কুমিল্লা
বৃহস্পতিবার,২৪ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
১০ আষাঢ়, ১৪২৮ | ১৩ জিলকদ, ১৪৪২

দেবিদ্বারে বিয়ের প্রলোভনে কিশোরীকে যৌন নির্যাতন, আটক ৩

আটক আবদুল বাতেন, মনির ও আবুল কাশেম। ছবি: নতুন কুমিল্লা।

দেবিদ্বারে বিয়ের প্রলোভনে দেখিয়ে একটি পরিত্যাক্ত বাড়িতে দুই দিন আটক রেখে পালাক্রমে এক কিশোরীকে (১৬) যৌন নির্যাতন করেছে তিন বখাটে যুবক।ঘটনাটি ঘটেছে গত রবিবার রাতে উপজেলার ভানী ইউনিয়নের খাদঘর গ্রামে। ওই কিশোরীর বাড়ি মুরাদনগর উপজেলার বাবুটিপাড়ায়। পরে ওই কিশোরীর মা দেবিদ্বার থানায় ধর্ষণ মামলা করলে বুধবার অভিযুক্ত তিন জনকে আটক করে পুলিশ।

আটকরা হলো, আবদুল বাতেন (২৫) মনির (২৮) ও আবুল কাশেম (৩৬)। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা পালাক্রমে নির্যাতনের তথা স্বীকার করেছেন।

পুলিশ সূত্র জনায়, গত ২৯ জুলাই সন্ধ্যায় ওই কিশোরী তার মায়ের ওপর রাগ করে মুরাদনগর উপজেলার বাবুটিপাড়া গ্রামের বাড়ি থেকে চান্দিনা উপজেলার নানার বাড়ীর উদ্দেশ্যে বের হয়। মোবাইল ফোনে কথা বলার সূত্রে পূর্ব পরিচিত খাদঘর গ্রামের বখাটে যুবক বাতেন ওই কিশোরীকে ফোন করলে তার রাগ করে বাড়ী ছাড়ার তথ্য জানতে পেরে এ দূর্বলতার সুযোগ কাজে লাগানোর ফন্দি করে। পরে বাতেন তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে খাদঘর গ্রামে ডেকে নিয়ে আসে। রাত ৮টায় কিশোরী খাদঘর ব্রীজের কাছে পৌঁছলে তাকে কিছুটা দুরে জাহাঙ্গীর চৌকিদারের বাড়ীর পার্শ্বে একটি নির্জন ভরাট জমিতে নিয়ে জোর করে যৌন নির্যাতন করে বাতেন।

পরে রাত সাড়ে ৯টায় বাতেন খাবার নিয়ে আসার কথা বলে মেয়েটির কাছ থেকে কৌশলে পালিয়ে যায় এবং তার অপর দুই সহযোগী মনির ও কাশেমকে ফোনে ডেকে এনে মেয়েটির কাছে পাঠায়। আসামী মনির ও কাশেম সাড়ে ১০টার দিকে কিশোরীকে তাদের এক আত্মীয় সুরাইয়ার ঘরে রাত্রীযাপনের জন্য নিয়ে আসে। রাতে সুরাইয়া ঘুমিয়ে পড়লে পাশের কক্ষে প্রথমে মনির এবং পরে কাশেম পালাক্রমে ভিকটিম কিশোরীটিকে ভয়ভীতি দেখিয়ে পালাক্রমে পুনরায় যৌন নির্যাতন করে।

দেবিদ্বার থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়েছে এবং প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ডৌন নির্যাতনের স্বীকারোক্তি দিয়েছে তারা।বৃহস্পতিবার তিন জনকে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

(নতুন কুমিল্লা/জেএফ/এসএ/০২ আগস্ট ২০১৮)

আরও পড়ুন