কুমিল্লা
শুক্রবার,২৩ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৭ কার্তিক, ১৪২৭ | ৪ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

কুবিতে শিক্ষার্থীর উপর ছাত্রলীগের হামলার বিচার দাবী

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) শিক্ষার্থী ইকবাল খানের উপর হামলাকারীদের বিচারের দাবি করেছেন আহত শিক্ষার্থীর বাবা ও তার সহপাঠীরা। রবিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও প্রক্টর বরাবর পৃথক দুটি স্মারক লিপিতে এ বিচারের দাবি জানানো হয়।

উপাচার্য বরাবর স্মারক লিপিতে ইকবাল খানের বাবা ও স্থানীয় কাউন্সিলর ফজল খান উল্লেখ করেন, “আমার ছেলে রাজনীতি ও কোন রূপ উচ্ছৃঙ্খলতার সাথে জড়িত নয়। তা সত্ত্বেও গত ১৯ জুলাই দুপুরে ক্লাস শেষে বাড়ি ফেরার পথে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ তম ব্যাচের সালমান চৌধুরীর নেতৃত্বে এ.আই.এস বিভাগের ২০১৫-১৬ সেশনের দিপ্ত, ২০১৬-১৭ সেশনের মিরাজ ও হৃদয় এবং আই.সি.টি বিভাগের ২০১৬-১৭ সেশনের বুখারিসহ আরও অজ্ঞাত ১০-১৫ জন আমার ছেলেকে হত্যার উদ্দেশ্যে অতর্কিতভাবে হামলা করে।

অবিযোগ পত্রে আরও উল্লেখ করা হয় ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা কুমিল্লা সদর দক্ষিন থানার এস আই সোহরাব আমাকে বলেন, ঢাকায় বিশ্বজিতের উপর যে ভাবে হামলা করা হয়েছিল ঠিক একই কায়দায় হত্যার উদ্দেশ্যে আমার ছেলের ওপর প্রাণঘাতী হামলা চলানো হয়।” এদিকে প্রক্টর বরাবর তার সহপাঠীদের দেয়া আবিযোগ পত্রে হামলার অভিযুক্তের স্থায়ী বহিষ্কারের দাবি জানানো হয়।

গত বৃহস্পতিবার তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং বিভাগের ১১ তম ব্যাচের মাঈনুদ্দীন নামে এক শিক্ষার্থীর সাথে একই বিভাগের ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থী সালমান চৌধুরীর কথাকাটাকাটি হয়। ঘটনার সমঝোতার জন্য মাঈনুদ্দিন তার বিভাগের সিনিয়র ইকবালের কাছে মিমাংসার জন্য বললে এতে সালমান আরো উত্তেজিত হয়ে সেখান

থেকে চলে গিয়ে হল থেকে ৮-১০ জন নিয়ে ইকবালকে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকে বেধড়ক মারধর করে। এতে ইকবাল গুরুতর আহত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তার বন্ধুরা তাকে উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে আসে। পরে ডাক্তার তাকে কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তর করার পরামর্শ দেন। এ হামলাকারীদের অধীকাংশই ছাত্রলীগের পদধারী।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, ‘আমরা এটা গুরুত্বের সহকারে নিয়েছি। সত্য ঘটনা উদঘাটন করে দুষীদের যথাযথ বিচারের জন্য সুপারিশ করব।”

(নতুন কুমিল্লা/জেপি/এমআরএ/২২ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন