কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৯ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ কার্তিক, ১৪২৭ | ১১ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

দশ ট্রাক অস্ত্র আটককারী ইন্সপেক্টর হেলালের বাড়িতে শোকের মাতম

২০০৪ সালে আলোচিত ১০ ট্রাক অস্ত্র আটককারী এবং এ মামলার অন্যতম স্বাক্ষী চট্টগ্রাম বন্দর থানার তৎকালীন সার্জেন্ট ও বর্তমানে ইন্সপেক্টর হেলাল উদ্দিন ভূইয়া (৪৭) সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। রবিবার (১৭ জুন) দুপুর পৌঁনে ২টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফেনীর রামপুর রাস্তার মাথায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন তিনি।

নিহত মো. হেলাল উদ্দিন ভূইয়া কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার বড়গোবিন্দপুর গ্রামের মরহুম আমির আলী ভূইয়ার বড় ছেলে। তিনি চট্টগ্রাম বন্দর থানার পেট্রোল ইন্সপেক্টর পদে কর্মরত ছিলেন। সোমবার (১৮ জুন) দুপুরে নিহতের মরদেহ তার নিজ বাড়িতে
আনার পর এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। নিহতের স্ত্রী-সন্তান ও বৃদ্ধা মায়ের বুক ফাটা কান্নায় আশ-পাশের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে। একমাত্র মেয়ে রিফা তাসফিয়া এবারের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে এবং একমাত্র ছেলে আহনাফ রাফি ভূইয়া দশম শ্রেণীতে অধ্যয়নরত।

পিতৃহারা সন্তানদের কাছে কোন শান্তনাই যেন বাঁধ মানছে না। মাকে জড়িয়ে কাঁদছে সন্তানরা আর সন্তানদের জড়িয়ে ধরে মা। এদিকে সন্তান হারানোর শোকে পাথর প্রায় নিহত হেলাল উদ্দিন ভূইয়ার বৃদ্ধা মা হোসনেয়ারা বেগম। আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশিরাও চোখের পানি ধরে রাখতে পারছে না। হেলাল উদ্দিন ভূইয়া ১৯৯৪সালে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট হিসেবে যোগদান করেন।

১৯৯৮সালে স্ত্রী ইয়াসমিন জুয়েল এর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ২০০৪ সালে চট্টগ্রামের কয়লারডিপো ফাঁড়ির ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্বপালন কালে ওই বছরের ১ এপ্রিল রাতে চট্টগ্রাম ইউরিয়া সার কারখানার ঘাটে দশ ট্রাক অস্ত্র খালাসের সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন নির্ভিক পুলিশ; অফিসার হেলাল উদ্দিন ভূইয়া।

পরে তিনি সিনিয়র কর্মকর্তাদের বিষয়টি অবহিত করলে অস্ত্রগুলো কর্ণফুলী থানার তৎকালীন অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) আহাদুর রহমান বাদী হয়ে চোলাচালান ও অস্ত্র আইনে পৃথক ২টি মামলা দায়ের করেন। আর ওই মামলায় স্বাক্ষী করা হয় পুলিশ অফিসার হেলাল উদ্দিন ভূইয়াকে।

২০১৪ সালের ৩০ জানুয়ারী বিজ্ঞ আদালত ওই মামলায় সাবেক শিল্পমন্ত্রী ও জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামী এবং সাবেক
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিএনপি নেতা লুৎফর রহমান বাবর সহ ১৪ জনকে মৃত্যুদন্ড ও পাঁচ লাখ টাকা করে জরিমানা এবং অস্ত্র আইনের মামলায় তাদের সবাইকে যাবজ্জীবন কারাদ- প্রদান করেন।

২০১৪ সালে; তিনি পিপিএম পদক এবং ২০১৫ সালে ইন্সপেক্টর পদে পদন্নোতি লাভ করেন। রবিবার (১৭ জুন) দুপুর ১২টায় নিজ
বাড়ি চান্দিনার গোবিন্দপুর থেকে ব্যক্তিগত প্রাইভেটকার যোগে নিজে ড্রাইভ করে কর্মস্থল চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন তিনি। দুপুর পৌঁনে ২টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফেনী-রামপুর রাস্তার মাথায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে গুরুতর আহত হন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

পরে ফেনী সদর হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে প্রেরণ করলে সেখানে নিয়ে যাওয়ার পথে দাউদকান্দিতে তিনি মারা যান। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।সোমবার (১৮ জুন) বিকাল ৫টায় তার নিজ বাড়ি চান্দিনার গোবিন্দপুর শাহী ঈদগাহ্ মাঠে তার কফিনে জাতীয় পতাকা জড়িয়ে নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক করবস্থানে নিহতের  মরদেহ দাফন করা হয়।

নিহতের জানাজায় পুলিশ কমিশনার এর প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বন্দরের অতিরিক্ত ডেপুটি পুলিশ কমিশনার মো. আরেফিনজুয়েল। এছাড়া চান্দিনা থানার অফিসার-ইন-চার্জ মোহাম্মদ শামছুল ইসলামসহ চান্দিনা থানা পুলিশ।

(নতুন কুমিল্লা/এইচএম/এসএম/বুধবার, জুন ২০, ২০১৮)

আরও পড়ুন