কুমিল্লা
রবিবার,২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৭ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

ব্রীজের জন্য অপেক্ষা !

লাকসামে বাঁশের সাঁকোতে ঝুঁকিপূর্ণ পারাপার

কালিয়াপুর-শ্রীয়াং সংযোগ কার্জন খালের উপর সেতু না থাকায় বাঁশের সাঁকো দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারপার হচ্ছে শিক্ষার্থী সহ বিভিন্ন পেশার মানুষ। ছবি: নতুন কুমিল্লা

লাকসামে একটি ব্রিজের অভাবে ভাগ্য পাল্টাচ্ছেনা ১০টি গ্রামের। সেখানে বসবাস প্রায় ২৫ হাজার মানুষের। ডাকাতিয়া নদী মোহনা কার্জন খালটির উপর নির্মিত প্রায় ২’শ ফুট দীর্ঘ বাঁশের সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসার প্রায় ৫ শতাধিক কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ লাকসাম-মনোহরগঞ্জ উপজেলার হাজার হাজার মানুষ।

এলাকাবাসী জানা যায়, কালিয়াপুর বাজারের কাছে ডাকাতিয়া নদীর সাথে সংযোগ সেই বিখ্যাত কার্জন খালের উপর সেতু নির্মাণের দাবি প্রায় ৩২ বছর ধরে এ অঞ্চলের মানুষের। ১৯৯৬ সাল থেকে বাঁশের সাঁকো দিয়ে এ এলাকার হাজার হাজার মানুষ পারাপার হয়। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে স্থানীয়দের সহায়তায় বাঁশ কিনে এনে সবাই মিলে সাঁকোটি মেরামত করে।

এলাকাবাসীর চাঁদায় নির্মিত বাশের সাঁকো দিয়ে ওই খাল পারাপার হয় পথচারীরা। প্রতিদিন এ পথে লাকসাম-মনোহরগঞ্জ দু’উপজেলার শ্রীয়াং, কেশতলা, শমসেরপুর, রাজাপুর, লাল চাঁদপুর, হাজীপুরা, চাটিতলা, ইসলামপুর, হামিরাবাগ, কালিয়াপুর গ্রামের মানুষ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। সাঁকোটির পাশেই কালিয়াপুর বাজার। সেখানে সপ্তাহে দু’দিন হাট বসে। এ দু’দিন দূর-দূরান্ত থেকে সবজি নিয়ে আসা কৃষকরা সাঁকো পার হতে ভোগান্তির শিকার হন। সঙ্গে গুনতে হয় অতিরিক্ত টাকা। সাঁকোটির পাশে কালিয়াপুর কামিল মাদ্রাসা। শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি নিয়ে কার্জন খালের এপার ওপার যেতে হয়।

আবুল কাশেম, আমেনা ও সাইফল সহ বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, তাদের দূঃখ দূর্দশার কথা। অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এ সাঁকো দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রায় তাদের বই-খাতা ও কলম পানিতে পড়ে যায় এবং অনেকেই দূর্ঘটনার শিকার হতে হয়। যান চলাচলের ব্যবস্থা না থাকায় অসুস্থ্য মানুষকে জেলা-উপজেলা শহরে নিয়ে আসতে দূর্ভোগের শিকার হতে হয়।

কালিয়াপুর-শ্রীয়াং সংযোগ কার্জন খালের উপর সেতু না থাকায় বাঁশের সাঁকো দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারপার হচ্ছে শিক্ষার্থী সহ বিভিন্ন পেশার মানুষ। ছবি: নতুন কুমিল্লা

স্থানীয় বাসিন্দা ও সাবেক বিভাগীয় হিসাব রক্ষক পূর্ত কর্মকর্তা আবুল খায়ের নতুন কুমিল্লাকে বলেন, নির্বাচন এলেই এলাকার জনপ্রতিনিধিরা এখানে সেতু নির্মাণে প্রতিশ্রুতি দেন। ভোটে পাশ করার পর প্রতিনিধিগণের প্রতিশ্রুতির কথা মনে থাকে না। সেতু নির্মাণ করার জন্য বিভিন্ন দপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট মৌখিক-লিখিত ভাবে অবহিত করার পরও ৩২ বছরে কর্তৃপক্ষের টনক নড়েনি। ঝুঁকিপূর্ণ এ সাঁকোর কারণে শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রতিনিয়তই আমাদের দুশ্চিন্তায় থাকতে হয়। অচিরেই একটি ব্রিজ নির্মাণ করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানান তিনি।

স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার সহিদ উল্লাহ চৌধুরী বলেন, এ অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি ব্রিজটি নির্মিত হলে একদিকে যেমন কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে অন্যদিকে পাল্টে যাবে শ্রীয়াং দক্ষিণ বিলপাড়া, রাজাপুর, নোয়াপাড়া, জগৎপুর, উত্তর বড়কেশতলাসহ কয়েকটি গ্রামের কৃষকদের ভাগ্যে এবং এ অঞ্চলের মানুষের ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম সওকাত নতুন কুমিল্লাকে বলেন, শুনেছি ওইস্থানে সেতু না থাকায় দীর্ঘদিন ধরে মানুষ ভোগান্তিতে পোহাচ্ছে। এলজিইডি আইডির্ভূক্ত রাস্তা না থাকায় সেখানে ব্রিজটি নির্মাণে বিলম্ব হচ্ছে। তবে রাস্তা-ব্রিজটি নির্মাণে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

(নতুন কুমিল্লা/জেপি/এইচএম/২৪ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন