কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২০ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৪ কার্তিক, ১৪২৭ | ২ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

ব্রাহ্মণপাড়ায় অভিমানে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

ফাইল ছবি

গৃহশিক্ষকের বেত্রাঘাতের অভিমানে আঁখি আক্তার (১০) নামে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। বুধবার বিকেলে জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার চৌব্বাস গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আঁখি ওই গ্রামের মধ্য পাড়ার বিল্লাল হোসেনের মেয়ে এবং দেউশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির ছাত্রী।

বুধবার সকালে পড়া না পারায় গৃহশিক্ষক আঁখিকে বেত্রাঘাত করে বলে জানায় তার পরিবারের সদস্যরা। বিকেলে সে বাড়ির ছাদের সিঁড়ির দরজায় গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করে। খবর পেয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার ও প্রাথমিক সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে।

নিহত আখির মা ফরিদা আক্তার জানান, আমার দুই সন্তান আঁখি ও জাবেদ (৩য় শ্রেণির ছাত্র) প্রতিদিন সকালে বাড়ির পাশের এক কিন্ডার গার্টেনের শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়ে। বুধবার পড়া শেষ করার পর আঁখিকে গোমড়ামুখে এদিক-সেদিক ঘুরাঘুরি করতে দেখি। পরে জাবেদের কাছ থেকে জানতে পারি, আঁখিকে স্যার বেত্রাঘাত করেছে।

তিনি জানান, সংসারের নানা কাজে ব্যস্ততা থাকায় তার সাথে আর কথা বলা হয়ে উঠেনি। খানিকক্ষণ পর হঠাৎই আর আঁখিকে খোঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। অনেক খোঁজাখুঁজির পর বাড়ির ছাদে গিয়ে দেখি সিঁড়ির দরজার সাথে আঁখি গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস দিয়ে অর্ধমৃত অবস্থ্যায় ঝুলে আছে।

তাৎক্ষণিক তাকে উদ্ধার দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার সময় পথেই সে মারা যায়। ‘আঁখি অভিমানে আত্মহত্যা করেছে’ বললেও ফরিদা আক্তার বলেন, শিক্ষকের বিরুদ্ধে আমাদের কোনো অভিযোগ নেই।

ঘটনার সত্যতার স্বীকার করে ব্রাহ্মণপাড়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) জাকির হোসেন জানান, খবর পেয়ে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করি। ওই ছাত্রীর গলায় ফাঁসের চিহ্ন ছাড়া শরীরের আর কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তিনি বলেন, পরিবারের কারো কোন অভিযোগ না থাকায় ওসি স্যারের অনুমতিতে লাশ দাফনের জন্য পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও পড়ুন