কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৮ আশ্বিন, ১৪২৮ | ১৫ সফর, ১৪৪৩

কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড ঘিরে প্রতারকচক্র সক্রিয়

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের পদস্থ কর্মকর্তাদের নাম ব্যবহার করে সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র সক্রিয় হয়ে উঠেছে। চক্রটি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে বোর্ডের অধীন বিভিন্ন স্কুল-কলেজের প্রধানদের নিকট নানা অজুহাতে কৌশলগত ভয় দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য বিভিন্ন প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে।

এ ধরণের বেশ কয়েকটি অভিযোগ নজরে আসার পর বোর্ড কর্তৃপক্ষ প্রতারকদের সনাক্তসহ তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানায় জিডি করেছেন। অভিযোগটি তদন্তের জন্য জেলা ডিবিতে প্রেরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৩ জুলাই) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিবির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাছির উদ্দিন মৃধা।

অভিযোগ ও জিডি সূত্রে জানা যায়, লক্ষ্মীপুর জেলা সদরের মুন্সীরহাট শাহাদাৎ মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবদুর রহমান এবং পার্শ্ববর্তী নন্দনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. কামরুল ইসলামের মোবাইল নম্বরে প্রতারক চক্রটি ০১৯৯২৯৪০২৪২ নাম্বার হতে ফোন করে।

এসময় প্রতারকচক্রটি কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ শহিদুল ইসলামের (বিসিএস, সাধারণ শিক্ষা) নাম ব্যবহার করে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতায় চাকুরী প্রদানের নামে তাদের নিকট অর্থ দাবি করে। এতে সন্দেহ হওয়ায় ওই দুই শিক্ষক বোর্ডের চেয়ারম্যানকে বিষয়টি অবহিত করেন।

সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রটি ০১৮২৮৬২৮৫৩৬, ০১৭৫৪৪৫২৮২৭, ০১৬১৪৭২৩৩৮৮, ০১৭৯২৭৭৩০৭৪ নম্বর ব্যবহার করে কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, কর্মকর্তা, সিনিয়র সিস্টেম এনালিস্ট, প্রোগ্রামার এর মিথ্যা পরিচয় দিয়ে এইচএসসি পরীক্ষা-২০১৮ সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যা সমাধান ও ফল পরিবর্তন করে দেওয়ার কথা বলে বিকাশ নম্বর ও বিভিন্ন মাধ্যমে অর্থ দাবি করে প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড অব্যাহত রেখেছে। এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার বিকালে কোতয়ালী মডেল থানায় জিডি করা হয়।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের সচিব প্রফেসর মো. আবদুস সালাম নতুন কুমিল্লাকে জানান, প্রতারকচক্রটি বোর্ডের পদস্থ কর্মকর্তাদের নাম-পদবী ব্যবহার করে বোর্ডের অধীন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের মোবাইল নম্বরে ফোন করে শিক্ষক নিয়োগ ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের পাবলিক পরীক্ষার ফল পরিবর্তনসহ নানা অজুহাতে টাকা দাবি করে প্রতারণা করছে।

এসব বিষয় জানার পর সংশ্লিষ্ট সকলকে সতর্ক থাকার জন্য বোর্ডের নোটিশ বোর্ডে এবং ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশসহ প্রতারকচক্রের সদস্যদের সনাক্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কোতয়ালী মডেল থানায় জিডি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাছির উদ্দিন মৃধা নতুন কুমিল্লাকে জানান, তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রতারক চক্রটিকে সনাক্ত করে তাদের গ্রেফতারের জন্য প্রচেষ্টা চলছে।

(নতুন কুমিল্লা/জেপি/এইচএম/০৩ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন