কুমিল্লা
সোমবার,১৯ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৬ বৈশাখ, ১৪২৮ | ৬ রমজান, ১৪৪২

ভোট ভাবনায় আকার ছাঁটলেন অর্থমন্ত্রী

আবুল মাল আবদুল মুহিত। ফাইল ছবি

চলতি অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার সময়ই আগামী অর্থবছরের জন্য পাঁচ লাখ কোটি টাকার বাজেটের আকার ঠিক করে রেখেছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। কিন্তু নতুন বাজেট ঘোষণার কয়েক মাস পরই জাতীয় নির্বাচন থাকায় ভোটারদের ওপর প্রত্যক্ষভাবে বাড়তি করের চাপ সৃষ্টি করা থেকে বিরত থাকছেন তিনি।

অর্থমন্ত্রী তাই পাঁচ লাখ কোটি টাকার পরিকল্পনা দফায় দফায় ছোট করে শেষ পর্যন্ত চার লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট প্রণয়ন করছেন। আগামী বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ’ শিরোনামে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব পেশ করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেন, নির্বাচনের কয়েক মাস আগে জনগণের ওপর বাড়তি কর, মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) আরোপ করতে রাজি নয় সরকার। কিছু বিলাস পণ্যে ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক বাড়ানো হচ্ছে। ভ্যাটের স্তর ৯টি থেকে পাঁচটিতে নামিয়ে আনা হচ্ছে বাজেট প্রস্তাবে। এতে কিছু পণ্য ও সেবার ক্ষেত্রে সামান্য হারে ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক বাড়ছে।

কিন্তু ব্যক্তিশ্রেণির কর ও করপোরেট প্রতিষ্ঠানের ওপর বাড়তি কোনো করারোপ করা হচ্ছে না। এ কারণে এক মাস আগে চার লাখ ৬৮ হাজার ২০৫ কোটি টাকার যে বাজেট কাঠামো তৈরি করেছিলেন অর্থমন্ত্রী, চূড়ান্ত পর্যায়ে এসে সেখান থেকেও তিন হাজার ৬৩২ কোটি টাকা কমাতে হয়েছে তাঁকে।

নতুন বাজেটের আকার চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের ৬৪ হাজার ৩০৭ কোটি টাকা বেশি। আর চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটের তুলনায় এর আকার ৯৩ হাজার ৭৮ কোটি টাকা বেশি। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটের আকার চার লাখ ২৬৬ কোটি টাকা, সংশোধিত বাজেটের আকার তিন লাখ ৭১ হাজার ৪৯৫ কোটি টাকা।

এ প্রসঙ্গে সম্প্রতি অর্থমন্ত্রী বলেছেন, আগামী বাজেট পাঁচ লাখ কোটি টাকা করার লক্ষ্য ছিল। কিন্তু তা সম্ভব হচ্ছে না। তবে বাজেটের আকার চার লাখ ৬০ হাজার কোটি টাকার আশেপাশেই থাকবে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, বাড়তি করারোপ না করা হলেও নির্বাচনের আগে ভোটার তুষ্টির জন্য বাজেটে বেশ কিছু উদ্যোগ থাকছে। সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য পে-স্কেল অনুযায়ী ৫ শতাংশেরও বেশি হারে বার্ষিক বেতন বৃদ্ধির ঘোষণা থাকছে, বাড়ানো হচ্ছে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতা। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে এক লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা।

ব্যয়ের এই চাহিদা মেটাতে অর্থমন্ত্রী ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মোট তিন লাখ ৩৯ হাজার ২৮০ কোটি টাকা রাজস্ব আয়ের পরিকল্পনা করেছেন। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) নিয়ন্ত্রিত কর থেকে দুই লাখ ৯৬ হাজার ২০১ কোটি টাকা, এনবিআর-বহির্ভূত করব্যবস্থা থেকে ৯ হাজার ৭২৭ কোটি টাকা এবং কর ছাড়া প্রাপ্তি—যেমন টোল, সরকারি হাসপাতালের ফিসহ অন্যান্য উৎস থেকে আয়ের প্রাক্কলন করা হয়েছে ৩৩ হাজার ৩৫২ কোটি টাকা।

বিদায়ী অর্থবছরের মূল বাজেটে মোট রাজস্বপ্রাপ্তির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল দুই লাখ ৮৭ হাজার ৯৯০ কোটি টাকা, সংশোধিত বাজেটে যা কমিয়ে দুই লাখ ৫৯ হাজার ৪৫৪ কোটিতে নামানো হয়েছে। মূল বাজেটে এনবিআরের লক্ষ্যমাত্রা দেওয়া ছিল দুই লাখ ৪৮ হাজার ১৯০ কোটি টাকা, সংশোধিত বাজেটে তা নেমেছে দুই লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকায়।

অর্থমন্ত্রী গতকাল মঙ্গলবার সাংবাদিকদের বলেন, নতুন বাজেটে জনগণের জন্য এটাই সবচেয়ে খুশির খবর যে নতুন কোনো করারোপ করা হচ্ছে না। কর কর্মকর্তাদের মানসিকতা পরিবর্তনের পাশাপাশি করদাতাদের হয়রানি কমাতে আইন-কানুন সংশোধন করা হয়েছে। তরুণরা করদানে উত্সাহিত হচ্ছে। তাই করহার না বাড়লেও নতুন অর্থবছরে বাড়তি করের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে বলে তাঁর আশা।

প্রত্যক্ষভাবে নতুন করারোপ না করে ব্যয়ের বাড়তি চাহিদা মেটাতে অর্থমন্ত্রীকে বড় অঙ্কের ঘাটতি রেখে বাজেট প্রণয়ন করতে হচ্ছে। নতুন অর্থবছরে সামগ্রিক বাজেট ঘাটতি রাখা হচ্ছে এক লাখ ১৫ হাজার ২৯৩ কোটি টাকা। এটি মোট দেশজ উত্পাদনের (জিডিপি) ৪.৯ শতাংশ। অবশ্য বাজেটে চার হাজার ৫১ কোটি টাকা বৈদেশিক অনুদান পাওয়ার আশা থাকছে। ওই অনুদান পাওয়া গেলে ঘাটতি দাঁড়াবে এক লাখ ২১ হাজার ২৪২ কোটি টাকা, যা জিডিপির ৪.৭ শতাংশ।

চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে ঘাটতি ধরা হয়েছিল এক লাখ ১২ হাজার ২৭৬ কোটি টাকা, সংশোধিত বাজেটে তা সামান্য কমিয়ে নানানো হয়েছে এক লাখ ১২ হাজার ৪১ কোটি টাকায়। উভয় ক্ষেত্রেই এই ঘাটতির পরিমাণ জিডিপির ৫ শতাংশ।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের মতো দেশে বাজেট ঘাটতি জিডিপির ৫ শতাংশের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলে তা মন্দ নয়। আগামী অর্থবছরে টাকার অঙ্কে চলতি অর্থবছরের তুলনায় ঘাটতির পরিমাণ ১৩ হাজার ১৭ কোটি টাকা বাড়লেও জিডিপির অনুপাতে চলতিবারের তুলনায় নতুন বাজেটের ঘাটতি দশমিক ১ শতাংশ কম। এটিকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

এক লাখ ২৫ হাজার ২৯৩ কোটি টাকার ঘাটতি মেটাতে অর্থমন্ত্রী বৈদেশিক উৎস থেকে মোট ঋণ নেবেন ৬০ হাজার ৫৮৫ কোটি টাকা। সেখান থেকে ১০ হাজার ৫৬৯ কোটি টাকা বিদেশি ঋণ পরিশোধে খরচ হবে। ফলে সরকারের নিট বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ দাঁড়াবে ৫০ হাজার ১৬ কোটি টাকা। ঘাটতির বাকি ৭১ হাজার ২২৬ কোটি টাকা নেওয়া হবে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে। এর মধ্যে ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়া হবে ৪২ হাজার ২৯ কোটি টাকা, সঞ্চয়পত্র থেকে নেওয়া হবে ২৬ হাজার ১৯৭ কোটি টাকা। বাকি তিন হাজার কোটি টাকা অন্যান্য উৎস হতে।

চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে নিট বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ ধরা হয়েছিল ৪৬ হাজার ৪২০ কোটি টাকা, সংশোধিত বাজেটে তা কমিয়ে ৪১ হাজার ৫৬৭ কোটি নির্ধারণ করা হয়েছে। গত অর্থবছরের মূল বাজেটে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ৬০ হাজার ৩৫২ কোটি টাকা নিয়ে ঘাটতি মেটানোর কথা বলা হয়েছিল। সংশোধিত বাজেটে এটি বাড়িয়ে ৬৬ হাজার ১৭ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

মূল বাজেটে ব্যাংক থেকে ২৮ হাজার ২০৩ কোটি টাকা, সঞ্চয়পত্র থেকে ৩০ হাজার ১৫০ কোটি টাকা নেওয়ার লক্ষ্য ছিল। তবে অর্থবছরজুড়ে অধিক হারে সঞ্চয়পত্র বিক্রি হওয়ায় সংশোধিত বাজেটে এ খাত থেকে ৪৪ হাজার কোটি টাকা এবং ব্যাংক থেকে ১৯ হাজার ৯১৭ কোটি টাকা নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে সংশোধিত বাজেটে।

ঘাটতি অর্থায়ন প্রসঙ্গে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) সম্মানিত ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেছেন, বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণ পরিস্থিতি এখনো নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আছে। চার-পাঁচ বছর পর বৈদেশিক ঋণ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে নাও থাকতে পারে। সেটি এখন থেকেই বিবেচনা করতে হবে। চলতি অর্থবছর অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে ঘাটতি মেটানোর ক্ষেত্রে সরকার সঞ্চয়পত্রের ওপর অতিরিক্ত নির্ভর করছে। এ নির্ভরতা কমানোর ওপর জোর দেন তিনি।

চার লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার আসন্ন বাজেট থেকে দেশি-বিদেশি ঋণের সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে ৫১ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা। এডিপির পর ঋণের সুদ পরিশোধই সরকারের ব্যয়ের সবচেয়ে বড় খাত। অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে নেওয়া ঋণের সুদ বাবদ ব্যয় করতে হবে ৪৮ হাজার ৩৭৭ কোটি টাকা, বৈদেশিক ঋণের সুদ দিতে হবে দুই হাজার ৯৬৩ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ ধরা হয় ৩৯ হাজার ৫১৩ কোটি আর বিদেশি ঋণের সুদ ধরা হয় এক হাজার ৯৪৬ কোটি টাকা।

এরই মধ্যে এডিপি অনুমোদন পেয়েছে। তাতে বাজেট থেকে এক লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের কথা আছে। এর বাইরে এডিপিবহির্ভূত বিশেষ প্রকল্পে চার হাজার ৩৬৫ কোটি টাকা, কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) কর্মসূচিতে এক হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা, অন্যান্য স্কিমে ৩২৭ কোটি টাকাসহ উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে মোট এক লাখ ৭৯ হাজার ৬৬৯ কোটি টাকা ব্যয় প্রাক্কলন করা হচ্ছে।

বাজেটে সরকারের পরিচালন ব্যয় ধরা হয়েছে দুই লাখ ৫১ হাজার ৬৬৮ কোটি টাকা। চলতি বছরের মূল বাজেটে এর পরিমাণ ছিল দুই লাখ ৯ হাজার ১৪২ কোটি টাকা, যা সংশোধিত বাজেটে কমিয়ে এক লাখ ৯৩ হাজার ৮২৮ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

নতুন বাজেটে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক, সরকারি মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান এবং সরকারি কর্মচারীদের দেওয়া ঋণ পরিশোধে বরাদ্দ রাখা হচ্ছে ৩০ হাজার ৭৪৭ কোটি টাকা। চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে এটি ২৪ হাজার ৮৭১ কোটি এবং সংশোধিত বাজেটে ১৬ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা ধরা হয়েছে।

চলতি বাজার মূল্যে চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে জিডিপির আকার ধরা হয়েছিল ২২ লাখ ২৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে তা বেড়ে দাঁড়াচ্ছে ২২ লাখ ৩৮ হাজার ৪৯৮ কোটি টাকায়। চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশের ভেতরে যে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড হয়েছে তার মোট আর্থিক মূল্য এটি। আগামী অর্থবছরে জিডিপির আকার বেড়ে ২৫ লাখ ৩৭ হাজার ৮৪৯ কোটি টাকা হবে বলে প্রাক্কলন করছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

চলতি অর্থবছরের মূল বাজেটে জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৭.৪ শতাংশ। সংশোধিত বাজেটে তা বাড়িয়ে ৭.৬৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হচ্ছে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে ৭.৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে বলে আশা করছেন অর্থমন্ত্রী। আর নির্বাচনের পরের, অর্থাহৃ ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জনের সম্ভাবনা দেখছে সরকার।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, বাংলাদেশ উচ্চহারে প্রবৃদ্ধি অর্জন করলেও সে তুলনায় বেসরকারি বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান বাড়েনি। দারিদ্র্য বিমোচন ও সম্পদের বৈষম্য কমার হারও হ্রাস পেয়েছে। অর্থমন্ত্রীও তা স্বীকার করেছেন।

চলতি অর্থবছরের মূল্যস্ফীতি প্রাক্কলন করা হয়েছিল ৫.৫ শতাংশ, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে খাদ্য মূল্যস্ফীতি বাড়ায় সংশোধিত বাজেটে তা কিছুটা বাড়িয়ে ৫.৮ শতাংশ প্রাক্কলন করতে যাচ্ছে অর্থ মন্ত্রণালয়। তবে নতুন অর্থবছরে তা ৫.৬ শতাংশে নামানোর ঘোষণা থাকছে আসন্ন বাজেটে। সূত্র: কালের কণ্ঠ

আরও পড়ুন