কুমিল্লা
সোমবার,১৯ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৬ বৈশাখ, ১৪২৮ | ৬ রমজান, ১৪৪২

অর্থের অভাবে সাধারণের ঈদ আনন্দ মাটি

দেশে সাধারণ মানুষের পকেটে টাকা নেই। ব্যাংকেও অর্থ সংকট। যারা চাকরিজীবী তারাও অনেকে এখনো বেতন-বোনাস পাননি। তাই ঈদবাজারে আগের মতো ভিড় নেই। যার বড় প্রভাব দেখা গেছে রাজধানীর দর্জির দোকানগুলোতে। অন্য সময় ১০ রোজার মধ্যে দর্জির দোকানগুলোতে কাজের অর্ডার নেওয়া বন্ধ করে দেওয়া হলেও এবার ১৯ রমজান পর্যন্ত কাজের কাঙ্ক্ষিত অর্ডার পাননি দর্জিরা।

শুধু দর্জির দোকানই নয়। রেডিমেট বা তৈরি পোশাকের দোকানসহ পুরো ঈদবাজারে অন্য বছরের তুলনায় ভিড় কম। বেচা-কেনাও হচ্ছে না আগের মতো। ব্যবসায়ীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। এদিকে টাকার অভাবে কেনাকাটা করতে না পারায় সাধারণ মানুষের ঈদ আনন্দই মাটি হতে চলেছে।

এর পেছনে বেশ কিছু কারণ জানা গেছে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপকালে। বেশির ভাগ বেসরকারি প্রতিষ্ঠান অর্থসংকটে রয়েছে। আগের মতো ব্যবসা-বাণিজ্য না থাকায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সময় মতো বেতন-ভাতা ও ঈদ বোনাস দিতে পারছে না। তাই বেসরকারি চাকরিজীবীরা পরিবারের জন্য ঈদের কেনাকাটাও করতে পারছেন না। এমনকি অনেক প্রতিষ্ঠানে চাকরিজীবীদের দুই-তিন মাস পর্যন্ত বা তারও বেশি বেতন বাকি।

ধার-দেনা করে চলছেন তারা। ঈদের আগে এসব প্রতিষ্ঠান থেকে বেতন-বোনাস পাওয়ার আশাও ছেড়ে দিয়েছেন কর্মীরা। সেই পরিবারগুলোতে আনন্দের পরিবর্তে হতাশা ও কষ্ট বয়ে আনছে এবারের ঈদ। এমন হতাশা ও কষ্টের কথা জানাগেছে অনেকের কাছ থেকে। এমনকি পরিবারের ছোট সদস্যদের জন্যও ঈদে নতুন পোশাক কেনা হবে বলে কষ্টের সঙ্গে আর্থিক দুরাবস্থার কথা জানিয়েছেন কেউ কেউ।

এদিকে ব্যাংকে তারল্য সংকটের কারণেও এর প্রভাব পড়েছে ঈদবাজারে। বিদেশ থেকে রেমিট্যান্স না আসা, বেকারত্ব বেড়ে যাওয়াসহ নানা কারণে সাধারণ মানুষের পকেটে টাকা নেই। তাই ঈদুল ফিতরে নতুন পোশাকের যে ঐতিহ্য দেশে যুগ যুগ ধরে চলে আসছে তা অর্থের অভাবে অনেকের জন্য এবার ফিকে হয়ে যাচ্ছে। দেশের বড় জনগোষ্ঠী- নিম্ন মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারগুলোতে এর প্রভাব পড়েছে।

আমদানি পণ্যে অতিমাত্রায় শুল্ক আরোপের কারণে একটি পণ্য দেশি বাজারে আসতে দাম প্রায় দ্বিগুণ বেড়ে যায়। তাই যারা বিদেশি পণ্য ইউজ করেন তাদের অনেকেই এখন আর দেশের বাজারে আসেন না। শপিংয়ের জন্য ঈদের আগে বিদেশ চলে যান। ভ্রমণ করে আসেন, কেনাকাটাও সারেন বিদেশে।

আরও পড়ুন