কুমিল্লা
শনিবার,২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৬ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

ছাতা মাথায় পরীক্ষা!

টিনের চালা দিয়ে টিপটিপ বৃষ্টি পড়ে। তাই পরীক্ষার খাতা বাঁচাতে শিক্ষার্থীরা ছাতা মাথায় দিয়ে পরীক্ষা দিচ্ছে। এমন ঘটনা ঘটেছে পিরোজপুরের ইন্দুরকানীর একটি মাদরাসায়। উপজেলার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন উত্তর-পশ্চিম কলারণ আজাহার আলী দাখিল মাদরাসার এবারের অর্ধ বার্ষিকী পরীক্ষা শিক্ষার্থীরা ছাতা মাথায় দিয়ে দিচ্ছে।

জানা গেছে, ইন্দুরকানীর ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি ১৯৭৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও সরকারিভাবে এখনও কোনো ভবন নির্মিত হয়নি। সেখানে স্থানীয় দানে তিনটি টিনশেড ঘরে কাঠের বেড়া দিয়ে তিন শতাধিক শিক্ষার্থীর পাঠদান চলে।

কিন্ত টিনের ছাউনিও দুই বছর ধরে বিভিন্ন স্থানে ছিদ্র হয়ে যাওয়ায় স্বাভাবিক বৃষ্টিতেই শ্রেণিকক্ষে পানি পড়ে। এতে ব্যাহত হয় পাঠদান। তার পরও বাধ্য হয়ে ছাতা মাথায় পরীক্ষা দিচ্ছে শিক্ষার্থীরা।

জরাজীর্ণ ওই প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা যায়, পশ্চিম পাশের একটি ঘরের ছয়টি কক্ষ পলিথিনের ছাউনি দিয়ে ঢাকা। এ ছাড়া অন্য শ্রেণিকক্ষগুলোতে টিনের চালা দিয়ে পানি পড়ায় শিক্ষার্থীরা কেউ কেউ ছাতা মাথায় দিয়ে আবার কেউবা বৃষ্টিতে ভিজে পরীক্ষা দিচ্ছে।

ওই মাদরাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ফাতিমা আক্তার জানায়, টিনের চালা দিয়ে পানি পড়ে পরীক্ষার খাতা ভিজে যাচ্ছে। তাই ছাতা মাথায় দিয়ে পরীক্ষা দিচ্ছি।
মাদরাসার সুপার মাওলানা আব্দুস সালাম জানান, মাদরাসার তিনটি কাঁচা ঘরের একটি পরিত্যক্ত। বাকি দুটির টিনের চালা দিয়ে পানি পড়ে। তাই শিক্ষার্থীরা ছাতা মাথায় দিয়ে পরীক্ষা দিচ্ছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মীর একেএম আবুল খায়ের জানান, ‘জরাজীর্ণ ভবনের বিষয়টি আমাদের নজরে আছে। এই প্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণের জন্য তালিকা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো আছে। বরাদ্দ সাপেক্ষে ভবন নির্মাণ করা হবে।’

আরও পড়ুন