কুমিল্লা
রবিবার,২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৭ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

চৌদ্দগ্রামে থেমে নেই মাদক পাচার

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে মাদক বিরোধী অভিযানে পুলিশের সাথে কথিত ‘বন্ধুকযুদ্ধে’ বাবুল মিয়া ও সাদ্দাম হোসেন নামের দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। এতে মাদক ব্যবসায়ী ও পাচারকারীদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকায় থাকা মাদক ব্যবসায়ীদের অনেকে পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে ও বাংলাদেশের বিভিন্নস্থানে গা ঢাকা দিয়েছে। তবে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে দাবি পুলিশের। পুলিশ জানায়, চৌদ্দগ্রামের শতাধিকসহ কুমিল্লার ৯৩১ জনের একটি তালিকা নিয়ে মাঠে নেমেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারে বিভিন্ন স্পটে সাঁড়াশি অভিযান চলছে। সম্প্রতি অভিযানে মাদক মামলার বেশ কয়েকজন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে কোনো ‘গডফাদার’ গ্রেফতারের দাবি করতে পারেনি পুলিশ। ভারত সীমান্তলগ্ন চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় অর্ধশতাধিক মাদক পাচারের স্পট রয়েছে। মাদকের সাথে জড়িয়ে পড়েছে শিশু, কিশোর, নারীরাও। সীমান্তের এপারে পুলিশ-বিজিবি ও ওপারে বিএসএফের সার্বক্ষণিক নজরদারি থাকলেও রহস্যজনক কারণে মাদক পাচারের তৎপরতা থামছে না। ঈদুল ফিতর সামনে রেখে সীমান্তে পূর্ণ শক্তি নিয়ে সক্রিয় হয়ে ওঠে চোরাকারবারিদের সিন্ডিকেট। আর এ সময়ই শুরু হয়েছে দেশব্যাপী মাদকবিরোধী অভিযান। তারপরও প্রতিদিনই সীমান্তের বিভিন্নস্থান দিয়ে কিভাবে মাদক বাংলাদেশে প্রবেশ করছে?- এমন প্রশ্ন সচেতন মহলের।
আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দেয়া তথ্যমতে, মাদকবিরোধী বিশেষ অভিযানকালে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে চৌদ্দগ্রামে দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। এরপর থেকে চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীরা আত্মগোপনে চলে গেছে।
এদিকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরসহ সব গোয়েন্দা সংস্থার সমন্বয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের যে তালিকা করেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়, তাতে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ৩০ জন পাইকারি ও খুচরা মাদক বিক্রেতার নাম রয়েছে। সেই তালিকা ধরে চলছে মাদকবিরোধী অভিযান। এ তালিকায় তাদের নাম রয়েছে-যাদের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বের মাদক মামলা রয়েছে। তবে তালিকায় যাদের নাম রয়েছে তাদের মধ্যে শীর্ষ অনেক ব্যবসায়ীর নাম নেই। নেই গডফাদারদের নামও। তবে পুলিশ বলছে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকার পাশাপাশি মাদক মামলায় কোয়ালিটি দেখে মাদকবিরোধী অভিযান চলছে। তাছাড়া পুলিশের একটি নিজস্ব তালিকাও রয়েছে। নির্ভরযোগ্য সূত্রে প্রাপ্ত তালিকায় যাদের নাম রয়েছে তারা হলেন- চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার রামরায় গ্রামের মৃত আলী আহমদের ছেলে নুর আলম, গোমারবাড়ি গ্রামের মৃত শাহাদাত হোসেনের ছেলে মোঃ মঈন আলী, মৃত আবদুল হামিদের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম, রামরায় গ্রামের মৃত মালেক মিয়ার ছেলে মোঃ শাহাবুদ্দিন, রামচন্দ্রপুরের মৃত আঃ হামিদের ছেলে মোঃ মোর্শেদ আলী, হোসেন আলীর ছেলে ইমান আলী, ধনমুড়ি গ্রামের আবদুল হামিদের ছেলে মকবুল মিয়া, আবদুল হামিদের ছেলে জাহাঙ্গীর মিয়া, গোমারবাড়ির মৃত আবদুল হামিদের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম, কাজল মিয়ার ছেলে সবুজ মিয়া, বাতিসা ইউনিয়নের দূর্গাপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে রুবেল হোসেন, বসন্তপুরের মোঃ এরশাদের ছেলে দেলোয়ার হোসেন, আনন্দপুরের মৃত লাতু মজুমদারের ছেলে ইদ্রিস মিয়া, কালিকাপুর ইউনিয়নের জামপুরের আলী আকবরের ছেলে মোস্তফা মিয়া, কে কে নগর গ্রামের মৃত সুলতান মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন, আবদুল মজিদের ছেলে কামাল হোসেন, শিবপুরের আলী নেওয়াজের ছেলে ইয়াকুব আলী, উজিরপুর ইউনিয়নের ভাটবাড়ি গ্রামের সাদ্দাম হোসেন(বন্দুকযুদ্ধে নিহত), কৃষ্ণপুরের আবুল হোসেনের ছেলে মোতালেব হোসেন, আলকরা ইউনিয়নের দক্ষিণ কাইছুটি গ্রামের বাহার উদ্দিন, আবদুল মালেকের ছেলে মোঃ ফারুক, ফরিদ মিয়ার ছেলে মোঃ রফিক, সোনাইচা গ্রামের দেলু মোল্লার ছেলে মোঃ আকবর, জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের সাতঘরিয়া গ্রামের মৃত আবদুল গণির ছেলে মোঃ শাহজালাল, ঘোলপাশা ইউনিয়নের মতিয়াতলী গ্রামের ইউসুফ মিয়ার ছেলে মোঃ মাসুদ, নোয়াপুরের সিরাজ আলীর ছেলে মোঃ জসিম উদ্দিন, রাজেন্দ্রপুরের আবুল কাশেমের ছেলে বাবুল মিয়া, শালুকিয়ার জুলফু মিয়ার ছেলে রোকন উদ্দিন রুকু, ইশানচন্দ্রনগরের বজলুর রহমানের ছেলে খলিল মিয়া ও রাঙ্গামাটিয়া গ্রামের তাজুল মিয়ার ছেলে তোতা মিয়া।
এ ব্যাপারে চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি আবুল ফয়সল জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা প্রতিদিনই উপজেলার সীমান্তবর্তী অঞ্চলগুলোতে অভিযান করছি। বন্দুকযুদ্ধে দুই মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছে। আটক করা হয়েছে অনেক ব্যবসায়ীকে। এছাড়া মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে তিনি সকলের প্রতি আহবান জানান।
(নতুন কুমিল্লা/এমইউ/এইচএম/জুন ১৫, ২০১৮)

আরও পড়ুন