কুমিল্লা
শনিবার,২৪ অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
৮ কার্তিক, ১৪২৭ | ৬ রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২

মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা

মানুষের দুর্ভোগের দায় নেবে কে?

দেশের লাইফলাইন খ্যাত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক। প্রতিদিন এ সড়ক দিয়ে হাজার হাজার যানবাহন দেশের বিভিন্নস্থানে চলাচল করে। এ সড়কের মধ্যবর্তী স্থান কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা। এ উপজেলার চৌদ্দগ্রাম বাজার এলাকায় চারলেন সড়কের মাঝে রয়েছে বিভিন্ন দোকান-পাট। ফলে এক পাশে ঢাকামুখী সড়ক এবং অন্যপাশে চট্টগ্রামমুখী সড়ক।

সড়কের পশ্চিম পাশে রয়েছে উপজেলা পরিষদ, চৌদ্দগ্রাম এইজ জে পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, নিত্যপণ্যের বাজার, কিন্ডার গার্টেন ও ব্যাংক-বীমা। আর পূর্ব পাশে রয়েছে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পৌরসভা ভবন, চৌদ্দগ্রাম ফয়েজুন্নেছা মহিলা মাদরাসা, চৌদ্দগ্রাম নজমিয়া ফাযিল মাদরাসা। জরুরী প্রয়োজনে জনসাধারন পাচ্ছে না কোন ধরনের তিন চাকার যানবাহন। হাইওয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে বারবার মাইকিং করে, ত্রি হুইলার চলতে নিষেধ করা হচ্ছে। গত ২৭ আগস্ট সোমবার সড়ক পরিবহন বিভাগের সভাকক্ষে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে সড়ক পরিবহন উপদেষ্টা পরিষদের সভায় সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে এবং দুর্ঘটনা রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে ১৮টি সিদ্ধান্ত নেয়ার পর হাইওয়ে পুলিশ সক্রিয় হয়ে উঠে।

সচেতন মহল বলছেন-সরকারের কর্তা ব্যক্তিরা সরকারি গাড়ি ব্যবহার ছাড়–ন। এরপর চৌদ্দগ্রাম এসে দেখুন-সড়কের পশ্চিম পাশের রোগী নিয়ে পূর্ব পাশের হাসপাতালে মানুষ কিভাবে যাবে? বিশেষ করে বৃদ্ধ ও শিশুদের ভোগান্তি সবচেয়ে বেশি। ভারি একটি ব্যাগ নিয়ে দীর্ঘ ৫’শ মিটার বা তারও অধিক পথ হেঁটে যেতে হচ্ছে। বৃদ্ধ মানুষের জন্য নিজে একা হাঁটতেই যেখানে অনেক কষ্ট হয়, সেখানে ভারি বস্তু বা জিনিস নিয়ে কিভাবে দীর্ঘ পথ চলবে? গত ২৮ আগস্ট মঙ্গলবার ঢাকার একটি অনুষ্ঠানে যুবলীগের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরী সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, মহাসড়ক থেকে ত্রিহুইলারসহ ছোট যানবাহন চলাচল বন্ধ করেছেন, তার জন্য আপনাকে সাধুবাদ জানাই।

কিন্তু তাদের জন্য বিকল্প কোন ব্যবস্থা না করা কতটুকু যুক্তিসঙ্গত?। তিনি ওবায়দুল কাদেরের প্রতি প্রশ্ন ছুড়ে বলেন, আমার বাড়িটি মহাসড়কের পাশে, আমার স্ত্রী যদি অসুস্থ্য হয় তাকে আমি কিভাবে হাসপাতাল নিবো। কাল সকালে আমার সন্তানটি কিভাবে স্কুলে যাবে। তাদের জন্য একটি বিকল্প ব্যবস্থা করুন। দেশে কয়েক লক্ষাধিক ত্রিহুইলার ও ছোট যানবাহনের মালিক ও শ্রমিক রয়েছে। তারা কোথায় যাবে। নির্বাচনের আগে এত কঠোরতা কেন?

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কসহ দেশের সকল সড়কে তিন চাকা বিশিষ্ট ত্রিহুইলার চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে ২০১৫ সালের ১ আগস্ট থেকে। তখন এতটা কঠোরতা না থাকলেও প্রশাসন এখন ত্রিহুইলারের বিরুদ্ধে কঠোর থেকে কঠোরতম অবস্থান নিয়েছে। যেখানে ত্রিহুইলার দেখছে, সেখান থেকে আটক করছে। আর এ সকল কারণে জনমনে বিভ্রান্তের সৃষ্টি হচ্ছে। সাধারণ মানুষের প্রশ্ন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে কেন সরকার এতটা কঠোর হচ্ছে? এর ফলে সরকারের ভাবমুর্তি নষ্ট হচ্ছে। সিএনজি চালিত অটোরিকশা বা ত্রিহুইলার চালকদের অভিযোগ, নিষেধাজ্ঞা জারির পর থেকে পুলিশ যেখানে ত্রিহুইলার পাচ্ছে, সেখান থেকে আটক করে নিয়ে যাচ্ছে। তারা আরও বলেন, গ্রাম্য সড়কগুলোতে সিএনজি অটোরিকশা চালিয়ে মালিক জমা উঠানো সম্ভব নয়। এছাড়া সংসার চালানো দুস্কর হয়ে উঠেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে সরকার মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্সে অবস্থান করছে। এ কারণে দেশের হাজার হাজার ক্ষুদ্র মাদক ব্যবসায়ী ও ব্যবহারকারীরা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসছে। তারা অধিকাংশই এ কর্মের সাথে জড়িত। কিন্তু প্রশাসনের কঠোরতার কারণে তারাও এখন বেকার হয়ে পড়ছে। তাদের দাবি-আমরা এখন কি করবো?
গত ২৭ আগস্ট সোমবার সড়ক পরিবহন বিভাগের সভাকক্ষে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে সড়ক পরিবহন উপদেষ্টা পরিষদের সভায় অন্তত ১৮টি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এসব সিদ্ধান্তের দ্রুত বাস্তবায়নের ওপরও জোর দেওয়া হয়েছে। মহাসড়ক থেকে ভটভটি, নসিমন, করিমন, অটোরিকশা, ব্যাটারিচালিত যানবাহনের চলাচল বন্ধে আরও কঠোর হওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

৮০ কিলোমিটার গতির ওপরে মহাসড়কে যানবাহন চালানোর ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। বৈঠক শেষে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের এসব সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, ‘সড়ক, মহাসড়ক এবং মহানগরীর পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে আজকের সভা থেকে ১৮টি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে-দেশের সড়ক-মহাসড়কে নসিমন, করিমন, ভটভটি, লেগুনা, ইজিবাইক, ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ; যেসব স্থানে বা জেলায় আঞ্চলিক ট্রান্সপোর্ট কমিটি (আরটিসি) নেই, সেসব জেলায় দ্রুত আরটিসি গঠন করতে হবে; প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাস, ট্রাক, কাভার্ড ভ্যানের অবৈধ অ্যাঙ্গেল, হুক ও বাম্পার অপসারণের কাজ চলমান আছে, ইতিমধ্যে ৯০ শতাংশ অপসারণ করা হয়েছে; মহাসড়ক থেকে আঞ্চলিক যানবাহন বন্ধে হাই কোর্টের নির্দেশনা বাস্তবায়ন, ইজিবাইক নীতিমালা প্রণয়নে সড়ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আবদুল মালেকের নেতৃত্বে কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে, কমিটিকে আগামী ২০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

পরিবহন খাতকে শিল্প হিসেবে প্রাপ্য সুবিধাদি নিশ্চিত করতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে প্রস্তাব বা অনুরোধ পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বাস, ট্রাকসহ গণপরিবহনের ইকোনমিক রাইফ নির্ধারণে বিআরটিএ এবং বুয়েটের এআরআই কাজ করছে, দ্রুততম সময়ের মধ্যে রিপোর্ট পেশের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিআরটিএর চলমান ক্রাশ প্রোগ্রাম অব্যাহত থাকবে, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত শুক্রবার বাদে প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বিআরটিএর এই সেবা চলমান থাকবে। বিআরটিএতে নতুন করে আটজন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হবে। বর্তমানে ১১ জন কাজ করছেন।

আরও জনবল বাড়ানো হবে। রাস্তায় শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা পর্যন্ত ফিটনেসবিহীন গাড়ির বিরুদ্ধে ট্রাফিক বিভাগের চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে। জাতীয় মহাসড়কে লেগুনাজাতীয় ধীরগতির গাড়ি চলতে পারবে না এবং চলতে দেওয়া হবে না। ইজিবাইক ও ব্যাটারিচালিত রিকশার খুচরা যন্ত্র আমদানি নিয়ন্ত্রণে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করা হবে এবং কারখানা বন্ধে নিয়মিত অভিযান চলবে। অবৈধ যানবাহন ডাম্পিংয়ের জন্য স্থান নির্ধারণ এবং ডাম্পিং গ্রাউন্ড নির্ধারণ করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চান্দিনা, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের জগদীশপুর, সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে সড়ক বিশ্রামাগার স্থাপন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ সংখ্যা ক্রমান্বয়ে আরও বাড়ানো হবে। গাড়িতে অননুমোদিত স্টিকার, মনোগ্রাম, ফ্যাগস্ট্যান্ড লাগানো যাবে না। মহাসড়কে যানবাহনের গতিসীমা ৮০ কিলোমিটার নির্ধারণ করা হয়েছে। এ সিদ্ধান্ত কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা হবে। মহানগরীর যানবাহন বা বাসের প্রতিযোগিতা বন্ধে কন্ট্রাক্ট সার্ভিস চলবে না এবং ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাসসমূহ রং করে সৌন্দর্য বর্ধন করতে হবে।

সরকারের এ সিদ্ধান্তের কারণে মানুষ দুই থেকে চার কিলোমিটার পর্যন্ত মহাসড়কে হেঁটে যেতে হচ্ছে। বিকল্প কোন সড়কের ব্যবস্থা না করেই এমন সিদ্ধান্ত নেয়ায় মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, তিন চাকার যানবাহন কয়েকদিন মহাসড়কে চলছে না। কিন্তু সড়ক দুর্ঘটনা কি বন্ধ রয়েছে? চালকদের সচেতনতার উদ্যোগ নিলেই একমাত্র সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব বলেও তারা দাবি করেন।

লেখক : সাংবাদিক ও কলাম লেখক। মোবাইল : ০১৮১২-৫৯৬১৮৩‌

আরও পড়ুন