কুমিল্লা
মঙ্গলবার,২৭ জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১২ শ্রাবণ, ১৪২৮ | ১৬ জিলহজ, ১৪৪২

অবাস্তবায়নযোগ্য বাজেট প্রত্যাখ্যান বিএনপির

ড. খন্দকার মোশাররফ/ ফাইল ছবি

২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট জনগণের স্বার্থে নয় দাবি করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ‘এই বাজেট নির্বাচনী বছরে ভোট আকর্ষণের, যা কখনও বাস্তবায়ন সম্ভব হবে না। আমরা এই বাজেট প্রত্যাখ্যান করছি।’

রাজধানীর পুরানা পল্টনের মৈত্রী মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সম্মানে এক ইফতার ও দোয়া মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘বর্তমান স্বৈরাচারী সরকার আজকে একটি বাজেট দিয়েছে। ইতোমধ্যে এই বাজেট সংসদে উত্থাপন করা হয়েছে। বাজেটে মূল ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৬৪ হাজার কোটি টাকা। তার মধ্যে উন্নয়ন বাজেট হচ্ছে ১ লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা। আর ঘাটতি হচ্ছে ১ লাখ ৮৫ হাজার ২৯৩ কোটি টাকা।’

‘প্রস্তাবিত এই বাজেট জনগণের স্বার্থে নয়। নির্বাচনী বছরে ভোটের আকর্ষণের জন্য এত বড় ঘাটতির একটি বিশাল বাজেট দেয়া হয়েছে। মূলত জনগণকে প্রতারণা করে ভোট আকর্ষণ করানোর জন্য এই বাজেট। তাই এটা নির্বাচনী বাজেট। ভোট আকর্ষণের বাজেট। জনগণের স্বার্থের বাজেট নয়।

এছাড়া এই বাজেট বাস্তবায়নের জন্য আর্থিক সক্ষমতাও নেই এবং প্রশাসনিক দক্ষতাও নেই। সুতরাং এটা বাস্তবায়নযোগ্য নয়। লোক দেখানো ও মানুষকে প্রতারণা করার বাজেট। আমরা (বিএনপি) এই বাজেট প্রত্যাখ্যান করছি। কারণ এই বাজেট জনগণের কোনো উপকারে আসবে না। আমরা এর প্রতিবাদ করছি’— যোগ করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘এই ঘাটতি যেটা মূল বাজেটের চতুর্থ শতাংশের বেশি। এই ঘাটতি বাজেট কেনো দেয়া হয়েছে? রাজস্ব, সরকারি খরচ এবং সরকারি বেতন কমানো যায় না। কিন্তু এত বড় ঘাটতি, আসলে এখানে উন্নয়নের জন্য সেই পরিমাণ কোনো টাকা-পয়সা নেই। এই ঘাটতি পূরণের জন্য বৈদেশিক ঋণ করা হবে এবং আমাদের দেশের ব্যাংকগুলো থেকে ঋণ নেওয়া হবে। আমাদের দেশের ব্যাংকগুলো থেকে ঋণ টার্গেট ৪২ হাজার ২৯ কোটি টাকা।

বৈদেশিক ঋণ তারা (সরকার) আশা করছে ৬০ হাজার ৫৮৫ কোটি টাকা। এগুলো হচ্ছে- ধারণা মাত্র। আজকে স্বৈরাচার সরকারের অর্থনৈতিক ভুল নীতির কারণে এবং স্বেচ্ছাচারিতায় ব্যাংকগুলো দেউলিয়া হয়ে গেছে। এই ব্যাংকগুলোকে যদি সরকারকে আবার ঋণ দিতে হয়, তাহলে ভবিষ্যতে ব্যাংকগুলো প্রাইভেট সেক্টরে কোনো ঋণ দিতে পারবে না।’

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, ‘ঋণের বোঝা বাড়িয়ে সরকার এত বড় ঘাটতি বাজটে দিয়েছে, ঋণ নির্ভর একটি বাজেট। এতে জনগণের উপর ঋণের বোঝা বৃদ্ধি হবে। এছাড়া রাজস্ব আদায়ের জন্য যে টার্গেট করা হয়েছে, সেটাও সম্ভব হবে না। জনগণের পকেট থেকেই এ ঘাটতি পূরণ করতে হবে।’ বাজেটে করপোরেট ট্যাক্স কমানোর মাধ্যমে ধনী আরও ধনী হবে এবং গরিব আরো গরিব হবে বলেও জানান তিনি।

কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীকের সভাপতিত্বে মাহফিলে আরও বক্তব্য রাখেন— দলটির মহাসচিব এম এম আমিনুর রহমান, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, ২০ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নির্বাহী সদস্য মাওলানা আবদুল হালিম, জাতীয় পার্টি (জাফর অংশ) প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিঙ্কন,

বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, এনপিপি চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, এনডিপি চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা, খেলাফত মজলিশ মহাসচিব ড. আহমেদ আবদুল কাদের, এলডিপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, বিজেপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আবদুল মতিন সাউদ প্রমুখ।

আরও পড়ুন