কুমিল্লা
সোমবার,২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
১৩ আশ্বিন, ১৪২৭ | ৯ সফর, ১৪৪২

প্রসিডেন্ট’স স্কাউট অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত কুমিল্লার মাহমুদ

প্রেসিডেন্ট’স স্কাউট অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত মাহমুদুল হাসান (মাঝে) এর সাথে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এসএম শেখ কামাল ও সাংবাদিক আকবর হোসেন।ছবি: নতুন কুমিল্লা

মনোহরগঞ্জ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী লক্ষণপুর নুরুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসান ২০১৭ সালে জাতীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট’স স্কাউট অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হয়েণে।

শীঘ্রই মাহমুদুল হাসান বঙ্গভবনে গিয়ে আনুষ্ঠানিকতার মাধ্যমে মহামান্য রাষ্ট্রপতির হাত থেকে প্রেসিডেন্ট’স স্কাউট অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করবে। তার এই সফলতার জন্য পুরো প্রতিষ্ঠানজুড়ে বইছে আনন্দের জোয়ার।

এই অর্জন মনোহরগঞ্জ উপজেলায় প্রথম। মাহমুদুল হাসান পার্শ্ববর্তী নাঙ্গলকোট উপজেলার পদুয়া গ্রামের কুতুব উদ্দিনের ছেলে। মাহমুদুল হাসান চলতি বছর এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ৩.৯৪ অর্জন করেছে। সে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ালেখার পাশাপাশি স্কাউটে প্রবেশ করে।

দুই ভাই একবোনের মধ্যে সে বড়। তার বাবা……লক্ষনপুর বাজারে দর্জির দোকান দেয়। তার মা কোহিনুর আক্তার একজন গৃহিণী।

তার সফলতার খবর শুনে অভিনন্দন জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার দাউদ হোসেন চৌধুরী, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সৈয়দ মোঃ তৈয়ব হোসেন, উপজেলা স্কাউট কমিশনার মাষ্টার আবদুল কাইয়ুম চৌধুরীসহ আরো অনেকে।

মাহমুদুল হাসান নতুন কুমিল্লাকে জানান, আমি স্কাউটে ভর্তির পর প্রথমে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করি। এরপর একটি উপজেলা ক্যাম্প ও একটি জেলা ক্যাম্প করি। একদিন আমার প্রধান শিক্ষক এসএম শেখ কামাল স্যার ও স্কাউট শিক্ষক আবু হানিফ স্যার আমাকে বলেন, তুমি পিএস (প্রেসিডেন্ট’স স্কাউট) দিতে রাজি কিনা। আমি রাজি হলাম।

তারপর স্কাউট স্যার আমার কাছ থেকে তথ্য নিয়ে ফরম পূরণ করেছে। মনোহরগঞ্জ উপজেলা থেকে আমরা মোট ১২ জন অংশগ্রহণ করি। প্রথমে জেলা পর্যায়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের পর উপজেলা থেকে আমরা দুইজন উত্তীর্ণ হই। পরে আঞ্চলিক পরীক্ষায় মনোহরগঞ্জ উপজেলা থেকে একমাত্র আমি উত্তীর্ণ হয়েছি। তারপর জাতীয় পর্যায়ে পরীক্ষা দিয়ে আমি চূড়ান্তভাবে প্রেসিডেন্ট’স স্কাউট অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার জন্য মনোনীত হয়েছি।

আমি ভবিষ্যতে সার্বিক সহযোগিতা পেলে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে সেনাবাহিনীর কমিশন পদে চাকুরি করতে চাই। সেজন্য সকলের নিকট দোয়া চাই। আমার এতবড় অর্জনের পিছনে আমার শিক্ষক মন্ডলী ও আমার মা-বাবার অবদান সবচাইতে বেশি। আমি আমার শিক্ষকদের প্রতি ও আমার মা-বাবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা স্কাউটের সাধারণ সম্পাদক এসএম শেখ কামাল নতুন কুমিল্লাকে জানান, আমাদের বিদ্যালয়ের ছাত্র মাহমুদুল হাসানকে নিয়ে আমরা গর্ব করছি। মাহমুদুল হাসান এ পর্যন্ত যতগুলো পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে আমি ব্যক্তিগতভাবে ও প্রতিষ্ঠান থেকে তাকে অর্থনৈতিক সহযোগিতা করেছি।

তার পড়ালেখার ব্যাপারেও আমরা সবসময় প্রতিষ্ঠান থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছি। প্রেসিডেন্ট’স স্কাউট অ্যাওয়ার্ডে মনোনীত হয়ে সে শুধু আমাদের প্রতিষ্ঠানের নয় পুরো মনোহরগঞ্জ উপজেলার মুখ উজ্জ্বল করেছে। আমরা তার উত্তোরোত্তর সফলতা কামনা করছি।

(নতুন কুমিল্লা/এমইইউ/এএইচ/০৫ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন