কুমিল্লা
শনিবার,২৪ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৮ কার্তিক, ১৪২৭ | ৬ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

কুমিল্লায় ইউপি সদস্যের হামলায় গ্রামছাড়া চার পরিবার

গ্রামছাড়া করার প্রতিবাদে চার পরিবারের সাংবাদ সম্মেলন কুমিল্লার চান্দিনা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি)এক সদস্যের হামলায় চার পরিবার গ্রামছাড়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার (৫ জুলাই) কুমিল্লার একটি রেস্তরাঁয় সংবাদ সম্মেলনে ইউপি সদস্য মো.ফারুকের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা।

গ্রামছাড়া পরিবারগুলো হচ্ছে– চান্দিনা উপজেলার শব্দলপুর গ্রামের মো. আবদুল্লাহ, আবু তাহের, হাবিবুল্লাহ ও শফিউল্লাহর পরিবার। অভিযুক্ত ফারুক স্থানীয় বাতাঘাসী ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও শব্দলপুর গ্রামের বাসিন্দা।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ১০ বছরে পরিবারগুলোর ওপর ১২ বার হামলা চালানো হয়েছে। গত ২০ জুন মো. আবদুল্লাহর ছেলে আল আমিন এবং তাজুল ইসলামের ওপর হামলা চালানো হয়। আল আমিনের দুই পা কুপিয়ে ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে। তাজুল ইসলামের মাথায় আঘাত করা হয়েছে।

আহত আল আমিন জানান,ফারুক মেম্বার একটি মিথ্যা দলিল তৈরি করে তাদের জায়গা দখল করে নিয়েছে। এনিয়ে আদালতে মামলা চলছে। সম্প্রতি তাদের পুকুরের মাছ ধরতে আসে ফারুক ও তার ভাই মোরশেদ আলমসহ বেশ কয়েকজন। এসময় তাদের বাধা দেওয়া হলে আলামিনদের ওপর হামলা করে তারা। ফারুক মেম্বার প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ তার বিরুদ্ধে কথা বলা যায় না বলেও জানান আহত আল আমিন।

শব্দলপুর গ্রামের বাসিন্দা বাতাঘাসী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শাহজাহান সিরাজ বলেন,‘ফারুক একটি মিথ্যা দলিল বানিয়ে আল আমিনদের পরিবারের জায়গা দখল করে থাকে। তাদের অন্য জমিও ফরুক দখল করার চেষ্টা করছে। ফারুকের হামলার ভয়ে আল আমিনদের লোকজন আত্মীয়দের বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছে।’

বাতাঘাসী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান বলেন,‘দীর্ঘদিন ধরে দুপক্ষের মধ্যে মামলা চলছে। আমরা চেষ্টা করেও সমাধান করতে পারিনি।’ ফারুকের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,‘সে অপরাধী হলে সাজা পাবে।’ এর বাইরে তিনি আর কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য ফারুকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার তিনটি ফোন নম্বরই বন্ধ পাওয়া যায়। বন্ধ পাওয়া যায় ফারুকের ভাই মোরশেদ আলমের ফোন নম্বরও ।

এ বিষয়ে চান্দিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ শামছুল আলম নতুন কুমিল্লাকে বলেন, ‘আল আমিনদের পরিবারের ওপর হামলার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ফারুক মেম্বার খারাপ মানুষ। তার বিরুদ্ধে মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে। আসামি গ্রেফতারে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

(নতুন কুমিল্লা/এসআই/ইএফ/০৫ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন