কুমিল্লা
রবিবার,১৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ৩ শাওয়াল, ১৪৪২

বাঁশ চিকিৎসায় পা হারাচ্ছে কুমিল্লার স্কুলছাত্র সোহাগ

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন স্কুলছাত্র সোহাগ। ছবি: নতুন কুমিল্লা

কুমিল্লার দেবিদ্বারে বাঁশ দিয়ে হাঁড় ভাঙার চিকিৎসা করায় পা হারাতে বসেছেন সোহাগ নামে এক স্কুলছাত্র। অপচিকিৎসার কারণে ভাঙা পা অন্য পায়ের চেয়ে চার ইঞ্চি ছোট হয়ে যাওয়ায় ছেলেটি এখন পঙ্গু হওয়ার পথে। ভুক্তভোগী সোহাগ দেবিদ্বার উপজেলার মঘপুস্করণী গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে ও স্থানীয় বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র।

সোহাগের পরিবার সূত্র জানায়, গত ২৭ মার্চ দেবিদ্বার মোহাম্মদপুর সেরাজুল হক কলেজ মাঠে ক্রিকেট খেলতে গিয়ে চোট লেগে সোহাগের ডান পা ভেঙে যায়। তাকে চিকিৎসার জন্য দেবিদ্বারের কথিত জসিম ডাক্তারের পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসা দেন এনামুল হক ও মামুনুর রশিদ।

তিন মাস চিকিৎসার পর দেখা যায় তার হাঁড় শুকিয়ে পা ছোট হয়ে গেছে। পরবর্তীতে গত ২৩ জুন সোহাগকে ময়নামতি ক্যান্টনমেন্ট জেনারেল হাসপাতালে ডা. শাহনেওয়াজ খানের তত্ত্বাবধানে ভর্তি করা হয়।

ডা. শাহনেওয়াজ নতুন কুমিল্লাকে জানান, ভুল চিকিৎসার কারণে সোহাগের হাঁড় জোড়া লাগেনি। এতে হাঁড় শুকিয়ে পা ছোট হয়ে গেছে। রোগীর পুরাতন ব্যান্ডেজ খোলার পর দেখা যায় ভিতরে বাঁশের চাটি দিয়ে মোড়ানো। চাটির আঘাতে তার ভাঙা পায়ে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, জসিম ডাক্তারের সরকারি কোনো সনদ নেই। তিনি দীর্ঘদিন ধরে দেবিদ্বার উপজেলায় হাঁড় ভাঙা রোগীর চিকিৎসা করে আসছেন। তার ‘ভুল’ চিকিৎসায় অনেকে পঙ্গুত্ববরণ করছেন।

এ বিষয়ে জানতে ডাক্তার জসিম উদ্দিনের মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তার ব্যবহৃত ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

কুমিল্লার সিভিল সার্জন ডা. মুজিবুর রহমান নতুন কুমিল্লাকে জানান, সরকারি অনুমোদন না থাকায় গত ২৬ জুন হাসপাতালটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে ওই চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

(নতুন কুমিল্লা/জেপি/এইচএম/০৫ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন