কুমিল্লা
রবিবার,২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ
৭ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২১ মুহাররম, ১৪৪১
Bengali Bengali English English
শিরোনাম:
উত্তর চর্থা সামাজিক যুব ফাউন্ডেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা : তাজুল ইসলাম কুমিল্লায় বিলুপ্তির পথে গ্রামীণ ঐতিহ্য লাঙ্গল-জোয়াল চৌদ্দগ্রামে প্রবাসীর স্ত্রী হ ত্যা মামলায় পিতা-পুত্র গ্রেফতার মুরাদনগর সাংবাদিকদের সাথে ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের মতবিনিময় লাকসাম মুদাফফরগঞ্জে ভোক্তা অ‌ধিকার অভিযানে ৫ প্র‌তিষ্ঠান‌কে জরিমানা কুমিল্লায় সন্তান মারা যাওয়ায় বি ষ পা নে বাবার আ ত্ম হ ত্যা কুমিল্লায় ফুটবল খেলা নিয়ে জিলা স্কুল ছাত্রদের সাথে সং ঘ র্ষ চৌদ্দগ্রামে স্কাইল্যাব ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের উদ্বোধন কুমেক হাসপাতালের মেডিসিন স্কয়ারে জরিমানা

কুমিল্লা জেলা জুড়ে ১২শ’ কিলোমিটার সড়কের বেহাল

কুমিল্লা-নেয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের বেহাল।

কুমিল্লা জেলা জুড়ে প্রায় ১২শ’ কিলোমিটার সড়কে খানাখন্দ আর বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। গত বছরের বর্ষা ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়কের সংস্কার না হওয়ায় এ বছরের ভারী বর্ষণে বেশিরভাগ সড়ক যানবাহন চলাচলে অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ ও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর কুমিল্লার (এলজিইডি) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, কুমিল্লা মহানগরীসহ জেলার ১৬টি উপজেলায় সড়ক ও জনপথ বিভাগ, এলজিইডি, সিটি করপোরেশন, জেলা পরিষদ ও বিভিন্ন পৌর এলাকার আওতাধীন প্রায় ১২শ’ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার করা দরকার। এরমধ্যে সড়ক ও জনপথ বিভাগের ২৫১ কিলোমিটার এবং এলজিইডির ৫৭৩ দশমিক ৪০ কিলোমিটারসহ মোট ৮২৪ দশমিক ৪০ কিলোমিটার সড়ক খানাখন্দ আর বড় বড় গর্তে বেহাল রয়েছে।

সরেজমিন দেখা যায়, কুমিল্লায় সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের ৭৫১ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ২৫১ কিলোমিটার সড়ক বেহাল। এরমধ্যে কুমিল্লা-নোয়াখালী, কুমিল্লা-চাঁদপুর, কুমিল্লা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আঞ্চলিক মহাসড়ক এবং কুমিল্লা চাঁপাপুর-কোটবাড়ি হয়ে বরুড়া সড়কের পিচ উঠে খানাখন্দ সৃষ্টি হয়েছে। সওজ কর্তৃপক্ষ কয়েক দিন পর পর গর্তগুলোতে ইট দিয়ে যান চলাচলের ব্যবস্থা করছে। তবে তা ২ থেকে ৩ দিনও থাকছে না। এসব স্থানে প্রায়ই যানবাহন আটকে যাচ্ছে। বাড়ছে দুর্ঘটনা।

কুমিল্লা শহরতলীর শাসনগাছা-ধর্মপুর সড়কের বেহাল অবস্থাএছাড়া কুমিল্লায় এলজিইডির ১০ হাজার ২০০ কিলোমিটার কাঁচা-পাকা সড়ক রয়েছে। তার মধ্যে ৫৭৩ দশমিক ৪০ কিলোমিটার সড়ক গেল বছরের বর্ষা এবং বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সংস্কার না হওয়ায় এবারের ভারী বর্ষণে সড়কগুলো বেহাল। সড়কের গর্তে ড্রেনের পানি এসে যান চলাচলে ভোগান্তি সৃষ্টি হচ্ছে। সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের সূত্রমতে, কুমিল্লা-নোয়াখালী সড়কের কুমিল্লা অংশের ৪৫ কিলোমিটার, কুমিল্লা-চাঁদপুর সড়কের কুমিল্লা অংশের ১৮ কিলোমিটার,

কুমিল্লা শহরতলীর শাসনগাছা-ধর্মপুর সড়কের বেহাল অবস্থা।

কুমিল্লা ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহাসড়ক ৪০ কিলোমিটার এবং কুমিল্লা চাঁপাপুর-কোটবাড়ি -বরুড়া সড়কের ৪০ কিলোমিটার, নিমসার-বরুড়া সড়ক, বিজরা বাজার-কাশিনগর সড়ক, গরিপুর-বরুড়া বাজার সড়ক, ঝলম বাজার- চান্দিনা সড়ক, পিপুলিয়া-ললবাড়িয়া সড়ক, নলুয়া-চন্ডিমুড়া-মগবাড়ি সড়ক, চাঙ্গিনী-জাঙ্গালিয়া সড়ক, নবীপুর-শ্রীকাইল-রামচন্দ্রপুর সড়ক, নিমসার-কংশনগর-বুড়িচং সড়ক, ক্যান্টনমেন্ট-বরুড়া সড়ক এবং লালমাই-বরুড়া-ঝলম- আড্ডা-জগতপুর সড়কের অংশ বেহাল।

মনোহরগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা আবুল বাশার জানান, গত বছরের বর্ষা ও বন্যায় মনোহরগঞ্জের অধিকাংশ সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এবারের ভারী বর্ষণে সড়কগুলো আরও ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।

মুরাদনগর উপজেলার মিজানুর রহমান মিয়া জানান, মুরাদনগর উপজেলার ৬৫ ভাগ সড়ক বেহাল। কুমিল্লা শহরের বাসিন্দা কামরুল ইসলাম জানান, কুমিল্লা-নোয়াখালী, কুমিল্লা-চাঁদপুর, কুমিল্লা-ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আঞ্চলিক মহাসড়ক এবং কুমিল্লা চাঁপাপুর-কোটবাড়ি সড়কগুলো দিয়ে মানুষ বাধ্য হয়ে চলাচল করছেন।

কুমিল্লায় সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের নির্বাহী কর্মকর্তা মোফাজ্জল হায়দার নতুন কুিমল্লােক বলেন, কুমিল্লা নগরীর টমছম ব্রিজ থেকে পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড হয়ে লাকসাম থেকে নোয়াখালী সড়কটি চার লেনে উন্নীত এবং কুমিল্লা-চাঁদপুর, কুমিল্লা- ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং কুমিল্লা মহানগরীর চাঁপাপুর থেকে কোটবাড়ি হয়ে বরুড়া পর্যন্ত সড়কগুলোর উন্নয়ন কাজ খুব শিগগিরই শুরু করা হবে। এছাড়া সওজের আওতাধীন জেলা ও উপজেলাভিত্তিক ক্ষতিগ্রস্ত ২৫১ কিলোমিটার সড়কের উন্নয়ন কাজও হবে। বাজেট বরাদ্দ হয়ে গেছে। বৃষ্টির কারণে কাজ শুরু করা যাচ্ছে না। বৃষ্টি কমলেই কাজ শুরু করা যাবে।

(নতুন কুমিল্লা/এমেক/এমএ/২৪ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন