কুমিল্লা
শনিবার,১৯ জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
৫ আষাঢ়, ১৪২৮ | ৮ জিলকদ, ১৪৪২

কুমিল্লায় চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যু

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে চিকিৎসকের অবহেলায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়ে নুরজাহান (২২) এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার উপজেলার গৌরীপুরে রংধনু হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের পর তার অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় নেয়া হয়। সোমবার ঢাকার একটি স্পেশালাইজড হাসপাতালে মারা যান তিনি।

নুরজাহান কুমিল্লার তিতাস উপজেলার জিয়ারকান্দি ইউনিয়নের বাঘাইরামপুর গ্রামের মো. ডালিম মিয়ার স্ত্রী। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাসপাতালের মালিককে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

নূরজাহানের স্বামী মো. ডালিম জানান, গত ২৪ আগস্ট শুক্রবার বিকাল ৫ টায় গৌরীপুরের রংধনু হাসপাতালে আমার স্ত্রী নুরজাহানের সিজারিয়ান অপারেশন হয়। সেখানে এক পুত্র সন্তান জন্ম দেন তিনি। সিজারিয়ান অপারেশন করেন ডা. শাহনাজ পারভীন। এনেসথেসিয়া প্রয়োগ করেন ডা. মোঃ সিরাজুল ইসলাম। ২৫ আগস্ট শনিবার সকালে রোগীর পেট ফুঁলে প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যায়।

পরবর্তীতে ওইদিন বিকাল ৪ টায় রোগীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ২৬ আগস্ট রবিবার রাত ২ টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নুরজাহানের দ্বিতীয়বার পেটে অপারেশন করা হয়। পরবর্তীতে রোগীর অবস্থা আরো অবনতি হলে তাকে ঢাকা পান্থপথ ইউনিহেলথ স্পেশালাইজড হাসপাতালে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। ২৭ আগস্ট সোমবার রাত ১২ টা ২২ মিনিটে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুরজাহানের মৃত্যু হয়।

সোমবার ভোরে রোগীর স্বজনরা এ্যাম্বুলেন্সযোগে নুরজাহানের লাশ নিয়ে রংধনু হাসপাতালের সামনে জড়ো হয়ে চিৎকার শুরু করে। নিহতের ভাই মোস্তাক ব্যাপারী জানান, ঢাকার চিকিৎকগণ জানিয়েছেন অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণের কারণে কিডনি ফেলিউর হয়ে নুরজাহানের মৃত্যু হয়েছে। আর এজন্য দায়ি রংধনু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও ডাক্তাররা। তাদের অবহেলার কারণেই রোগীর মৃত্যু হয়েছে। সংবাদ পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যান গৌরীপুর তদন্ত কেন্দ্র পুলিশ। উত্তেজিত লোকজনকে শান্ত করে লাশ থানায় নিয়ে যান তারা।

গৌরীপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আ.স.ম আব্দুন নূর বলেন, সংবাদ পেয়ে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। উত্তেজিত লোকজনকে শান্ত করে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মর্গে প্রেরণ করি। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাসপাতাল মালিক মো. মকবুল হোসেনকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো। জালাল হোসেন বলেন, এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। রোগীর মৃত্যুর ব্যাপারে ডাক্তার অথবা হাসপাতালের যদি কোন গাফলতি থাকে তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে সিজারিয়ান অপারেশনকারী চিকিৎসক শাহনাজ পারভীন বলেন, নিঁখুতভাবে সিজারিয়ান অপারেশন সম্পন্ন হলেও পোস্ট অপারেটিভ ফলোআপের অভাবে রোগীর অবনতি ঘটে। এতে চিকিৎসার কোনো অবহেলা নেই বলে দাবি করেন তিনি।

(নতুন কুমিল্লা/জেপি/এইচএম/২৮ আগস্ট ২০১৮)

আরও পড়ুন