কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৪ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ আষাঢ়, ১৪২৮ | ১৩ জিলকদ, ১৪৪২

পত্রিকায় ভুলতথ্যে এলাকায় হাস্যরস :

কবরে থেকেই মাদকের গডফাদার নুরুল বাহার চেয়ারম্যান!

নিহত আলহাজ্ব নুরুল বাহার চেয়ারম্যান। ফাইল ছবি

আলহাজ্ব নুরুল বাহার কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়নের তিনবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। ২০১৬ সালের ২৩ আগস্ট রাতে ৬৫ বছর বয়সে তিনি চট্টগ্রামস্থ নিজ বাসায় ইন্তেকাল করেছেন। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং আ’লীগের প্রভাবশালী নেতাও ছিলেন। তাঁর মৃত্যুর ১ বছর ১১ মাস ১ দিন পার হলেও মাদকে পৃষ্ঠপোষকতা ও গডফাদারের তালিকায় রয়েছে নাম।

বুধবার (২৬ জুলাই) একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য পেয়ে কুমিল্লার সর্বমহলে হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, মুক্তিযুদ্ধের সময় দেশ স্বাধীনতার জন্য অগ্রনী ভূমিকা পালন করেন আলহাজ্ব নুরুল বাহার। এরপর তিনবার জনগণের ভোটে উপজেলার ৯নং কনকাপৈত ইউপির চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি সব সময় মাদক ও চাঁদাবাজ বিরোধী ছিলেন। মৃত্যুর পর বুধবার একটি পত্রিকার প্রতিবেদনে তাকে মাদকের গডফাদার বানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়-মাদকদব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনএসআই), সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা (ডিজিএফআই), পুলিশ-র‌্যাব, কোস্টগার্ড, বিজিবি, আনসার ভিডিপির করা তালিকা থেকে সমন্বয় করে একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে।

গত বছরের শেষ দিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশে সংস্থাগুলো এই তালিকা তৈরির কাজ শুরু করে। তালিকা তৈরির পর সবকটি মিলিয়ে সমন্বয় করা হয়। পরে সেই তালিকা ধরেই গত ১২ মে থেকে সারা দেশে একযোগে অভিযান শুরু হয়। তালিকায় প্রায় ১৪ হাজার জনের নাম রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকায় ১ হাজার ৩৮৪ জন, কক্সবাজার জেলার ১ হাজার ১৫১ জনের নাম রয়েছে। র‌্যাবের তালিকায় রয়েছে ৩ হাজার ৬০০ জনের নাম। বিজিবির করা তালিকায় রয়েছে ২৫ জেলার ৩৩৭ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর নাম। অভিযানের শুরু থেকে প্রায় দিনই দেশের কোথাও না কোথাও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ একাধিক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হওয়ার খবর মিলছে। চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ মাস পর্যন্ত সারা দেশে ২৭ হাজার ৩৪৩টি মাদক মামলায় ৩৫ হাজার ১১২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

অভিযুক্তদের অনেকে তালিকায় তাদের নাম থাকার বিষয়টি অবগত হয়ে সেখান থেকে নাম বাদ দিতে যেমন তদবির চালাচ্ছেন, তেমনিভাবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে লিখিত আবেদনও করেছেন অনেকে। দুমাসের বেশি সময় ধরে চলা মাদকবিরোধী অভিযানে এখনো কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি তালিকায় থাকা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে। চুনোপুঁটিরা গ্রেফতার হলেও বহাল তবিয়তে থাকাসহ তারা দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন মুক্ত বাতাস ও আলোতে। চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে মাদক কারবারী ছাড়াও এর পৃষ্ঠপোষক-গডফাদার ও সহায়তাকারীদের নামের সরকারি একটি তালিকা থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে বলেও প্রতিবেদনে দাবি করা হয়। তবে প্রতিবেদনে জেলা ভিত্তিক শুধু কুমিল্লা জেলার তালিকা পায় পত্রিকাটি। এ জেলার মাদকের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে যাদের নাম রয়েছে তারা সবাই প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। তাদের ধরতে নেই কোনো উদ্যোগ, নেই অভিযানও।

প্রতিবেদনে উল্লেখিত কুমিল্লা জেলার চিত্র : কুমিল্লা জেলার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে রয়েছে ৮৯ জনের নাম। মাদক ব্যবসায়ীদের পৃষ্ঠপোষক বা গডফাদার হিসেবে রয়েছে ১৬ জনের নাম। তালিকায় মাদক ব্যবসায় সহায়তাকারী হিসেবে কুমিল্লায় কর্মরত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও পুলিশের ১১ সদস্যের নামও রয়েছে। পৃষ্ঠপোষকদের তালিকায় ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় দুজন প্রভাবশালী ব্যক্তির নাম রয়েছে শীর্ষে। এদের মধ্যে চৌদ্দগ্রামের কনকাপৈত ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল বাহার ও সদর দক্ষিণের জয়মঙ্গলপুরের লাদেন জাকিরসহ আরও কয়েকজনের উল্লেখ রয়েছে।

বাস্তবতা আর প্রতিবেদনের কথা আলোচনা করে অনেকেই বলছেন- মাদকের তালিকা থেকে নাম কাটমতে কবরে প্রকাশ্যেই তদবির চালাচ্ছেন নুরুল বাহার চেয়ারম্যান! এনিয়ে পুরো এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা মুক্তিযোদ্ধার সাবেক কমান্ডার প্রমোদ রঞ্জন চক্রবর্তী ক্ষোভ প্রকাশ করে নতুন কুমিল্লাকে বলেন, ‘আলহাজ্ব নুরুল বাহার একজন ভারতীয় ট্রেনিং প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা। মৃত্যুর দুই বছর পর ওনাকে হেয় প্রতিপন্ন করতে যারা এই ধরনের কাজ করেছে আমি সকল মুক্তিযোদ্ধার পক্ষ থেকে তীব্র প্রতিবাদ জানাই এবং যারা এই ঘৃণ্য কাজটি করেছেন আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি’।

কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মমিনুর রহমান ফটিক নতুন কুমিল্লাকে বলেন, ‘আলহাজ্ব নুরুল বাহার এককালে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ছিলেন। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা। তিনি কখনো মাদক ব্যবসা তো দুরের কথা, কোন অবৈধ ব্যবসা বাণিজ্যের সাথে জড়িত ছিলেন না’।

এ বিষয়ে প্রয়াত সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল বাজারের ছোট ভাই মোঃ সেলিম নতুন কুমিল্লাকে জানান, বার বার নির্বাচিত জনপ্রিয় চেয়ারম্যান নুরুল বাহার জীবদ্ধশায় মাদকের বিরুদ্ধে সংগ্রামে লিপ্ত ছিলেন। মরহুমের জনপ্রিয়তাকে এবং আমাদের পারিবারিক ঐহিত্যকে নষ্ট করার লক্ষে কেউ ব্যাক্তিগত শত্রুতা বশতঃ তালিকায় এ নাম দিয়েছে বলে তিনি জানান।

(নতুন কুমিল্লা/জেপি/এমএসএ/ ২৫ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন