কুমিল্লা
মঙ্গলবার,৫ জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
২১ আষাঢ়, ১৪২৯ | ৫ জিলহজ, ১৪৪৩
শিরোনাম:
‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি বিএনপি থেকে সাক্কুর পদত্যাগ কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে ৬ মেয়রসহ ১৫৪ প্রার্থীকে বৈধ ঘোষণা

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী কল্যাণ তহবিল গঠনের দাবি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) বিভিন্ন বিভাগে বেশ কয়েকজন শিক্ষর্থীদের মাঝে মরণঘাতী রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এদের চিকিৎসাসহ হতদরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের কল্যাণে সহযোগীতার জন্য শিক্ষার্থী কল্যাণ তহবিল গঠনের দাবি জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, গত এক-দেড় বছর ধরে কুবির একাধিক শিক্ষার্থী ব্লাড ক্যান্সার, কিডনি অকার্যকারিতার, লিভার জটিলতাসহ বিভিন্ন দুরারোগ্য মরণঘাতী ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়েছেন। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আসা মেধাবী শিক্ষার্থীদের কেউ কেউ অর্থাভাবে রোগের সঙ্গে লড়াই করে হেরে যাচ্ছে। মানবতার সেবায় নিয়োজিত কিছু স্বপ্নবাজ শিক্ষার্থীর অক্লান্ত পরিশ্রমের কারণে কেউবা আবার নতুন জীবন ফিরে পাচ্ছে। গত বছর তন্ময় নামে এক শিক্ষার্থী ক্যান্সার থেকে বেঁচে ফিরলেও জীবন যুদ্ধে হেরে গিয়েছে রাজেশ গোফ নামে আরেক শিক্ষার্থী।

এছাড়া বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে প্রলয় দাস ও মেহেদী হাসান নামে দুই শিক্ষার্থী। সম্প্রতি আরেকজন শিক্ষার্থীর মাঝে দেখা দিয়েছে মরণঘাতী ব্লাড ক্যান্সার।

এসব রোগের চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল হওয়ায় দরিদ্র এসব শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবারের পক্ষে চিকিৎসা খরচ বহন করা সম্ভব হয় না। শিক্ষার্থীদের ব্যয়ভার গোঁছাতে মাঠে নেমে ফান্ড সংগ্রহ করে অন্যান্য সহপাঠীরা। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকলে তা আর হয়ে উঠে না। এমন অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী কল্যাণ তহবিল থাকলে তার থেকে শিক্ষার্থীরা খুব দ্রুত সহায়তার সুযোগ থাকতো বলে মনে করে অন্যান্য শিক্ষার্থীরা।

ফান্ড গঠনের বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী নতুন কুমিল্লাকে বলেন, ‘এটি অবশ্যই একটি ভালো ও সময় উপযোগী উদ্যোগ। এটা নিয়ে প্রস্তাব আসলে তা অবশ্যই আমরা গুরুত্ব দিব।’

বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রার ড. মো. আবু তাহের বলেন, ‘অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় এ ধরণের ফান্ড থাকে। যেহেতু আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় নতুন তাই এখনো এ নিয়ে কোনো প্রকার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। তবে যেহেতু বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে উপাচার্য স্যারের সঙ্গে আলোচনা করে একটি কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার চেষ্টা করব।’

শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এনএম রবিউল আউয়াল চৌধুরী জানান, ‘বিশ্বের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে হেলথ ইন্সুরেন্স থাকে। কিন্তু আমাদের দেশে বিশ্ববিদ্যালয় তো দূরে থাক রাষ্ট্রীয়ভাবেও এ ধরণের কোনো ব্যবস্থা নেই। তবে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে সমসাময়িক অবস্থা বিবেচনা করে এ ধরণের একটি ফান্ড প্রবর্তন করা যায়। যেটা শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধির চিকিৎসায় সহায়তা করবে।

ক্যান্সার থেকে বেঁচে ফেরা শিক্ষার্থী তন্ময় বাংলানিউজকে বলেন, ‘এ ধরণের একটি ফান্ড গঠন খুবই জরুরি এবং ফান্ডের বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সর্বোচ্চ অংশগ্রহণের পাশাপাশি সঠিক ব্যবস্থাপনার প্রতিও খেয়াল রাখতে হবে।

(নতুন কুমিল্লা/জেপি/কেএম/১৭ জুলাই, ২০১৮)

আরও পড়ুন