কুমিল্লা
সোমবার,২৮ নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ৩ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪
শিরোনাম:
কুমিল্লায় ৭১১ রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিলেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন ইসলামী ব্যাংকের ফাস্ট এ্যসিসস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নাজমুলের পদোন্নতি লাভ ‘গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন তাহসিন বাহার কুমিল্লার সাবেক জেলা প্রশাসক নূর উর নবী চৌধুরীর ইন্তেকাল কাউন্সিলর প্রার্থী কিবরিয়ার বিরুদ্ধে অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগ লাকসামে বঙ্গবন্ধু ফুটবল গোল্ডকাপে পৌরসভা দল বিজয়ী কুসিক নির্বাচন: এক মেয়রপ্রার্থীসহ ১৩ জনের মনোনয়ন প্রত্যাহার কুসিক নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন বিদ্রোহী প্রার্থী ইমরান স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে কুমিল্লায় ঢাকা আহছানিয়া মিশনের মেলার আয়োজন কুসিকে মেয়র প্রার্থী রিফাতের নির্বাচন পরিচালনায় ৪১ সদস্যের কমিটি

কুমিল্লায় ১৬দিনে শিশু চিকিৎসায় ২লাখ টাকা বিল দেখে পালালো মা-বাবা !

কুমিল্লা নগরীর ঝাউতলার সিবিক স্কয়ারে অবস্থিত কুমিল্লা মা ও শিশু স্পেশালাইজড হসপিটালে ২ লক্ষ টাকা বিল দেখে ১৬ দিনের ছেলে শিশুকে ফেলে চলে গেছে মা-বাবা । এঘটনাটি নগরীজুড়ে টক অব দি টাউনে পরিণত হয়েছে। এঘটনায় শিশুটির মা-বাবার মানবিকতা নিয়ে যেমন প্রশ্ন উঠেছে ,তেমনি হাসপাতালের এত বর্ধিত বিল নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে।

জানা যায়, সদ্যজাত শিশুটি চাদঁপুর জেলার হাজীগঞ্জ উপজেলার বাকেলা গ্রামের শাহ আলম ও রোকেয়া বেগমের সন্তান। এর আগে তাদের তিনটি সন্তান পৃথিবীর আলো দেখার পূর্বেই নষ্ট হয়েছে। এই শিশুটির স্বাভাবিক জন্মের পর কিছু সমস্যা দেখা দেওয়ায় ১৮ আগষ্ট তার মা-বাবা শিশুটিকে নিয়ে কুমিল্লা মা ও শিশু স্পেশালাইজড হসপিটালে আসে।

এখানে হাসপাতালের এনআইসিইউতে রাখা হয় শিশুটিকে। ২৪ তারিখে বিল ২ লক্ষ টাকা হয়েছে শুনে শিশুটিকে রেখে পালিয়ে যায় তার মা-বাবা। মা-বাবা লাপাত্তা হওয়ার পর তাদের মুঠোফোনে কল দিয়ে মুঠোফোন সংযোগে না পেয়ে থানায় জিডি করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ।

স্থানীয় সূত্র জানায়, হাসপাতালের এত বর্ধিত ফি না দিতে পেরেই পালিয়ে গেছে শিশুটির মা-বাবা।

হাসপাতালের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর বদিউল জানান, ১৮ তারিখ থেকে অদ্য পর্যন্ত প্রায় ২ লক্ষ বিল হয়েছে। শিশুটির মা-বাবার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। মুঠোফোনটিও বন্ধ। শিশুটি এনআইসিইউতে রয়েছে । কোতয়ালী থানায় জিডি করেছি।

এত বিল হওয়ার প্রসঙ্গে তিনি জানান, এনআইসিইউতে অক্সিজেন সরবরাহ, মেডিসিন, সার্ভিস চার্জ, চিকিৎসক দেখছে। তাই এত বিল আসছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সিভিল সার্জন ডাঃ মুজিবুর রহমান জানান, আমি শুনেছি বিষয়টি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ থানায় জিডি করেছে। যদি শিশুটির মা-বাবা না আসে তাহলে আদালতের মাধ্যমে কেউ নিতে চাইলে শিশুটিকে নিতে পারবে লালনপালনের জন্য।

এ বিষয়ে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর জানান, বিষয়টি এখন শুনলাম মাত্র। খোঁজ নিয়ে দেখছি।

(নতুন কুমিল্লা/এমকে/আসএ/সেপ্টেম্বর)

আরও পড়ুন