কুমিল্লা
বুধবার,২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৭ আশ্বিন, ১৪২৮ | ১৪ সফর, ১৪৪৩

জনসংখ্যা বিস্ফোরণই দেশের এক নম্বর সমস্যা

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। ফাইল ছবি

বাংলাদেশ প্রতিদিনে ১ জুলাই ২০১৮ তারিখে প্রকাশিত ‘টাইম বোমার ওপরে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশ’— শিরোনামের লেখাটির জন্য লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমানকে ধন্যবাদ জানাই। তিনি এবং আমি দুজনই সেনাবাহিনীর সদস্য ছিলাম এবং দুজনই একই পদে অধিষ্ঠিত হয়েছি। আজ আমাদের রাজনৈতিক মত ও পথ ভিন্ন হলেও দেশের একটি গুরুতর সমস্যাকে এক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখছি। অন্তত উল্লিখিত শিরোনামের লেখাটি পড়ে আমি এ কথাই মনে করছি।

যখন রাষ্ট্রক্ষমতায় ছিলাম, জনসংখ্যা বৃদ্ধির সমস্যাকেই এক নম্বর জাতীয় সমস্যা হিসেবে দেখেছিলাম। এই সমস্যাকে শুধু আমি নই, গোটা বিশ্বই ভয়াবহ সমস্যা হিসেবে দেখেছে এবং এখনো দেখছে। দুঃখজনক হলেও সত্য, বর্তমান বাংলাদেশ এটাকে এখন মনে হয় সমস্যা হিসেবে দেখছে না। এখন যা শুনছি তা হলো, জনসংখ্যাকে জনসম্পদে রূপান্তরিত করতে হবে। আমি এ প্রসঙ্গেই কিছু কথা বলতে চাই।

জনসংখ্যা বিস্ফোরণ সমস্যা নিয়ে কথা বলতে হলে কিছু তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরতে হয়। জেনারেল মাহবুবের লেখায় তার যথেষ্ট ব্যবহার হয়েছে। তাই একই পত্রিকায় প্রকাশার্থে লেখার মধ্যে প্রকাশিত তথ্য আর উল্লেখ করতে চাই না। তবে আমি যেহেতু এই সমস্যাটা নিয়ে প্রতিনিয়ত ভাবছি এবং সমাধানের উপায় খুঁজছি, তাই বাংলাদেশের জনসংখ্যার সামগ্রিক চিত্র, তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করি এবং সমস্যাবলি প্রত্যক্ষ করার চেষ্টা করি।

আমাদের কথিত জনসম্পদের যে কী করুণ চিত্র চোখে দেখা যায়, তা যদি নীতিনির্ধারকরা তাকিয়ে দেখার চেষ্টা করেন তাহলেঅবশ্যই সমস্যা সমাধানেরও চেষ্টা করতেন। জনসংখ্যা বৃদ্ধিতে বাংলাদেশ এখন যদি টাইম বোমার ওপর দাঁড়িয়ে থাকে, আগামী দশ-বিশ-পঞ্চাশ বছর পরের বাংলাদেশ কীসের ওপর দাঁড়াবে— সে কথা ভাবতেও শিউরে উঠতে হয়।

আজ থেকে ৩৫ বছর আগে আমি ৫০ বছর পরের বাংলাদেশের কথা ভেবেছিলাম। সেই ভাবনার মধ্যে আমাদের উন্নয়ন, অগ্রগতি এবং দেশ ও জাতির স্বাচ্ছন্দ্য জীবনধারার পথে যে কাঁটা আমি দেখেছিলাম তারই নাম ছিল ‘জনসংখ্যা বিস্ফোরণ’। তখন আমি দেশবাসীকে বলেছিলাম, একটি সন্তান গ্রহণই উত্তম ও মঙ্গল; তবে দুটির অধিক কোনোভাবেই নয়। এই নীতিকে আমি জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে রাখার কর্মসূচি হিসেবে গ্রহণ করেছিলাম।

সেখানে আমি সফল হয়েছিলাম বলেই জাতিসংঘ থেকে দুবার পুরস্কার লাভ করেছি। এটা ছিল আমার তথা আমার সরকারের বিরল আন্তর্জাতিক সম্মান। জনসংখ্যার বৃদ্ধির হার শূন্য শতাংশে নিতে পারিনি এ কথা সত্য, কিন্তু বৃদ্ধির হারকে দশমিকের ডানে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছিলাম। জন্মনিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাদি বিনামূল্যে ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিলাম। ব্যাপক প্রচারের মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করে তুলেছিলাম।

ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানের মধ্যেও জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের মাহাত্ম্য তুলে ধরার ব্যবস্থা করেছি। গত ২৭ বছর ধরে এটা একেবারে অনুপস্থিত। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের যে প্রয়োজন আছে, মানুষ তা প্রায় ভুলতে বসেছে। আমার ক্ষমতা ছেড়ে দেওয়ার পরে যাদের জন্ম হয়েছে, তাদের বয়স এখন ২৭ বছর। পরিণত যৌবন তাদের। সন্তান জন্মদানের সময়ের মধ্যে এখন তাদের অবস্থান। কিন্তু পরিকল্পিত সন্তান গ্রহণের মতো সচেতনতা তাদের অনেকের মধ্যে নেই। সচেতনতা সৃষ্টির কোনো প্রচার নেই। জন্মনিয়ন্ত্রণসামগ্রী বিনামূল্যে পাওয়া তো দূরের কথা, উচ্চমূল্যেও সব ওষুধের দোকানে পাওয়া যায় না।

১৯৭১ সালে দেশ যখন স্বাধীন হয়, তখন আমাদের জনসংখ্যা ছিল ৭ কোটি ১০ লাখ। অর্থাৎ তখনই দেশে জনঘনত্ব ছিল প্রতি বর্গমাইলে প্রায় ১২৮৮ জন। সে সময়ও বাংলাদেশ ছিল বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে জনঘনত্বের দেশ। সেটাও আমাদের জন্য কিছুটা সহনশীল মাত্রার মধ্যে ছিল। কারণ, হাজার বছরের ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যাবে আমাদের মাটির প্রতি লোভ বহিরাগত জাতিরাও সামলাতে পারেনি। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যাদেরই আগমন ঘটেছে এখানে, তারা স্থায়ীভাবে আমাদের দেশে বাস করতে চেয়েছেন।

ফলে বিশ্বের অন্যান্য যে কোনো অঞ্চলের চেয়ে বাংলা ভূখণ্ডে মানুষ বেড়েছে দ্রুতহারে। যা হোক, সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের যাত্রা হয়েছিল ওই ৭ কোটি ১০ লাখ মানুষকে নিয়ে। আমি যখন ১৯৮২ সালে ক্ষমতা গ্রহণ করি, তখন বাংলাদেশের জনসংখ্যা ১০ কোটি ছুঁই ছুঁই। যখন ক্ষমতা ছেড়ে দিয়েছি তখন সেই সংখ্যা ১০ কোটিতে উপনীত হয়েছে। সেই জনসংখ্যাকেও আমি সহনশীলতার মধ্যে রাখতে সক্ষম হয়েছিলাম। জনসংখ্যা তখনই বোঝা হয়ে দাঁড়ায় যখন দেশে কর্মসংস্থান থাকে না, বেকারত্ব অভিশাপ হয়ে দেখা দেয়, খাদ্যাভাব থাকে, পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা পাওয়া যায় না, শিক্ষার সুযোগ থাকে না ইত্যাদি সব কারণে। যেভাবেই হোক, নয় বছরে আমি ওইসব কারণ সৃষ্টি হতে দিইনি।

জাতিসংঘের হিসাব অনুসারে ২০১৩ সালে বাংলাদেশের জনসংখ্যা ছিল ১৫ কোটি ৬৫ লাখ। ২০১৮ সালের মার্চ পর্যন্ত হিসাব অনুসারে ধরা হয়েছে, বাংলাদেশের আনুমানিক জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৬৩ লাখ ৭০ হাজার। অর্থাৎ সোয়া চার বছরে বাংলাদেশের জনসংখ্যা বেড়েছে প্রায় ১ কোটি। জনসংখ্যা অনুসারে বাংলাদেশের ঘনত্ব এখন প্রতি বর্গমাইলে ৩ হাজারের ওপরে। বিশ্বে অনেক শহর আছে সেখানেও এত জনঘনত্ব নেই।

আর আমাদের শহরের কি অবস্থা? রাজধানী ঢাকার লোকসংখ্যা এখন কত? পরিসংখ্যান ব্যুরো থেকে যে পরিসংখ্যান পাওয়া যায়, তাতে বলা হয়েছে, ঢাকায় ১ কোটি ৩০ লাখ মানুষ স্থায়ীভাবে বসবাস করছে। আর ২৫ থেকে ৩০ লাখ লোক প্রতিদিন নানা কাজে ঢাকা শহরে প্রবেশ করে, আবার শহর থেকে বেরিয়ে যায়। আমি যখন প্রাদেশিক ব্যবস্থা নিয়ে গবেষণা করছিলাম তখন এক রিপোর্টে দেখেছিলাম যে, প্রতিদিন ঢাকা শহরে যত মানুষ প্রবেশ করে তার মধ্য থেকে ২ হাজার ৭০০ মানুষ শহরে থেকে যাচ্ছে।

অর্থাৎ জন্মহার বাদেও রাজধানীতে প্রতিদিন ২ হাজার ৭০০ মানুষ গড়ে বেড়েই চলছিল। নিশ্চয় ২০ বছর আগের সেই হিসাব এখন চলবে না। এ সংখ্যা অবশ্যই আরও বেড়েছে। কারণ, বেকারত্ব ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। মানুষ ঢাকায় আসে কাজের সন্ধানে। কেউ আসে পড়াশোনা বা চাকরির জন্য। জাতিসংঘের হিসাব অনুসারে ঢাকা শহরের জনসংখ্যা এখন ১ কোটি ৪৪ লাখ। সিটি করপোরেশনের আয়তন অনুসারে রাজধানী ঢাকায় প্রতি বর্গমাইলে ৫০ হাজার ৩৬৮ জন মানুষ বাস করে।

অথচ এই ৫০ হাজার মানুষের বসবাসের জন্য নেই প্রয়োজনীয় রাস্তাঘাট, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, নেই পানীয় জলের ব্যবস্থা, নেই হাসপাতাল, নেই ডাক্তার, নেই প্রয়োজনীয় গণপরিবহন। অথচ বিশ্বের মধ্যে বাস-অনুপযুক্ত এই শহরে আমাদের বাস করতে হচ্ছে এবং ঢাকামুখী মানুষের স্রোত দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে। মানুষ বেশি আসছে কাজের সন্ধানে।

আমি সংসদে বহুবার বলেছি, জনসংখ্যাকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হোক। এটা সম্ভব। আমার বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে বলেছি। জনসংখ্যা বিস্ফোরণে আমরা বিশ্বের কাছে হাস্যকর হয়ে যাচ্ছি। বিদেশে আমরা মর্যাদা হারাচ্ছি। প্রত্যুত্তরে শুনেছি, জনসংখ্যাকে নাকি জনসম্পদে রূপান্তরিত করা হবে। এখন আমাদের নাগরিকদের যে পরিণতি বরণ করতে হচ্ছে, সেটাই কি জনসম্পদের নমুনা? চাকরির একটি খালি পদে গড়ে হাজারের বেশি প্রার্থী থাকে।

চাকরি থেকে এই বঞ্চিত প্রার্থীরা কী করবে। নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা বছরের পর বছর ধরে বিনা বেতনে কাজ করেন, বেতনের জন্য আন্দোলন করেই যাচ্ছেন। প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পরও অর্থের অভাবে তাদের এমপিওভুক্ত করা হচ্ছে না। নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ যদি বন্ধ হয়ে যায় তাহলে দেশের লাখো লাখো ছাত্রছাত্রীর শিক্ষাজীবনে কী ঘটবে? এটাই কি আমাদের জনসংখ্যাকে জনসম্পদে পরিণত করার প্রক্রিয়া?

আমাদের কর্মক্ষম নাগরিকরা কাজের সন্ধানে চোরাপথে বিদেশে যেতে গিয়ে সাগরে ডুবে মরছে, আবার পালিয়ে কোনো দেশে পৌঁছতে পারলে সেখানে গিয়ে গণকবরে ঠাঁই হচ্ছে। মানুষ পশুর প্রতি যে আচরণ করতে পারে না, কাজের জন্য অন্য দেশে গিয়ে আমাদের মানুষরা তার চেয়েও জঘন্য আচরণের শিকার হচ্ছে।

আমাদের দেশের নারীরা, যাদের স্বামী-সন্তান-সংসার নিয়ে কিংবা দেশের কল্যাণে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা, তাদের কেন বিদেশে ঝির কাজ করতে যেতে হচ্ছে? আর যাওয়ার পর তাদের কী পরিণতি হচ্ছে? তাদের যৌন নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে। তাদের শারীরিক নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে। ইজ্জত-সম্মান-সম্ভ্রম সব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে মুখ ঢেকে তাদের দেশে ফিরতে হচ্ছে। আমাদের দেশে জনসংখ্যা বাড়িয়ে সেই জনগোষ্ঠীকে এভাবে করুণ পরিণতির পথে ঠেলে দেব?

রোহিঙ্গাদের দিকে আমাদের একটু ফিরে তাকাতে হবে। তাদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন আমরা মানবিক দৃষ্টি থেকে বিবেচনা করি। তাদের আশ্রয় দিয়ে আমরা মানবতার কাজ করেছি। এই আশ্রিত জনগোষ্ঠী আমাদের জন্য একটি বড় সমস্যাও বটে। রোহিঙ্গাদের হেয় চোখে দেখা হয় শুধু একটি কারণে। তা হলো তাদের জন্মহার। বলা হয় রোহিঙ্গারা তিন বছরে দ্বিগুণ হয়। অর্থাৎ একটি সক্ষম রোহিঙ্গা দম্পতি গড়ে তিন বছরের মধ্যে দুটি করে সন্তান জন্ম দেয়। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে।

চার-পাঁচ বছর তারা আমাদের দেশে অবস্থান করলে তাদের সংখ্যা ২০ লাখে উন্নীত হবে। তাদের মধ্যে শিক্ষা নেই। তারা কোনোভাবেই জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করে না। তাদের বোঝানো হয়েছে, সন্তান উৎপাদন করতে হবে। যত সন্তান জন্ম হবে, তত তার সওয়াব হবে। একটি সূত্রে শুনেছি, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যারা আছে তারা বোতলজাত মিনারেল ওয়াটার খায় না। কেউ তাদের বুঝিয়েছে এই পানি খেলে সন্তান হবে না এবং গর্ভের সন্তানও নষ্ট হয়ে যাবে। এ রকম কুশিক্ষা থেকে তাদের কীভাবে রক্ষা করা যাবে?

প্রথম আলোর ২৪ জুন ২০১৮ তারিখে ‘আমরা মানুষ না ইঁদুর’ শিরোনামের লেখাটিও আমি গভীর মনোযোগের সঙ্গে পড়েছি। সেখানে মার্কিন সমাজবিজ্ঞানী জন ক্যালহুনের ‘মাউস প্যারাডাইস’ নামের গবেষণার কাহিনীও আমি জেনেছি। চার পায়ের প্রাণীদের মধ্যে ইঁদুরের জন্মহার সবচেয়ে বেশি। সেই প্রাণীটি একটি নির্দিষ্ট সীমাবদ্ধ জায়গার মধ্যে অধিক সংখ্যায় থাকলে কী অবস্থা হয়, তা জানা বোঝা এবং দেখানোর জন্য ওই গবেষণাটি করা হয়েছে।

এটি বর্তমান বিশ্বের মানবসমাজের জন্য একটি উপযুক্ত শিক্ষা। পাশ্চাত্য দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার একেবারেই কম। তাদের জায়গা আছে, অর্থনৈতিক স্বাচ্ছন্দ্য আছে, কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও আছে; তথাপিও পপুলেশন গ্রোথ তারা একটা নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে রাখার চেষ্টা করে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার সবচেয়ে মধ্যপ্রাচ্যে বেশি। তাদের সম্পদ আছে অনেক, বিপুল ভূমি অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে, কিন্তু সেই তুলনায় তাদের জনসংখ্যা নেই।

তাদের জনসংখ্যা বৃদ্ধির প্রয়োজন আছে। তার পরও দেখা যাচ্ছে অনেক দেশ তাদের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার কমিয়ে আনছে। মধ্যপ্রাচ্যের মধ্যে তথা গোটা বিশ্বের মধ্যে কাতারে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল সবচেয়ে বেশি। ২০১৪ সাল পর্যন্ত কুয়েতে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল ১৪.৯৩ শতাংশ, ২০১৭ সালের দিকে এ হার ৬.৬৫ শতাংশে নামিয়ে এনেছে। এখন ২০২০ সালে তাদের টার্গেট রয়েছে ২.৩৬ শতাংশে নামিয়ে আনা।

সংযুক্ত আরব আমিরাতে ২০১৪ সাল পর্যন্ত সংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল ১১.৮২ শতাংশ। সে হার বর্তমানে ২.০৩ শতাংশে নেমে এসেছে। আশা করা হচ্ছে ২০২০ সালে ইউনাইটেড আরব আমিরাতে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩৯ শতাংশে নেমে আসবে। অন্যদিকে ইউকে বা ইউএসএসহ উন্নত বিশ্বের অনেক দেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১ শতাংশের নিচে। বুলগেরিয়া, বসনিয়া, আলজেরিয়া, ক্রোয়েশিয়া, হাঙ্গেরি, ইতালি, জাপান, লাটভিয়া, লিথুয়ানিয়া, মলডোভা, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, রোমানিয়া, সার্বিয়া, ইউক্রেন এসব দেশে জনসংখ্যা কমানো হচ্ছে— তারা মাইনাসে আছে।

আমাদের বাংলাদেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৬ শতাংশের মধ্যে আছে। দেশ বিবেচনায় এই বৃদ্ধির হার বিপজ্জনক না দেখালেও কতটুকু দেশের মধ্যে, কত মানুষের মধ্যে এই বৃদ্ধির হার আছে তা বিবেচনা করতে হবে। প্রতি বছর যদি আমাদের জনসংখ্যার মধ্যে নতুন করে ২০ লাখেরও বেশি মানুষ যুক্ত হয়, তাহলে সে ভার দেশ কীভাবে বহন করবে? ১৮ বছর বয়সের একজন যুবককে আমরা কর্মক্ষম বিবেচনা করি। তাহলে ২০১৮ সালে যে শিশুরা জন্মগ্রহণ করবে ২০৩৬ সালে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হবে। প্রাপ্ত হিসাব অনুসারে এখন দেশে ২ কোটিরও বেশি শিক্ষিত বেকার রয়েছে। আগামী বছর সেখানে আবারও যুক্ত হবে ২০ লাখ। এ অবস্থায় দেশকে, দেশের যুবসমাজকে রক্ষা করা যাবে কীভাবে?

এ কথা বলতে চাই না, জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার শূন্যের কোঠায় নিয়ে আসতে পারলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। তাতে একটা বড় সমস্যার সমাধান হবে, তবে সব নয়। সব সমস্যার সমাধান করতে হলে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের পাশাপাশি কিছু সংস্কারমূলক কর্মসূচিও গ্রহণ করতে হবে। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে শাসনতান্ত্রিক ও প্রশাসনিক সংস্কার। ঢাকা শহরকেন্দ্রিক বাংলাদেশকে ১ লাখ ৪৭ হাজার ৫৭০ বর্গকিলোমিটারের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে হবে। তার জন্য আমার প্রাদেশিক ব্যবস্থা প্রবর্তনের প্রস্তাবকে বাস্তবায়ন করতে হবে।

আমি এ বিষয়ে এখানে আলোচনা করতে চাই না। এখানে শুধু জনসংখ্যা সমস্যার মধ্যেই থাকতে চাই। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে আমরা চীনের দৃষ্টান্তও গ্রহণ করতে পারি। বিশ্বের সর্ববৃহৎ জনসংখ্যার এই দেশটিতে এখন ১৩৪ কোটি মানুষ রয়েছে। কিন্তু সেখানে প্রতি বর্গকিলোমিটারে জনঘনত্ব মাত্র ১৩৯ জন। গত পাঁচ বছরে চীনে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারের পরিসংখ্যানে দেখা যায় পর্যায়ক্রমে ০.৪৯%, ০.৪৪% ০.৪৪% এবং ০.৫৭%। ২০২০ সাল নাগাদ চীনের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার হবে ০.৩৯ শতাংশ।

আমাদের দেশে সুষ্ঠু আদমশুমারি হচ্ছে না দীর্ঘদিন। আমরা সঠিকভাবে বলতে পারছি না আমাদের প্রকৃত জনসংখ্যা কত। জাতিসংঘের বিশ্ব জনসংখ্যা পরিস্থিতির প্রতিবেদনের ওপর আমাদের নির্ভর করতে হচ্ছে। এই যে বলা হয়, দেশের বর্তমান জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৬৪ লাখ, এটা যে একেবারে সঠিক তা নিশ্চিত করে বলতে পারব না। যে হারে জনসংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে, সে হিসাবে ধরা যায় দেশের জনসংখ্যা এখন ১৭ কোটির ওপরে।

এ সংখ্যাটিকে আমাদের মতো একটি ছোট দেশে শুধু টাইম বোমা বললে কম সমস্যাই মনে হবে। আমরা অনেক ক্ষেত্রেই টাইম বোমার ওপর দাঁড়িয়ে আছি। জনসংখ্যা যেভাবে জ্যামিতিক হারে বাড়ছে, এর লাগাম টেনে ধরতে না পারলে আগামী দিনের বাংলাদেশের প্রজন্মের মাথার ওপর পারমাণবিক বোমাই ঝুলতে থাকবে। আমি মনে করি অন্তত আগামী ২০ বছর আমাদেরও চীনের মতো এক দম্পতির একটি সন্তানই যথেষ্ট— এই নীতির পক্ষে সচেতনতা সৃষ্টি করতে ব্যাপক প্রচার এবং প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন। জনবিস্ফোরণকে দেশের এক নম্বর সমস্যা হিসেবেই বিবেচনা করতে হবে। যে সম্পদ কাজে লাগে না তা বোঝা হয়েই দাঁড়ায়।

লেখক : সাবেক রাষ্ট্রপতি।

আরও পড়ুন