কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২২ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৬ কার্তিক, ১৪২৭ | ৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

ওসি মিজানের সহযোগিতায় দেবিদ্বারে মাদক ব্যবসায়ীর নতুন জীবন

দেবিদ্বার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান। ছবি: নতুন কুমিল্লা

মেয়ে স্কুলে গেলে সহপাঠিরা মাদক ব্যবসায়ীর মেয়ে বলে ধিক্কার দিতো। লজ্জায় ঘৃণায় মেয়ের স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিলো। এ জন্য আমার স্ত্রী আমাকেই দায়ী করতো। নেশাগ্রস্থরা ছাড়া আমার সাথে ভালো মানুষ মিশতো না, ভালোভাবে কথাও বলতো না স্ত্রী সন্তানরা যখন জানলো আমি মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত তখন থেকে আমাকে ঘৃণা করতে লাগলো।

আমার স্ত্রী ও মেয়ে বারবার বলেছে প্রয়োজনে আমরা মানুষের বাড়ি বাড়ি কাজ করব তারপরও তুমি এ পথে যেওনা, ফিরে আসো এ অন্ধকারের পথ থেকে। স্ত্রী ও মেয়ের এসব কথায় আমার মন গলেনি। নগদ টাকার পিছনে ছুটতে গিয়ে সখ্য গড়ে উঠে বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে।

দিনের পর দিন আমি আরও বেপরোয়া হয়ে উঠি। আর একে একে জড়িয়ে পড়ি বড় বড় অপরাধের সাথে। এসব অপরাধ করতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়ে জেল খেটেছি, দশমাস পর জামিন পেয়ে আবারও বেপরোয়া হয়ে উঠি। দেশের বিভিন্ন থানায় ১০-১২ টা মাদক মামলার আসামী হয়। এভাবে মাদকের সাথে সময় কেটেছে র্দীঘ ১৫ বছর। এখন আমার ভুল আমি বুঝতে পেরেছি, সরে এসেছি অন্ধকারের পথ থেকে।

উপরের কথাগুলো নতুন কুমিল্লার সাথে বলছিলেন ‘মাদক ছেড়ে সুপথে ফিরে আসা’ আলমগীরের। ঘনিষ্ট বন্ধু সাইফুলের প্ররোচনায় ভারতে গিয়ে দেখা হয় এক মাদক সম্রাটের সাথে। ওই মাদক সম্রাট বাংলাদেশে মাদক এনে বিক্রি করলে ব্যবসায় অর্ধেক লাভ দিবে এমন প্রস্তাব করলে এতে রাজী হয়ে যায় আলমগীর। সেইদিন থেকেই শুরু হয় আলমগীরের অন্ধকারে পথচলা।

২০০৩ সাল থেকে শুরু করে দীর্ঘ পনেরো বছর অন্ধকারে পথ চলেছেন আলমগীর। জাফরগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসেন ও স্থানীয় এক সাংবাদিকের সহযোগিতায় দেবিদ্বার থানার ওসি মো. মিজানুর রহমানের কাছে আত্মসমর্পন করে ফিরে আসেন আলোর পথে।

আলমগীর হোসেন (৪০) জাফরগঞ্জ ইউনিয়নের মৃত আব্দুল মতিনের ছেলে। তার বিরুদ্ধে দেবিদ্বার, খুলশি, ফেনী সদর থানাসহ দেশের আরও বেশ কিছু থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের একাধিক মামলা রয়েছে।

দেবিদ্বার (সার্কেল) সহকারি পুলিশ সুপার শেখ মো. সেলিম ও ওসি মিজানুর রহমানের সহায়তায় চাকরি পান দেবিদ্বার পৌর কমিউনিটি পুলিশিং এ। অপরাধ জগৎ ছেড়ে এখন নিজেই প্রশাসনকে সহযোগিতা করছেন অপরাধীদের ধরে দেওয়ার ক্ষেত্রে। তার হস্তক্ষেপে ইতোমধ্যে জাকির হোসেন ও খোরশেদ আলম নামে দুই আন্ত:জেলা মাদক ব্যবসায়ী ফিরে এসেছে স্বাভাবিক জীবনে।

অন্ধকার জগত থেকে ফিরে আসা আলমগীর বলেন, রাতে কমিউনিটিং পুলিশের ডিউটি করি, আর দিনের বেলায় অবসর সময় কাটাই। সরকার ও স্থানীয় প্রশাসন যদি আমাকে একটি ব্যবসার ব্যবস্থা অথবা সরকারিভাবে অফিস আদালতে পিয়ন নিয়োগের মত আমাকে এমন একটি কাজ দিতো তাহলে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে সৎভাবে জীবন যাপন করতে পারতাম। কমিউনিটি পুলিশিং এর সীমিত বেতন দিয়ে একটি সংসার চালানো খুবই কষ্ট।

কুমিল্লা পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেনকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আমার আরও দুটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এখন আমাকে যদি আবার জেলে যেতে হয় আমার ছেলে মেয়ের স্ত্রীর জীবন সংকটাপন্ন হয়ে পড়বে। দুটি মামলা থেকে আমাকে নিষ্পত্তি দিতে অনুরোধ করছি।

এ ব্যাপারে জাফরঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসেন নতুন কুমিল্লাকে বলেন, আলমগীর বড় বড় মাদক সিন্ডিকেটের সক্রিয় সদস্য ছিলো, তাকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। ইচ্ছা শক্তি প্রখর হলে যেকোন অপরাধ থেকে বের হওয়া সম্ভব যার জলন্ত প্রমাণ আলমগীর।

ওসি মো. মিজানুর রহমান নতুন কুমিল্লাকে বলেন, চলমান মাদক বিরোধী অভিযানে পাল্টে গেছে দেবিদ্বারের মাদকের পুরনো দৃশ্য। পুলিশ ও স্থানীয়দের উদ্যোগের কারণেই এটা সম্ভব হয়েছে। খুচরা ব্যবসায়ীরা ব্যবসা গুটিয়েছেন বলে তিনি জানান।

(নতুন কুমিল্লা/এমইইউ/এসএম/০৩ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন