কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২২ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৬ কার্তিক, ১৪২৭ | ৩ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

অবাধে বৃক্ষনিধনসহ পরিবেশ দুষণের অভিযোগ:

লাকসামে অনুমোদন ছাড়াই চলছে শতাধিক করাত কল

লাকসাম পৌরসভার পশ্চিমগাঁও সোয়াছয়ানি পাড়ায় বাসা-বাড়ির পাশে করাত কল পরিচালনার দৃশ্য। ছবি: নতুন কুমিল্লা

লাকসামে অনুমোদন ছাড়াই চলছে শতাধিক করাত কল। কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলা ও লাকসাম পৌর শহরের আনাচে-কানাচে গড়ে ওঠা অনুমোদনহীন এসব করাত কল স্থাপনে মানা হচ্ছে না কোনো নিয়ম-নীতি। ফলে পরিবেশ ও শব্দদুষণসহ নানা জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে। এলাকায় যে-যার সুবিধামত স্থানে করাত কল স্থাপন করে দেদারছে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, আবাসিক এলাকা এমনকি অফিস-আদালতের অতি নিকটেই স্থাপন করা হচ্ছে এসব করাত কল। যার ফলে শব্দ দুষণসহ করাতের গুঁড়া বাতাসে ভেসে এসে মানুষজনের শ্বাসকষ্ট, হাঁপানিসহ নানা রোগ-বালাই সৃষ্টি করছে। আর রাস্তার পাশে গাছের গুড়ি ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখায় স্কুল-কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রী ও জনসাধারণের ভোগান্তিসহ যানবাহন চলাচলে মারাত্মক অসুবিধা হচ্ছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদন,পরিবেশ ছাড়পত্র কিংবা লাইসেন্স ছাড়াই চলছে লাকসাম পৌরসভা ও উপজেলার সিংহভাগ করাত কল। আবার এসব করাত কল ঘিরে গড়ে ওঠা এক শ্রেণির দালাল চক্র কৌশলে আশপাশের এলাকার লোকজনের কাছ থেকে অল্পদামে ক্রয় করে অবাধে অপরিপক্ক গাছপালা কেটে নিচ্ছে।

এতে একদিকে পরিবেশের ভারসাম্য বিনষ্ট হচ্ছে, অন্যদিকে আর্থিকভাবেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন গাছের মালিকরা। করাতকলগুলোতে গাছ আনা-নেয়ার কাজে ব্যবহৃত ঠেলাগাড়ি, ভ্যান, ভডভডি, ট্রাক্টরগুলোও রাস্তায় চলাচল করে বেপরোয়াভাবে। ঝুঁকিপূর্ণ এ যানবাহনগুলো রাস্তার ক্ষতিসাধনসহ জনসাধারণের চলাচলে ভোগান্তি সৃষ্টি করে।

অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় বনবিভাগের লোকজন ও প্রভাবশালীদের মাসোহারা দিয়ে এসব অবৈধ করাত কলগুলো চালানো হচ্ছে।

বন কার্যালয় সূত্র জানায়, ২০১৭ সালের হিসাব অনুযায়ী লাকসাম উপজেলায় ৫৫টি করাত কল রয়েছে। তম্মধ্যে লাইসেন্স রয়েছে মাত্র ৪/৫টির। কিন্তু বাস্তবে বর্তমানে শতাধিক করাত কল বিদ্যমান। লাকসাম পৌর শহর থেকে শুরু করে উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায় স্থানীয় প্রভাবশালীদের ইন্দনে গড়ে উঠা এসব করাত কল পরিচালনায় মানা হচ্ছেনা কোন নীতিমালা।

সরকারি প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘লাইসেন্স ব্যতিত কোন করাত কল স্থাপন বা পরিচালনা করতে পারবেন না’। কিন্তু ওইসব করাতকলের মালিকরা অনেকটা গায়ের জোরে মিল চালাচ্ছেন। অনেক সময় রাস্তায় চলাচলরত লোকজনের পাশ দিয়েই মোটা মোটা গাছের গুড়ি কাঁধে নিয়ে করাতে চড়াতে দেখা যায় শ্রমিকদের। এতে হতাহতের আশংকা থাকলেও কোনো প্রদক্ষেপ নেই তাদের।

লাকসাম পৌরসভার পশ্চিমগাঁও সোয়াছয়ানীপাড়ার অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারি মোস্তফা কামাল অভিযোগ করে নতুন কুমিল্লাকে বলেন, আমাদের বাসাবাড়ির পাশে দিঘীর কোনে জনৈক আবদুল খালেক সামান্য জায়গায় একটি করাত কল স্থাপন করে দীর্ঘদিন অবৈধভাবে পরিচালনা করছেন।

ত্রিমুখি রাস্তা ও আমাদের বসতবাড়ির আশপাশে গাছ ফেলে রাখায় মাত্র ৬০/৭০ গজ দূরে অবস্থিত স্কুল-মাদরাসায় যাতায়াতকারী ছাত্র-ছাত্রী ও মসজিদে যাতায়াতকারী মুসুল্লি এবং রাস্তায় জনসাধারণের চলাচলে মারাত্মক বিগ্নসহ করাতকলের শব্দ দুষণ, মিলে কর্মরত লোকজনের রাতদিন অশ্লীল বাক্য আর মিলের ধুলোবালি, করাতের গুঁড়োর কারণে দরজা জানালা খোলা রাখা যায় না। এ বিষয়ে লাকসাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা, উপজেলা ও বিভাগীয় বন কর্মকর্তা, কুমিল্লা পরিবেশ অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন কার্যালয়ে অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে।

অপরদিকে, আবদুল খালেকের পার্টনার কামরুল ইসলাম নতুন কুমিল্লাকে জানান, সবরকম অনুমোদন ও বৈধ কাগজপত্র নিয়ে আমাদের করাত কল চালাচ্ছি।

লাকসাম উপজেলা বন কার্যালয় সূত্র জানায়, উপজেলায় বর্তমানে ৭০/৮০টি করাত কল রয়েছে। ২০১৭ সালের হিসেব অনুযায়ী এ সংখ্যা ৫৫টি। তবে ৪/৫টি ছাড়া বাকি করাত কলের কোনো বৈধতা নেই। সংশ্লিষ্ট করাত কলের মালিকদের বার বার বলা সত্ত্বেও তারা লাইসেন্স করছেন না। এ বিষয়ে বন বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ ইসমাইল হোসেন নতুন কুমিল্লাকে বলেন, একটি করাত কলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ রয়েছে। তদন্ত করে এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। উপজেলা ও পৌরসভা এলাকার অন্যান্য অবৈধ করাত কলের বিরুদ্ধে বনবিভাগের সহযোগিতায় শীঘ্রই মোবাইল কোর্ট পরিচালনাসহ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

নতুন কুমিল্লা/জেপি/এমএকে/ ১০ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন