কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৪ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ আষাঢ়, ১৪২৮ | ১৩ জিলকদ, ১৪৪২

মেঘনা-গোমতী সেতুর গর্তে যাত্রীদের দুর্ভোগ চরমে

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘনা ও গোমতি সেতুর টোল আদায়ে ধীরগতি, মালবাহি গাড়িতে অতিরিক্ত ওজন যাচাই, বিভিন্ন স্থানে সড়ক সংস্কার কিংবা খোড়াখুড়ির কারণে সড়কে যানজট যেন নিত্যসঙ্গী। প্রতিনিয়ত চরম ভোগান্তিতে পড়ছে সাধারণ মানুষ। ঘণ্টার পর ঘণ্টা মহাসড়কে কাটিয়ে অনেক সুস্থ মানুষ হয়ে পড়ছে অসুস্থ। বাদ পড়েনি এ্যাম্বুল্যান্সে থাকা রোগীরাও।

যাটজটের এসকল চিহ্নিত কারন সমাধানের যেখানে কর্তৃপক্ষ হিমশিম খাচ্ছে সেখানে নতুন বিষফোঁড়া মেঘনা-গোমতী সেতুতেসৃষ্ট ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত। এ কারণে ভবেরচর থেকে জিংলাতলী পর্যন্ত প্রায় ৩৫ কিলোমিটার এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে তীব্র যানজট। গত বুধবার রাত থেকে শুরু হয়ে গতকাল শুক্রবারও ছিল তীব্র যানজট।

জানা গেছে, টানা কয়েক দিনের বৃষ্টিতে দাউদকান্দির মেঘনা-গোমতী সেতুতে বিটুমিন উঠে সৃষ্টি হয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের। মহাসড়কে যানবাহন চলাচল করছে ধীরগতিতে। এ কারণে ভবেরচর থেকে জিংলাতলী পর্যন্ত প্রায় ৩৫ কিলোমিটার এলাকায় তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়েছে। ঘন্টার পর ঘন্টা মহাসড়কে কাটাতে হয় যাত্রীদের।

এ সময় এ্যাম্বুল্যান্সে থাকা রোগী ও গাড়ির যাত্রীরা চরম দুর্ভোগের শিকার হন। কুমিল্লার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (দাউদকান্দি সার্কেল) মহিদুল ইসলাম বলেন, সেতুর উপর সৃষ্টি হওয়া ছোট বড় অসংখ্য গর্তের কারণে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষে থেকে ব্রিজের উপর ইট, পাথর, বালু, বিটুমিন দিয়ে কয়েকদিন ধরে সংস্কার কাজ করে যানজট নিরসনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এছাড়া মহাসড়ক জুড়ে মোতায়েন করা হয়েছে বিপুল সংখ্যক পুলিশ। জোরদার করা হয়েছে টহল ব্যবস্থাও। কুমিল্লা থেকে ঢাকা গামী একটি পরিবহনের চালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, যানজটে পড়ে একই স্থানে প্রায় দুই ঘণ্টা আটকে ছিলেন। এ অবস্থায় কখন ঢাকায় পৌঁছাবেন, তা জানা নেই।

কুমিল্লার ব্যবসায়ী আবদুল জলিল ভূঁইয়া জানান, ২ ঘন্টার রাস্তায় ঢাকায় পৌঁছতে সময় লেগেছে ৭ ঘন্টা। ঢাকা থেকে কুমিল্লা গামী ট্রাক চালক জাকির মিয়া বলেন, নারায়ণগঞ্জের মোরগাপাড়া এলাকায় এসে যানজটে আটকা পড়েন তিনি। ৫ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে ৮ ঘণ্টা সময় লেগেছে। যথাসময়ে গন্তব্যে পৌঁছতে না পারলে সবজির মালিকের ক্ষতি হবে।

দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ বলেন, মহাসড়কে যানজট স্থায়ী হচ্ছে না। ছুটির দিন হওয়ায় মহাসড়কে গাড়ির বাড়তি চাপের সাথে কয়েকটি স্থানে গর্ত হওয়ায় যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে সেতুর উভয় প্রান্তে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে।

মহাসড়কে হেলেদুলে চলছে গাড়ি। কুমিল্লা থেকে ফেনী পর্যন্ত এমন বেহাল দশা। গত বছর মহাসড়কের এসব স্থানে অতিরিক্ত খানাখন্দ সৃষ্টি হলে সড়ক ও জনপথ বিভাগের সংস্কার করেন। কিন্তু বছর না পেরুতেই দেখা দেয় সেই দৃশ্যপট। সংস্কারকৃত এ সড়কটি বেশিদিন না টেকায় সন্দেহ করা হচ্ছে কাজের মান নিয়ে। গাড়ির চাকার সঙ্গে দেবে যাচ্ছে নবনির্মিত লেনের বিভিন্ন স্থান। গাড়ির চাকার সঙ্গে উঠে যাচ্ছে পাথর। দাউদকান্দি টোল প্লাজা থেকে ফেনীর মোহাম্মদ আলী পর্যন্ত ৯৯ কিলোমিটার মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে প্রতিনিয়তই সৃষ্টি হচ্ছে ছোট-বড় গর্ত।

চলাচলরত হানিফ পরিবহনের চালক সেলিম মিয়া জানান, আমি ২০ বছর যাবৎ এই রোডে গাড়ি চালাই। যানবাহন অতিরিক্ত বৃদ্ধি, দুর্ঘটনা রোধ ও পরিবহনের ব্যবস্থার গতি ফিরিয়ে আনতে সরকার ফোর লেনে রূপান্তর করলেও আমাদের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটেনি। যখন দুই লেনে ছিল, তখনও এতো আতঙ্ক নিয়ে গাড়ি চালাইনি। এখন গাড়ি টানতেও আতঙ্কে থাকি। গতকাল যেখানে গর্ত ছিল না আজ দেখি সেখানে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। পরের দিন দেখি ওই গর্ত অনেক বড় হয়ে গেছে। আর ওইসব গর্তগুলোতে চাকা পড়লে যাত্রীরা যেমন আমাদের গালাগাল করে অপর দিকে গাড়ির নিয়ন্ত্রণ রাখতেও আমাদের যথেষ্ট কষ্ট হয়।

কুমিল্লা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ছোহরাব আলী জানান, মহাসড়কে মাত্রাতিরিক্ত ভারী যানবাহন চলাচল করায় নবনির্মিত লেনের বিভিন্ন অংশ দেবে যাচ্ছে। আর ওই দেবে যাওয়া অংশে পানি জমে ছোট-বড় গর্ত সৃষ্টি হচ্ছে। তবে সড়ক ও জনপথ বিভাগ সেগুলো প্রতিনিয়ত সংস্কার করে যাচ্ছে।

(নতুন কুমিল্লা/এসএইচ/এএম/২৮ জুলাই ২০১৮)

আরও পড়ুন