কুমিল্লা
রবিবার,২৫ জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ শ্রাবণ, ১৪২৮ | ১৪ জিলহজ, ১৪৪২

ছাত্রদলের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ

কমিটি ঘোষণা নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে কুমিল্লায় ছাত্রদলের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ হয়েছে। রোববার এ ঘটনার সময় ব্যাপক ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলির ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশও শর্টগানের গুলি নিক্ষেপ করে।

স্থানীয়রা জানান, দুপুরে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নবগঠিত কুমিল্লা জেলা ছাত্রদল ও মহানগর ছাত্রদল বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি কুমিল্লা শহরের রামঘাট থেকে শুরু হয়ে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ রোডস্থ জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে গেলে ছাত্রদলের পদবঞ্চিত গ্রুপের সাথে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া শুরু হয়।

এ সময় ব্যাপক ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলির ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ফাঁকা গুলি ছোড়ে। সংঘর্ষে অন্তত ৫ জন আহত হয়।

কুমিল্লা জেলা দক্ষিণ ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন কায়সার বলেন, কেন্দ্র থেকে যোগ্যতা অনুসারে কমিটি দেয়া হয়েছে। অপর গ্রুপের ছাত্রদলের সকলের নাম আছে। তারপরও আজ নেত্রীর মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে দলীয় কার্যালয়ের সামনে আসলে অপর গ্রুপ অতর্কিত হামলা চালায়। এতে আমাদের প্রায় ১০/১২ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইউসুফ মোল্লা টিপু বলেন, ছাত্রদলের এক তরফা কমিটি দেয়ার কারণে ক্ষুব্ধ ছাত্রদল নেতাকর্মীরা কমিটিকে প্রতিহত করেছেন। ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে কমিটি দেয়াতে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে তালা দিয়েছিল। আজ ছাত্রদলের ব্যানারে অযোগ্য নেতৃবৃন্দরা মিছিল বের করে তালা ভাঙ্গতে আসে। তখন তাদের প্রতিরোধ করা হয়েছে। অযোগ্য নেতৃবৃন্দকে কোন কর্মসূচি পালন করতে দেয়া হবে না।

কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আবু ছালাম মিয়া জানান, পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ২১ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছোড়ে। এ ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, কুমিল্লায় ছাত্রদলের দু’টি গ্রুপ রয়েছে। একটি গ্রুপে নেতৃত্ব দিচ্ছেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিন উর রশিদ ইয়াছিন এবং অপর গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু।

আরও পড়ুন