কুমিল্লা
শনিবার,২৪ এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১১ বৈশাখ, ১৪২৮ | ১১ রমজান, ১৪৪২

কুমিল্লায় খাল দখল:

শতাধিক হেক্টর জমির ফসল থেকে বঞ্চিত হাজারও কৃষক !

কুমিল্লার ঘুঙ্ঘুর নদীতে বাধ নির্মাণ এবং এ নদীর ৪টি শাখা নদী দখল করে ভরাট করে ফেলায় কুমিল্লা আদর্শ সদর ও বুড়িচংয়ের একশত হেক্টর জমিতে ফসল ফলাতে পারছেননা কৃষকরা। জলাবদ্ধার সৃষ্টি হয়ে তিন ফসলী জমিগুলো এখন জলাশয়ে পরিণত হয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ওই এলাকার লক্ষাধিক কৃষক। আর প্রতি ফসলে দুই হাজার কোটি টাকার ধান উৎপাদন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন জমির মালিকরা।

মঙ্গলবার ওই ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শণে যান কুমিল্লা জলাবন্ধতা নিরসন কমিটির সদস্যরা। কমিটির কাছে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকসহ এলাকাবাসী তাদের দুঃখ দুদর্শার কথা তুলে ধরেন।

এলাকাবাসী জানান, দক্ষিণ কুমিল্লার বৃহত্তম ফসলের মাঠ ‘পয়াত’সহ কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার ২টি ও বুড়িচং উপজেলার ৩টিসহ এই ৫টি ইউনিয়ন ধানসহ সবজি উৎপাদনে বিশেষ ভূমিকা রেখেছে। সাম্প্রতিক সময়ে কিছু অসাধু ও প্রভাবশালী লোক এ অঞ্চলের একমাত্র পানি সরবরাহকারী ঘুঙ্ঘুর নদীকে দখল করে সংকোচিত করে ফেলেছে।

এ ছাড়া এ নদীর ৪/৫টি শাখা নদী যা এলাকায় খাল হিসেবে পরিচিত ছিল তা দখল করে ভড়াট করে ফেলায় এ বিশাল এলাকার শতাধিক হেক্টর জমিতে কোন ফসল ফলানো যায়না। ভারতীয় পাহাড়ী পানিসহ উজানের পানি এসে এই এলাকায় সারা বছরই জলাবদ্ধাতায় নিমজ্জিত থাকে। এক সময় এখানে তিনটি ফসল তোলা গেলেও এখন একটি ফসলও তোলা যায়না। তারা বলেন, এ এলাকার শতাধিক হেক্টর জমিতে প্রতি ফসলে দুই হাজার কোটি টাকার ধান উৎপাদন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন কৃষকরা।

জলাবন্ধতা নিরসন কমিটির কাছে দাবি জানিয়ে এলাকাবাসী বলেন, ঘুঙ্ঘুর নদীসহ সরকারী খালগুলো দখলদারদের কাছ থেকে উদ্ধার করা জরুরী। সামান্য কিছু মানুষের কাছে এখানে শতাধিক হেক্টর জমির মালিক ও কৃষক জিম্মি হয়ে আছে। সেই সাথে প্রতি ফসলে দুই হাজার কোটি টাকার ফসল ফলানো থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন কৃষকরা। এতে কৃষক ও রাষ্ট্র উভয়ই ক্ষতির মুখে পড়েছে।

জলাবন্ধতা নিরসন কমিটির পরিদর্শন শেষে কুমিল্লা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৈৗশলী ইনঞ্জিনিয়ার মোঃ আবদুল লতিফ বলেন, আমাদের অনেক সীমাবদ্ধতা আছে এলজিইডির ছোট ছোট প্রকল্প করার সাধ্য রয়েছে। তারা যদি এপিয়ে আসে তাহলে আমরা তাদের সহযোগিতা করব।

এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৈৗশলী ইনঞ্জিনিয়ার মোঃ সোরাব আলী নতুন কুমিল্লাকে বলেন, স্থানীয় জনগনের সহযোগিতা পেলে আমরা এর সমস্যা সমাধান করতে পারবো।

জলাবন্ধতা নিরসন কমিটির আহবায়ক অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, আমরা পরিদর্শন করে সমস্যা গুলি চিহ্নত করেছি, বোর্ড মিটিং করে এর সমস্যা সমাধান বের করবো।

(নতুন কুমিল্লা/এমইইউ/বিআর/০৩ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন