভয় প্রার্থী এবং কারিগরি ট্রেডে শুধু পুরুষ প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবে। ২৭ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে বয়স সাধারণ ট্রেডে আবেদনকারীদের ক্ষেত্রে ১৭ থেকে ২০ বছর, কারিগরি ট্রেডে ১৭ থেকে ২১ বছর এবং ড্রাইভার পেশার ক্ষেত্রে আবেদনের বয়সসীমা ১৮ থেকে ২১ বছর। সাধারণ ট্রেডে আবেদনকারীদের কমপক্ষে জিপিএ ৩.০০ পেয়ে এসএসসি বা সমমান (মাদরাসা, কারিগরি, উন্মুক্ত) পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। মহিলা সৈনিক পদে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে উত্তীর্ণরা অগ্রাধিকার পাবে।

কারিগরি ট্রেডে আবেদনের জন্য ভোকেশনাল প্রতিষ্ঠান থেকে সংশ্লিষ্ট কারিগরি বিষয়সহ কমপক্ষে জিপিএ ৩.০০ পেতে হবে। এসএসসি বা সমমান (মাদরাসা, কারিগরি, উন্মুক্ত) পরীক্ষা হলে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ ৩.০০ পেয়ে উত্তীর্ণ এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ড অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট ট্রেড কোর্সে যোগ্য হতে হবে।

চালক পেশার ক্ষেত্রে এসএসসি বা সমমান (মাদরাসা, কারিগরি, উন্মুক্ত) পরীক্ষায় যেকোনো বিভাগ থেকে জিপিএ ৩.০০ পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে। আবেদনকারীর বিআরটিএ অনুমোদিত প্রতিষ্ঠান থেকে ড্রাইভিং কাম অটোমেকানিক্স কোর্সে যোগ্য এবং বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকতে হবে। তবে টিটিটিআই থেকে ড্রাইভিং প্রশিক্ষণের সনদ থাকলে যোগ্য বিবেচিত হবে।

শারীরিক যোগ্যতা :

পুরুষ প্রার্থীদের ন্যূনতম উচ্চতা ১.৬৮ মিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি), ওজন ৪৯.৯০ কেজি (১১০ পাউন্ড), বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্থায় ০.৭৬ মিটার (৩০ ইঞ্চি) এবং প্রসারিত অবস্থায় ০.৮১ মিটার (৩২ ইঞ্চি) হতে হবে।

নারী প্রার্থীদের ক্ষেত্রে উচ্চতা ১.৬০ মিটার (৫ ফুট ৩ ইঞ্চি), ওজন ৪৭ কেজি (১০৪ পাউন্ড), বুকের মাপ স্বাভাবিক অবস্থায় ০.৭১ মিটার (২৮ ইঞ্চি) এবং প্রসারিত অবস্থায় ০.৭৬ মিটার (৩০ ইঞ্চি) হতে হবে। ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী ও সম্প্রদায়ের পুরুষ প্রার্থীদের উচ্চতা ১.৬৩ মিটার (৫ ফুট ৪ ইঞ্চি), নারী প্রার্থীদের ১.৫৬ মিটার (৫ ফুট ১ ইঞ্চি) হতে হবে। প্রার্থীদের অবিবাহিত হতে হবে এবং সাঁতার জানতে হবে।

আবেদনের নিয়ম :

১ জুন শুরু হয়ে

উদাহরণ : SAINIK DHA 236098 2018 34

যোগ্য প্রার্থীদের ফিরতি এসএমএসে পিন নম্বর পাঠানো হবে। SAINIK <space> YES <space> wcb bÁ¼i <space> মোবাইল নম্বর লিখে আবার ১৬২২২ নম্বরে দ্বিতীয় এসএমএস পাঠাতে হবে।

উদাহরণ : SAINIK YES 894098 01712…..

মহিলা প্রার্থীদের SAINIK-এর পরিবর্তে FSAINIK লিখে এসএমএস পাঠাতে হবে। পরীক্ষা ফি বাবদ ২০০ টাকা কেটে পরবর্তী এসএমএসে ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড জানিয়ে দেওয়া হবে। দ্বিতীয় এসএমএস পাঠানোর আগে মোবাইলে ২০০ টাকার বেশি থাকতে হবে। প্রাপ্ত ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে sainik.teletalk.com.bd ওয়েবসাইটে লগইন করে অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। আবেদনের সময় ৩০০ বাই ৩০০ পিক্সেল এবং সর্বোচ্চ ১০০ কিলোবাইট আকারের রঙিন ছবি আপলোড করতে হবে। আবেদনপত্র অনলাইনে সাবমিট করার সঙ্গে সঙ্গে প্রবেশপত্র পাওয়া যাবে। প্রবেশপত্র ডাউনলোড বা প্রিন্ট করে সংরক্ষণ করতে হবে। বিএনসিসি, সেনাসন্তান ও কারিগরি ট্রেডে ভর্তি হতে চাইলে একই নিয়মে এসএমএসের মাধ্যমে ভর্তি প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে হবে। এসএমএস ও অনলাইন আবেদনসংক্রান্ত যেকোনো তথ্যের জন্য টেলিটক মোবাইল থেকে ১২১ নম্বরে কল করা যাবে।

বাছাইপ্রক্রিয়া :

২২ জুলাই থেকে ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে (শুক্রবার, শনিবার ও সরকারি ছুটির দিন ব্যতীত) বাছাইপ্রক্রিয়া হবে বিভিন্ন সেনানিবাসে। বিএনসিসি ক্যাডেটদের ৩১ আগস্টের মধ্যে স্ব-স্ব রেজিমেন্টের মাধ্যমে ভর্তি প্রক্রিয়া ও ভর্তির তারিখ জানতে হবে। সেনাসন্তান ও কারিগরি ট্রেডে নির্ধারিত আর্মস/সার্ভিসেস সেন্টার থেকে ৩ থেকে ৬ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ফরম সংগ্রহ করতে হবে। ভর্তি করা হবে ৩ থেকে ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত। ভর্তি করা হবে ৯ থেকে ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত। জেলা কোটা অনুযায়ী ভর্তি করা হবে। এক জেলার লোক অন্য জেলায় ভর্তি হতে পারবে না। তবে সেনাসদস্যের সন্তান, কারিগরি ও টিটিটিআইয়ের প্রার্থীদের ক্ষেত্রে কোনো জেলা কোটা প্রযোজ্য হবে না। ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ও স্থান পরীক্ষার আগে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেওয়া হবে।

সেনাবাহিনীর পার্সোনাল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন পরিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সৈনিক পদে আবেদনকারীদের কয়েক ধাপে বাছাই করা হয়। প্রথমে স্বাস্থ্য পরীক্ষা নেওয়া হয়। স্বাস্থ্য পরীক্ষায় উচ্চতা, ওজন, বুকের মাপ ঠিক আছে কি না দেখা হয়। বডি ফিটনেস না থাকলে প্রাথমিক ধাপেই বাদ পড়তে হবে। তাই পরীক্ষার আগে বিজ্ঞপ্তির বর্ণনা অনুযায়ী নিজেকে তৈরি করে নিতে হবে। উচ্চতা অনুযায়ী ওজন ঠিক করতে হবে, শারীরিক ত্রুটি থাকলে চিকিত্সকের পরামর্শ অনুযায়ী সারিয়ে নিতে হবে। প্রাথমিক স্বাস্থ্য ও সাঁতার পরীক্ষার জন্য পুরুষ প্রার্থীরা সেন্ডু গেঞ্জি, শর্ট প্যান্ট, ট্রাউজার এবং নারীরা প্রয়োজনীয় পোশাক সঙ্গে রাখতে পারেন।

লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা :

লিখিত পরীক্ষায় বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণ জ্ঞান এবং বুদ্ধিমত্তা থেকে ৫০ নম্বরের প্রশ্ন আসে। সাধারণত ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির সিলেবাস থেকে প্রশ্ন করা হয়। এসব শ্রেণির পাঠ্য বইয়ে দখল থাকলে লিখিত পরীক্ষায় ভালো করা যাবে। সাধারণ জ্ঞানের জন্য সাম্প্রতিক বিষয়াবলির পাশাপাশি সেনাবাহিনী সম্পর্কে জ্ঞান রাখতে হবে। বাজারে সাধারণ জ্ঞানের অনেক বই পাওয়া যায়। এসব বইয়ের পাশাপাশি নিয়মিত খবরের কাগজ পড়তে হবে। কাজে দেবে সাধারণ জ্ঞানবিষয়ক মাসিক। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মৌখিক পরীক্ষায় মানসিক দক্ষতা, মূল্যবোধ ও সহনশীলতা যাচাইয়ের জন্য প্রশ্ন করা হয়। লিখিত পরীক্ষার জন্য কলম, পেনসিল, স্কেল ও ক্লিপবোর্ড সঙ্গে নিতে হবে।

সঙ্গে নিতে হবে :

♦ শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট বা মার্কশিটের মূল কপি। ফটোকপি হলে প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা কর্তৃক সত্যায়িত হতে হবে। পরবর্তী সময়ে মূল কপি দেখাতে হবে।

♦ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানের দেওয়া স্থায়ী ঠিকানা ও জন্ম তারিখ উল্লিখিত মূল প্রশংসাপত্র।

♦ কারিগরি পদে আবেদনকারীদের সরকার অনুমোদিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কারিগরি দক্ষতার মূল সনদপত্র।

♦ ইউপি চেয়ারম্যান বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সত্যায়িত অভিভাবকের সম্মতিসূচক সনদ।

♦ এসএসসি বা এইচএসসি পরীক্ষার প্রবেশপত্র।

♦ ইউপি চেয়ারম্যান বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দেওয়া নাগরিকত্ব ও চারিত্রিক সনদের মূল কপি।

♦ প্রথম শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তা সত্যায়িত সদ্য তোলা পাসপোর্ট আকারের চার কপি ও স্ট্যাম্প আকারের দুই কপি ছবি।

♦ সাঁতারের জন্য প্রয়োজনীয় পোশাক।

আরও পড়ুন