কুমিল্লা
শনিবার,২৩ জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৯ মাঘ, ১৪২৭ | ৯ জমাদিউস-সানি, ১৪৪২

ইমরান খানকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে চায় পাকিস্তান সেনাবাহিনী?

সাবেক তারকা ক্রিকেটার পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) দলের নেতা ইমরান খান।

পাকিস্তানে ২৫ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচন ঘিরে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছেন সাবেক তারকা ক্রিকেটার পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) দলের নেতা ইমরান খান ও দেশটির শক্তিশালী সেনাবাহিনীর মধ্যেকার সম্পর্ক।ক্ষমতাসীন পাকিস্তান মুসলিম লিগ- নওয়াজ (পিএমএল-এন) দলের উচ্চ পর্যায়ের নেতাদের বক্তব্য অনুযায়ী, নির্বাচনের মাধ্যমে ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন সরকার আনার জন্য সেনাবাহিনী আড়ালে থেকে কাজ করে যাচ্ছে।

এটাকে থিওরি বা তত্ত্ব যাকে কন্সপিরেসি থিওরি বা ষড়যন্ত্র তত্ত্ব বলা যায়- পাকিস্তানের ভিতরে ও বাইরে অনেকেই গ্রহণ করছেন।

বাস্তবিকই, পিএমএল-এনকে বাধা প্রদান এবং এর প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী পিটিআইকে বিজয়ী করতে উৎসাহী পাকিস্তানের সেনাবাহিনী। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে পিএমএলএনের সদস্যদের গ্রেফতার করা হয়েছে; পিটিআইয়ের প্রতি কয়েক ডজন পার্লামেন্ট সদস্যের সমর্থন দিয়েছেন; নির্বাচনের তিন সপ্তাহেরও কম সময় আগে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে; নির্বাচনের চার দিন আগে পিএমএলএনের আরেক নেতা হানিফ আব্বাসিকে মাদক পাচারের অভিযোগে যাবজ্জীবন দেয়া হয়েছে; নওয়াজ শরিফের অনুকূলে প্রতিবেদন দেয়ার মত সংবাদমাধ্যমগুলোকে সেন্সর করা হচ্ছে- এসব কিছুই পিএমএলএনকে বাধা প্রদান করতে সেনাবাহিনী ও বিচারবিভাগের উদ্যোগ বলে মনে হয়।

তবে, ইমরান খানকে ক্ষমতায় বসিয়ে সেনাবাহিনী আরামে থাকবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। ইমরান খানের ব্যক্তিত্ব ও রাজনৈতিক অবস্থানের কারণে তাকে সামরিক বাহিনীর প্রিয়পাত্র বলে হয় না।

সেনাবাহিনী চায় এমন একজন নেতা যার কাজকর্ম অনুমান করা যাবে এবং যাকে সহজে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। কিন্তু খান হচ্ছেন অস্থিরমতি ও জেদি। এমনকি খানের সদ্গুণ অর্থাৎ তার সম্মোহনী শক্তি ও চরম আত্মবিশ্বাসও সামরিক বাহিনীর জন্য দায়ভার হয়ে উঠতে পারে। কারণ, এসব বৈশিষ্ট্য থেকে মনে হয় তিনি উচ্চতর কর্তৃপক্ষের কথা শুনবেন না।

মজার বিষয় হচ্ছে, সেনাবাহিনী যে দলটির জন্য বাঁধা তৈরি করছে সে দল থেকেই একজন আদর্শ প্রধানমন্ত্রী পেতে পারে তারা। পিএমএলএন নির্বাচনে জয়ী হলে নওয়াজ শরিফের ভাই শেহবাজ শরিফ প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হবেন।

ভাইয়ের মত সম্মোহনী গুণ না থাকলেও একজন সক্ষম ও অবিচল নেতা হিসেবে শেহবাজের সুনাম রয়েছে এবং সামরিক বাহিনীর সাথে বনিবনা ভালো। লক্ষণীয়ভাবে, সাম্প্রতিক একটি সাক্ষাৎকারে শেহবাজ শরিফ পিএমএল-এন ও সামরিক বাহিনীর মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নের আহ্বান জানিয়েছেন। পাকিস্তানে সেনাবাহিনীর যদি কোনো প্রিয়পাত্র থাকে তাহলে সেটা ইমরান খানের চাইতে শেহবাজ শরিফ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

এরই মধ্যে, ইমরান এমন কিছু বিষয়ে এমন কয়েকটি মতামত দিয়েছেন যা সেনাবাহিনীর মতের সাথে মিলে না। তবে, অন্য অনেকগুলো বিষয়ে তারা একমত- যেমন ইমরান কাশ্মীর সমস্যার সমাধান চান, চীনকে স্বাগত জানান এবং সামরিক বাহিনীর সমালোচনা করতে অস্বীকার করেন।

ইমরান নিয়মিত পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন জানিয়ে আসছেন এবং তিনি সেনাবাহিনীর সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী এমন ইঙ্গিতও দিয়েছেন। মে মাসে নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘এটা পাকিস্তান সেনাবাহিনী, শত্রুর সেনাবাহিনী নয়। আমি আমার সঙ্গে সেনাবাহিনীকেও বহন করব।’
যে দেশের রাজনীতির গভীর পর্যন্ত ছড়িয়ে আছে সেনাবাহিনীর হাত, সেখানে ক্ষমতার সর্বোচ্চ শিখরে উঠতে চায় এমন নেতার কাছ থেকে এমন মন্তব্য শুনলে অবাক হবার কিছু।

কিন্তু তারপরও, একটু খতিয়ে দেখলে, কিছু বৈসাদৃশ্য চোখে পড়ে। ইমরান লক্ষণীয়ভাবে ইরানের সম্পর্কে ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করেন। এমনকি, পাকিস্তানের উচিৎ ‘ইরানের মতো হওয়া’ এমন মন্তব্যও তিনি করেছেন।

সৌদি আরবের কঠিন আঞ্চলিক শত্রু হচ্ছে তেহরান। পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর সাথে সৌদি আরবের গভীর সম্পর্ক রয়েছে। গত বছর সৌদি জোটের অধীনে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সাবেক প্রধান রাহিল শরিফকে মুসলিম দেশগুলোতে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে নেতৃত্বের ভার দেয়া হয়েছে।

ইমরান খান ভারতের সাথে আরও সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্ক চান। একই রকম মনোভাবের কারনে শরিফ সামরিক বাহিনীর সাথে ঝামেলায় জড়িয়েছিলেন। এর সঙ্গে রয়েছে ইমরানের কঠোর আমেরিকা-বিরোধী মনোভাব। একবার তিনি প্রতিজ্ঞা করেছিলেন ক্ষমতায় থাকলে তিনি আমেরিকার ড্রোন গুলি করে নামাবেন। এই মনোভাব সামরিক বাহিনীকে ভয় পাইয়ে দিতে পারে, কারণ তারা যুক্তরাষ্ট্রের সাথে টালমাটাল সম্পর্ক দৃঢ় করতে আগ্রহী।

একই সঙ্গে ২০১১ সালে ইমরান সন্ত্রাস দমনের নামে উপজাতি অধ্যুষিত এলাকায় সেনা পাঠানোর সমালোচনা করে বলেন, তারা ‘আমেরিকার টাকায় আমাদের নিজেদের লোককে হত্যা করছে’।

পাকিস্তান তালেবান দলের যোদ্ধারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালানোর সময়ও ইমরান তাদের সাথে আলোচনার আহ্বান জানিয়ে আসছিলেন। তারপরও ২০১৪ সালে উত্তর ওয়াজিরিস্তানে রাষ্ট্রবিরোধী জঙ্গিদের দমনে সেনাবাহিনী অভিযান শুরু করে।

সামরিক বাহিনী সন্ত্রাসবিরোধী কর্মকাণ্ডকে সমর্থন করে এবং এসবের অর্থায়নে আমেরিকার টাকাকে স্বাগত জানায়। তবে, এবছরের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র-পাকিস্তান সম্পর্কের অবনতি হলে ওয়াশিংটন ১১০ কোটি ডলার সহায়তা বাতিল করে।

এদিকে ২০১৮ সালের শুরুতেও ইমরান সমালোচনা করে বলেন, নিজের দেশের মানুষের সাথে যুদ্ধ করা পাকিস্তানের উচিত নয়।
সবচেয়ে বড় সহযোগীদের উপদেশ মেনে নিয়ে এবং রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার লাগাম নিয়ন্ত্রণে তার অনভিজ্ঞতার কথা মাথায় রেখে ইমরান সেনাবাহিনীর কথা মেনে চলতে পারেন। বিশেষত, দেশটির পররাষ্ট্রনীতি বহুদিন ধরে সেনাবাহিনীর এখতিয়ারে রয়েছে।

তবে ইমরানের যা ব্যক্তিত্ব ও কথা, তাতে তিনি আনন্দের সাথে সামরিক বাহিনীকে জায়গা ছেড়ে দেবেন এবং তাদের কর্তৃত্ব মেনে নেবেন এটা কল্পনা করা কঠিন। একইভাবে, ইমরান প্রধানমন্ত্রী হলে সামরিক বাহিনীর সাথে তার দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা প্রবল। এমন হলে বেসামরিক লোকদের সঙ্গে সেনাবাহিনীর সম্পর্কের আরও অবনতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গত কয়েক বছরে পিএমএলএন সরকারের সময় সেনাবাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ক এমনিতেই জটিলতার মধ্য দিয়ে গেছে। এসব কারণে পাকিস্তানে নতুন করে অস্থিতিশীলতা তৈরি হতে পারে।

শেষ পর্যন্ত, পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর জন্য কোন ধরনের সরকার আসছে সেটাই গুরুত্বপূর্ণ, কে তাতে নেতৃত্ব দিবেন সেটা নয়। একটি দলের নিয়ন্ত্রণে থাকা শক্তিশালী ঐক্যবদ্ধ প্রশাসনের চাইতে একটা দুর্বল ও বিভক্ত জোট সরকারকে প্রভাবিত ও শোষণ করা সহজ।
একটা ভঙ্গুর জোটে কৌশল নির্ধারণ ও স্বাধীনভাবে কাজ করতে হলে ইমরানে মত দৃঢ়চেতা নেতাকেও অনেক সংগ্রাম করতে হবে। সত্য বলতে, পাকিস্তানের পরবর্তী সরকার জোট সরকার হলে তাতে ইমরান নেতৃত্ব দেবেন এমন সম্ভাবনা কম। এই মাসে বিবিসি উর্দুকে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইমরান বলেন, তার দল পিটিআই পিএমএল-এন বা পাকিস্তান পিপলস পার্টির সঙ্গে জোট গঠন করবে না।

নির্বাচনের ফলাফলে যদি জোট গঠন করার প্রয়োজন পড়ে, তাহলে পিটিআইয়ের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দল দু’টির একটি বিপদে পড়ে যাবে এমন সম্ভাবনা প্রবল।

জুলাই ২৫ তারিখের নির্বাচন প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হলে এবং পার্লামেন্টে কোনো দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেয়ে জোট সরকার গঠন করতে হলে সেনাবাহিনীর উদ্দেশ্য পূরণ হতে পারে। সেনাবাহিনী সবসময় সবকিছুকে প্রভাবিত করে এমন একটি দেশে এটা হতেই পারে।

[আলজাজিরায় প্রকাশিত মাইকেল কাগেলমানের ‘Is Imran Khan the Pakistani military’s ‘favourite son?’ যুক্তরাষ্ট্রের উড্রো উইউলসন ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর স্কলার্সের একজন সিনিয়র এসোসিয়েট। নিবন্ধটি অনুবাদ করেছেন মোহাম্মদ মামুনূর রশিদ।]

আরও পড়ুন