কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,৬ মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
২৩ বৈশাখ, ১৪২৮ | ২৩ রমজান, ১৪৪২

লাকসামে সামান্য বৃষ্টিতে স্বাস্থ্যকেন্দ্র আর রোগীর অবস্থা জুবুথুবু

জঙ্গলে ঘেরা লাকসাম স্বাস্থ্যকেন্দ্র।ছবি: নতুন কুমিল্লা।

নানা সমস্যা ঘিরে ধরেছে লাকসামের প্রায় দেড়শ’ বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিকে। এর প্রবেশ মূখে গুল্ম লতা-পাতাময় জঙ্গল। মূল ভবনের চারপাশেও জঙ্গলে ঘেরা। লাকসাম শহরের প্রাণ কেন্দ্রে থানা গেইটের মাত্র ২৫/৩০ গজ পশ্চিমে অবস্থিত এ স্বাস্থ্যকেন্দ্রে জঙ্গলময় কর্দমাক্ত রাস্তা মাড়িয়ে প্রতিদিন সেবা নিতে আসে বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষ ও শিশু-বৃদ্ধ। সামান্য বৃষ্টিতে মলমূত্র আর কাদাপানিতে একাকার হয়ে যাতায়াতের অযোগ্য হয়ে পড়ে প্রবেশ পথ। আর কেন্দ্রের অভ্যন্তরে বৃষ্টির পানি ঢুকে ওষুধপত্র ও যন্ত্রপাতিসহ চিকিৎসক-কর্মচারী এবং রোগীসাধারণ ভিজে জুবুথুবু হয়ে পড়েন।

জানা গেছে, জমিদার আমলে ৭০ শতক জায়গার উপর পুরাতন টিন শেড ও বাঁশের বেড়া দিয়ে নির্মিত এক সময়কার এ দাতব্য চিকিৎসালয়টি এখন লাকসাম উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্র নামে পরিচিত। উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি লাকসাম শহরের কেন্দ্রস্থলে অবস্থিত হলেও অজ্ঞাত কারণে উন্নয়নের ছোঁয়া পায়নি। আধুনিক স্থাপনা, সীমানা প্রাচীর কিছুই নেই। অনেকটা অরক্ষিত এ উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি যে কোন সময় বেহাত হওয়ার আশংকাও রয়েছে। শত কোটি টাকা মূল্যমানের সরকারের এ বিশাল সম্পত্তির উপর একাধিক সুবিধাবাদী মহলের শকুনি নজর পড়ার খবরও চাউর হচ্ছে।

সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিদিন উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে এ উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে অন্ততঃ ৫০ হতে ১শ’জন রোগী চিকিৎসা সেবা নিতে আসে। এদের অধিকাংশই হতদরিদ্র নারী ও শিশু। দীর্ঘ ২/৩ যুগ যাবত এ উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির উন্নয়নতো দূরের কথা; কোনোরূপ মেরামতও করা হয়নি। ফলে এ উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের চারদিকে বিরাজ করছে অপরিছন্ন নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ। স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে নেই বিশুদ্ধ পানির সরবরাহ, যাতায়াতের একমাত্র রাস্তাটিও ময়লা-কর্দমাক্ত, মল-মূত্রে ভরপুর। সামান্য বৃষ্টি হলেই কাদা মাটিতে সয়লাব হয়ে যায় রাস্তাটি। এছাড়াও স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির অভ্যন্তরে টয়লেট না থাকায় এখানে কর্মরত কর্মর্কতা-কর্মচারী এবং আগত রোগীরা আশেপাশে জঙ্গলে গিয়ে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে হয়। এতে মহিলা ও শিশু রোগীদের দুভোর্গের সীমা থাকে না।

দীর্ঘদিন যাবত লাকসাম উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির উন্নয়ন কিংবা সংস্কার না হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতেই কেন্দ্রের ভিতরে পানি পড়ে নষ্ট হয় যন্ত্রপাতি ও ওষুধপত্র। চিকিৎসক ও রোগীরা বৃষ্টিতে ভিজতে হয়। ব্যাঘাত ঘটে চিকিৎসা সেবায়। রোগী দেখার বেডটিও অনেক পুরাতন; জীর্ণশীর্ন। বেডের পাশে ওষুধের কার্টুনে রাখতে হয় চিকিৎসা কাজে ব্যবহৃত সরঞ্জামাদী। অপরদিকে, উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মকর্তা-কর্মচারী থাকার একটি কোয়াটার থাকলেও তা বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে।

সরকারি হিসেব অনুযায়ী উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে একজন মেডিকেল অফিসার, একজন মেডিকেল এসিষ্টেন্ট, একজন ফার্মাসিষ্ট, একজন সেকমো, একজন ভিজিটর, একজন এমএলএসএস, একজন আয়ার পদ রয়েছে। বর্তমানে একজন সেকমো ও একজন ভিজিটর রয়েছে। বাকী পদগুলো দীর্ঘদিন ধরে শূণ্য রয়েছে। গত ৭/৮ মাস আগে একজন মেডিকেল অফিসার পোষ্টিং পেলেও একদিনের জন্যও তিনি ওই উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যাননি।

লাকসাম উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভিজিটর খোদেজা বেগম জানান, এ চিকিৎসা কেন্দ্রে সেবা নিতে আসা রোগীদের তুলনায় সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত ওষুধ অনেকটাই অপ্রতুল। ফলে রোগীদেরকে চিকিৎসা শেষে প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহে হিমশিম খেতে হয়। সঠিক চিকিৎসা করলে সারামাসের জন্য বরাদ্দ পাওয়া ওষুধ দিয়ে সর্বোচ্চ ২/৩ দিন চালানো সম্ভব। তাই অধিকাংশ ওষুধই রোগীদের বাজার থেকে ক্রয় করতে হয়।

এ বিষয়ে লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ এবিএম মশিউল আলম নতুন কুমিল্লাকে বলেন, লাকসাম শহরের প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত এ উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি দীর্ঘদিন ধরে অবহেলিত। লোকবল সংকট, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতির সংকট নিরসনসহ অবকাঠামো সমস্যা সমাধানে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। আশা করি চলতি বছরেই এ স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি পূর্ণতা পাবে।

(নতুন কুমিল্লা/জেপি/এমএকে/২৩ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন