কুমিল্লা
শনিবার,১৫ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ | ২ শাওয়াল, ১৪৪২

ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে মারামারি: স্কুলছাত্র নিহত

ফেসবুক স্ট্যাটাস নিয়ে মারামারি, মিলল স্কুলছাত্রের লাশ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ভবেরচরের পুকুর থেকে নিখোঁজ স্কুলছাত্র শহিদুল ইসলাম শান্তর (১৬) মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। সে ভবেরচর ওয়াজের আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

শনিবার প্রথম সাময়িকের অঙ্ক পরীক্ষা শেষে দুপুরে দুই গ্রামের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় সে নিখোঁজ হয়। তাকে কোথাও খুঁজে না পেয়ে তার মা সাফিয়া ইসলাম রোববার সকালে থানায় জিডি করেন।

রোববার বিকেলে তার মরদেহ স্কুলের সড়কের পাশের পুকুরে ভেসে উঠে। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়। মরদেহ দেখে তার স্বজন এবং সহপাঠীরা কান্নায় ভেঙে পড়ে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

গজারিয়া থানা পুলিশের ওসি (অপরাশেন) মো. মামুন আল রশীদ জানান, শনিবার পরীক্ষা শেষে ভবেরচর ইউনিয়নের লক্ষ্মীপুড়া ও ভবেরচর কলেজ রোড এলাকার দুই দল শিক্ষার্থীদের মধ্যে মারামারি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় হয়তো আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে শান্ত পানিতে পড়ে যায় কিংবা তাকে আঘাত করে ফেলে দেয়া হয়। তদন্তে সব বেরিয়ে আসবে।

স্কুলছাত্র শান্তর সহপাঠী ও স্বজনরা জানায়, শুক্রবার ফেসবুকের একটি স্ট্যাটাস নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এর জের ধরেই বিদ্যালয়টির পরীক্ষা শেষে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও মারামারি হয়। ফেসবুকে একাধিক আইডি থেকে ছড়িয়ে দেয়া হয় ভবেরচরের কলেজ রোড ও পার্শ্ববর্তী লক্ষ্মীপুরা গ্রামের মধ্যে মারামারি চলছে।

শান্তর মা সফিয়া ইসলাম বলেন, শান্ত সকাল ১০টার কিছু আগে পরীক্ষার উদ্দেশ্যে বাসা থেকে বেরিয়ে যায়। কিন্তু পরীক্ষার পর মারামারির সংবাদ পেয়ে ছেলের খোঁজ নেন। খোঁজ না পাওয়ায় তিনি থানায় জিডি করেন।

বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য আলহাজ আব্দুল হান্নান সরকার বলেন, শান্ত মানবিক বিভাগের ছাত্র। তার নিখোঁজের ঘটনায় স্কুল কৃর্তপক্ষও যথাসাধ্য খোঁজ খবরসহ প্রয়োজনীয় সব চেষ্টা চালিয়েছে। কিন্তু তার মরদেহ উদ্ধারের পর শোকের ছায়া নেমে আসে বিদ্যালয়ে। সহপাঠীরা কান্নায় ভেঙে পড়ে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আক্তার হোসেন স্কুলছাত্রের এই মর্মান্তিক মৃত্যুর জন্য দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানিয়ে বলেন, এমন মৃত্যু কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। আমরা এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

আরও পড়ুন