কুমিল্লা
রবিবার,২৫ জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ শ্রাবণ, ১৪২৮ | ১৪ জিলহজ, ১৪৪২

দাউদকান্দিতে প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপহরণ, অতপর…

দাউদকান্দির গৌরীপুরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপহরণ, জোরপূর্বক অশ্লীল ছবি ও ভিডিও ফুটেজ ধারণ করে মুক্তিপণ দাবির অভিযোগে ভাই-বোনসহ কথিত প্রেমিকাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এর আগে গত ৬ জুলাই অপহরণ করা হয় উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ বাজারের বেকারী ব্যবসায়ী মোঃ জাকির হোসেনকে। তার স্ত্রীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে রবিবার রাতব্যাপী কয়েক দফায় অভিযান চালিয়ে কথিত প্রেমিকা পারভীন আক্তার প্রিয়াংকা, সহযোগী সুমাইয়া আক্তার ও তার ভাই শফিকুল রহমান অভিকে গ্রেপ্তার করে গৌরীপুর তদন্ত কেন্দ্র পুলিশ।

আটক তিনজনকে সোমবার (৯ জুলাই) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

গৌরীপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আ,স,ম, আব্দুন নূর নতুন কুমিল্লাকে জানান, একটি সাধারণ ডায়েরীর তদন্ত করতে গিয়ে বড় একটি প্রতারক চক্রকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। এ চক্রটি দীর্ঘদিন যাবৎ প্রেমের ফাঁদে ফেলে অশ্লীল ছবি ও ভিডিও রেকর্ড করে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করতো। ভুক্তভোগীরা মান-সম্মান বা লোকলজ্জার কারনে আমাদের কাছে আসতো না। এ ঘটনায় ৬ জনের নামে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ইনচার্জ আ,স,ম, আব্দুন নূর বলেন, রবিবার রাতের অভিযানে পুলিশ প্রথমে সুমাইয়া আক্তার ও তার ভাই শফিকুল রহমান অভিকে আটক করে। পরে তাদের দেওয়া তথ্য মতে গৌরীপুর ভুলির পাড়ের মোতালেব মিয়ার বাড়ি থেকে পারভিন আক্তার প্রিয়াংকাকে গ্রেফতার করা হয়।

পারভীন আক্তার প্রিয়াংকা লক্ষীপুর জেলার রামনগর থানার আইয়ানগর গ্রামের আনোয়ার হোসেনের মেয়ে। সুমাইয়া আক্তার ও শফিকুল রহমান অভি চান্দিনা উপজেলা দলপাড়া গ্রামের সৌদি প্রবাসী সফিউল্লাহর পুত্র ও কন্যা। জানা যায় গত ৬ জুলাই উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ বাজারে বেকারী ব্যবসায়ী জাকির হোসেন নিখোঁজ হন। ওইদিন রাতে তার স্ত্রী সেলিনা বেগম দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

ডায়েরী সূত্র ধরেই তদন্তে নামেন গৌরীপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের চৌকস অফিসার সহকারী উপ-পরিদর্শক ফিরোজ আহমেদ। এর মধ্যে ৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে বেকারী মালিকের ম্যানেজারের নিকট ফোন আসে।

ওই ফোন কলের সূত্র ধরে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে মাঠে নামেন ইনচার্জ আ,স,ম, আব্দুন নূরের নেতৃত্বে উপ-পরিদর্শক মোঃ শহিদুল ইসলাম ও সহকারী উপ-পরিদর্শক ফিরোজ আহমেদ। এর মধ্যে অপহরণকারীদের সাথে বিকাশে কিছু টাকা লেনদেন করা হয়। পুলিশী তৎপরতায় বিষয়টি আঁচ করতে পেরে অপহরণকারীরা পরদিন রাতে ছেড়ে দেয় ব্যবসায়ী জাকির হোসেনকে।

ছাড়া পেয়ে তিনি দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। জাকির হোসেনের দায়েরকৃত অভিযোগ মতে পারভীন আক্তার প্রিয়াংকার সাথে রং নাম্বারের পরিচয় সূত্র ধরে দেখা করতে আসেন গৌরীপুরে। পরে পারভীন আক্তার প্রিয়াংকা তাকে নিয়ে গৌরীপুর বাজারের আরজু মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া কুহিনুর বেগমের বাসায় নিয়ে যান।

সেখানে কোহিনুর বেগমের মেয়ে সুমাইয়া আক্তার ছেলে শফিকুর রহমান অভি সহ কয়েকজন জাকির হোসেনকে বাসা আটকে মারধর করে পারভিন আক্তার প্রিয়াংকার সাথে অশ্লীল ভঙ্গিতে ছবি ভিডিও রেকর্ড করতে বাধ্য করে। এরপরই তার কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা দাবি করে।

টাকা না দিলে ছবি ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়া হবে হুমকি দেয়। এই চক্রটি দীর্ঘদিন প্রেমের ফাঁদে ফেলে অপহরণ করে মানুষের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করে আসছেন। পুলিশও দীর্ঘদিন যাবৎ তাদের খুজছেন। অবশেষে পুলিশের তৎপরতায় তাদেরকে আইনের আওতায় আনা সম্ভব হলো।

(নতুন কুমিল্লা/এমসি/এসএইচ/০৯ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন